রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড়ে ভ্রমণে এসে ট্রলার থেকে লাফিয়ে পড়ার ৮ ঘন্টা অতিবাহিত হলেও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ কলেজ ছাত্রের লাশ

0
159

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর(যশোর)অফিস:- যশোরের পাইসাইন্স কেয়ার কোচিং সেন্টার থেকে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড়ে ভ্রমণে এসে ট্রলার থেকে লাফিয়ে পড়ার ৮ ঘন্টা অতিবাহিত হলেও সন্ধান মেলেনি ডুবে যাওয়া কলেজ ছাত্র সোহেবের লাশ। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ও খুলনার ডুবুরীদল তল্লাসী কাজ চালায়। আট ঘন্টা তল্লাসী চালালেও নিখোঁজ কলেজ ছাত্রের লাশের সন্ধান মেলেনি। ট্রলারে থাকা যশোর এম এম কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ও যশোর পাইসাইন্স কেয়ার

কোচিং সেন্টার এর ছাত্র সাকিবুল হাসান জানান, ১১ ফেব্রুয়ারী সকালে কোচিং সেন্টার থেকে শিক্ষক শিক্ষার্থীসহ ১৯ জন রাজগঞ্জের ঝাঁপার বাওড়ে ভ্রমনে আসি। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জেলা প্রশাসক ভাসমান সেতুর অনাথের ঘাট থেকে মেহেদীর ট্রলার ভাড়া করি। একে একে ১৯ জন ট্রলারে উঠার পর চালক মেহেদী ট্রলার ছেড়ে দেয়। পার্কের মাঝ বরাবর বাওড়ের মাঝ স্থানে ট্রলার থেকে ৩ কলেজ ছাত্র পানিতে লাফ দেয়। এবং সাতরিয়ে বাওড়ের পাড়ে উঠবে বলে ট্রলারে থাকা বন্ধুদের জানাই। কিন্তু তাদের শরীরে জিন্সের প্যান্টসহ অন্যন্য পোশাক থাকায় এম এম কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র যশোর সার্কিট হাউস পাড়ার আলমগীর হোসেনের ছেলে রিফাত হোসেন ও একই কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র যশোর খয়েরতলা গ্রামের অজবালীর ছেলে তন্ময় কোন রকম কুলে আসলে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। আশপাশের লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা করাই। অপর জন যশোর সিটি কলেজ প্রথম বর্ষের ছাত্র পুলিশ লাইন পাড়ার সাইন হোসেনের ছেলে শোয়েব হাসান পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয়।.সেই থেকে স্থানীয় জনতা ও জেলেরা কচাল জাল টেনে লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করে। সহযোগিতায় ছিলেন মনিরামপুর থানা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ, ঝাঁপা ফাঁড়ি পুলিশ ও খেদাপাড়া ফাঁড়ি পুলিশ। তখনও উদ্ধার হয়নি লাশটি। এরপর বিকাল ৩টা ২৫ মিনিট থেকে খুলনা ডুবুরীদল বাওড়ে তল্লাসী অভিযান শুরু করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধা) লাশের সন্ধান মিলাতে পারেনি ডুবুরীদল। এঘটনার পরপরই এলাকার উৎসুক জনতা বাওড়ের দু পাড়ে ভিড় জমায়। ভ্রমনকারী সকলেই পুলিশের তত্বাবধায়নে রয়েছে। কথা হয় জীবনে রক্ষা পাওয়া কলেজ ছাত্র রিফাতের সাথে তিনি প্রতিনিধিকে বলেন, আমরা ৩ বন্ধু সাতরানোর জন্য ট্রলার থেকে পানিতে লাফিয়ে পড়ি। কোন রকম সাতরিয়ে তন্ময় ও আমি কুলে আসতে পারি। কিন্তু বন্ধুবর সাকিব পানিতে তলিযে যায়। নিখোঁজ কলেজ ছাত্র সাকিবের পরিবার পরিজন এসে রাজগঞ্জ স্কুল মাঠে ও বাওড় পাড়ে আত্ননাদ করছে। স্থানীয় হাজার হাজার নারী পুরুষ নিখোজের লাাশটি এক নজর দেখার জন্য বাওড় পাড়ে ভিড় জমিয়েছে। এ বিষয়ে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের তদন্ত কর্মকর্তা সাহাজান কবির জানান, ঘটনাটি জানার পর পরই আমরা ঘটনাস্থলে আসি এবং তল্লাসীর কাজে সহযোগিতা করে আসছি। মণিরামপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির বলেন, খবর পেয়ে আমাদের টিম ঘটনাস্থলে গেছেন। নিখোঁজ ছাত্রকে উদ্ধারের কাজ চলছে। এবিষয়ে মণিরামপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, বাওড়ে কলেজ ছাত্র ডুবে নিখোঁজের সংবাদ পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে আসি। ডুবুরীদল তল্লাসী কাজ চালাচ্ছে। এখনো নিখোঁজ কলেজ ছাত্রের লাশের কোন সন্ধান মেলেনি।

SHARE
Previous articleবারোবাজারে সড়কে ঝরলো ১১ প্রাণ
Next articleযশোরে মদকসহ আটক-২
সম্পাদক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াকুব কবির, প্রকাশক-ফয়সাল ফারুকী অমি, প্রধান সম্পাদক - জাহিদ হাসান টুকন, নির্বাহী সম্পাদক-সাকিরুল কবীর রিটন বার্তা সম্পাদক-ডি এইচ দিলসান। নিউজ রুম ই-মেইল-magpienews24@gmail.com