রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড় নিয়ে দুই দলের মধ্যে চরম উত্তেজনা যে কোন মুহুর্ত্বে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সম্ভাবনা

0
242

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড় নিয়ে দুই গ্র“প জেলেদেও মধ্যে চলছে চরম উত্তেজনা। যে কোন মুহুত্বে একটা বড় ধরনের দুঘটনা ঘটার সম্ভবনা রয়েছে। সম্প্রতি ঝাঁপা বাওড় ইজারা সংক্রান্ত বিষয়ে এ অঞ্চলের জেলে সম্প্রদায়ের দুটি সমিতি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ঝাঁপা মৎসজীবি সমবায় সমিতি ও সোনার বাংলা মৎসজীবি সমিতি তোড় জোড় শুরু করে। সোনার বাংলা সমিতি ইজারা নেওয়ার পর ঝাঁপা মৎসজীবি সমিতি মৎস অধিদপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেন। অধিদপ্তর উভয় পক্ষের কাগজ পত্র তলব করেন।  এবং আগামী ৫ই জুলাই শুনানির দিন ধার্য করেন। এবং বাওড়ের সকল কার্যক্রম স্থগিত করেন।  সওে জমিনে দেখা গেছে রাজগঞ্জ অঞ্চলের জেলেদের জন্য ঝাঁপা বাওড়ের পানি বিষক্তে পরিনত হয়েছে। কোন রকম পানি ছুইলেই হয় হামলা, না হয় মামলার মত যে কোন ঘটনা ঘটবেই। এর ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার রামপুর জেলে পাড়ার ঝাঁপা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সদস্য হারাধন, বাবুরাম, শ্রীপদ সহ কয়েকজন নৌকায় করে রাজগঞ্জ বাজারে আসার সময় একই পাড়ার সোনার বাংলা মৎসজীবি সমিতির সদস্য দুলাল ,সাধন এর নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক তাদের উপর হামলা চালাই। এ সময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায় বাওড় থেকে উভয় পক্ষ উপরে উঠেই গোলযোগের সৃষ্টি হয়। হাতাহাতির এক পর্যায় থেমে যায়। এ দিকে গোলযোগের সংবাদ পেয়ে সোনার বাংলা মৎস জীবি সমিতির সদস্য কোমলপুর জেলে পাড়ার বিল্পব ও সুধাংশ রামপুর জেলে পাড়ায় যেয়ে ঝাঁপা মৎস জীবি সমিতর সদস্য দুলাল ও সাধনের পক্ষ নিয়ে পুনরায় গোলযোগের সৃষ্টি করে বলে হারাধন জানান । সন্ধার দিকে বিল্পব ও সাধন কয়েকজনকে সাথে নিয়ে রাজগঞ্জ বাজারে মৎস আড়ত ব্যবসায়ী ঝাঁপা মৎসজীবি সমবায় সমিতির সাবেক সভাপতি কৃ্্্ষৃনো পদ, সদস্য শ্রীপদ এর উপর হামলা চালিয়ে মারপিটের চেষ্টা চালাই। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারির সৃষ্টি হয়। এক পর্যায় রাজগঞ্জ পুলিশ ঘটনা স্থলে যেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। এ ঘটনায় ঝাঁপা মৎসজীবি সমিতির অজিদ বাদী হয়ে ঐ রাতেই থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনার পর রাত সাড়ে ৮ টার দিকে ঝাঁপা মৎসজীবি সমিতির লোকদের মারার জন্য সোনার বাংলা মৎসজীবি সমিতির সদস্যরা কোমলপুর জেলে পাড়ার সামনের রাস্তায় লাঠিসোটা নিয়ে দাড়িয়ে যায়। সংবাদ পেয়ে ঝাঁপা পুলিশ ফাড়ির পুলিশ, রাজগঞ্জ পুলিশ ঘটনা স্থলে গেলে তারা রাস্তা ছেড়ে বাড়িতে চলে যান। সেই থেকে এলাকা থমে থমে বিরাজ করছে, দুটি গ্র“প শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। যে কোন সময় একটি বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটার সম্ভবনা রয়েছে। এ বিষয়ে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এস আই আইনুদ্দীন জানান, বাওড় কেন্দ্র করে মাছ বাজারে দুই সমিতির লোকের মধ্যে মারামারি হচ্ছে এমন সংবাদ পেয়ে ঘটনা স্থলে আসলে যার সেই চলে যায়। পূনরায় কোন দূঘটনা না ঘটতে পারে তার জন্য পুলিশ প্রশাসন দীর্ঘ সময় সেখানে অবস্থানে রাখা হয় ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here