রাজগঞ্জের গাছিরা খেজুর গাছের রস সংগ্রহের কাজে ব্যাস্ত সময় পার করছেন

0
1450

উত্তম চক্তবর্তী : শীতের তীব্রতা আসার শুরতেই খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহের কাজ শুরু করে দিয়েছে রাজগঞ্জের গাছিরা। তবে এ অঞ্চলে খেজুর গাছ সংকটের কারণে এ বছর চাহিদা অনুযায়ী খেজুরের রস পাওয়া যাবেনা বলে আশঙ্কা করছেন রস সংগ্রকারীরা। সরেজমিনে মনিরামপুরের উপজেলার রাজগঞ্জের কয়েকটা গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে যশোরের যশ খেজুরের রস এক সময় খ্যাতি থাকলেও কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে।গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য খেজুরের রস ও গুড় কয়েক বছর আগেও এলাকার প্রতিটি বাড়িতে, ক্ষেতের আইলের পাশে, রাস্তায় দু’ধার দিয়ে ছিল অসংখ্যা খেজুর গাছ, কোন পরিচর্যা ছাড়াই অনেকটা প্রাকৃতিক ভাবে বেড়ে উঠতো খেজুরের গাছ গুলো প্রতিটি পরিবারের চাহিদা পূরন করে রস দিয়ে তৈরী করা হতো গুড়সহ নানান সাদের পিঠা ও পায়েস।অত্যন্ত সুস্বাদু হওয়ায় এলাকার চাহিদা পুরন করে বাড়তি গুড় সরবরাহ করা হতো দেশের বিভিন্ন স্থানে। সচেতন মহল মনে করেন জলবাযুর প্রভাব লবন পানির আগ্রাসন ও জ্বালানী হিসাবে ইট ও টালি ভাটায় অবাধে অন্যান্য গাছের সাথে খেজুর গাছ জালানো হচ্ছে। ফলে কালের বিবর্তে দিন দিন হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী খেজুর গাছ। বসত ভিটা কিংবা মাঠে ঘাটে এমনকি রাস্তার পাশেও মিলছে না খেজুর গাছ।
অনেকটাই বিলোপ্তির পথে, পরিবেশ বান্ধব গুরুত্বপূর্ণ এ গাছ থেকে এক সময় রস সংগ্রহ করে অনেকেই জীবিকা নির্বাহ করলেও বেশিরভাগ লোকই ছেড়ে দিয়েছেন এ পেশা। রাজগঞ্জের হানুয়ার গ্রামের গাছী শফিকুল ইসলাম ধুনা একসময় এক থেকে দুই শত গাছ কেটে রস সংগ্রহ করে গুড় বানিয়ে এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশের অন্যান্য জেলায় পাঠিয়ে মুনাফা পেতেন। এখন তিনি ৪০ থেকে ৫০ টি খেজুর গাছের রস সংগ্রহ করে থাকেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here