রাজগঞ্জের বাজারে ফুটপাতের দোকানে জেঁকে বসেছে শীত,চাহিদা বেড়েছে শীতবস্ত্রের

0
506

উওম চক্তবর্তী : যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জসহ আশেপাশের বাজারে শীতের তীব্রতা বেড়েছে । নগরে এখনও অগ্রাহয়ণের শীত তেমন একটা প্রভাব না ফেললেও গ্রামগঞ্জে জেঁকে বসেছে শীত । তবে সন্ধ্যা ও রাতে উত্তরের হিমেল হাওয়া নগরজীবনেও শীতানুভূতির আনছে । আর শীত থেকে বাঁচতে শীতবস্ত্রের দোকানগুলোতে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন । ফুটপাত থেকে শুরু করে অভিজাত মার্কেটগুলোতে গরম কাপড়ের চাহিদা বাড়ছে । রাজগঞ্জ বাজারে ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে ফুটপাত ও পুরাতন কাপড়ের দোকানগুলোতে শীতবস্ত্রের পসরা সাজিয়ে বসেছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা ।
পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, বড় বড় দোকান থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকানে জ্যাকেট, সোয়েটার, হুডি, শাল, চাদর, কাশ্মীরি শাল, হরেকরকম গেঞ্জিসহ বাহারি ডিজাইনের শীতের কাপড় পাওয়া যাচ্ছে । তরুণীদের জন্য রয়েছে হাল আমলের স্টাইলিশ নকশার শীতের কাপড় । বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, শীতের তীব্রতা না বাড়লেও, ক্রেতারা কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন । ক্রেতারা মনে করছেন শীত বেশি পড়লে কাপড়ের দাম বেড়ে যাবে । বিভিন্ন বয়সী ক্রেতারা ফুল হাতা গেঞ্জি, টুপি, পাতলা সোয়েটার, ট্রাউজারসহ হালকা শীতের কাপড় কিনতে শপিং মলগুলোতে ভিড় করছেন ।
সরেজমিন দেখা গেছে, প্রতিটি কাপড়ের দোকানে বৃদ্ধি পাচ্ছে সোয়েটার, মাফলার, কান টুপি, মাথার টুপি, হাত মোজা, পায়ের মোজা, জ্যাকেট, প্যান্ট ইত্যাদি । নিত্যনতুন ডিজাইনের ছোট-বড় সকলের জন্য শীতের কাপড় সংগ্রহ এবং সাজাতে ব্যস্ত দোকানীরা । বাজার বা জনবহুল এলাকার রাস্তার দু’পাশে হকারদের ব্যবসাও জমজমাট । তবে আগের চেয়েও দাম বেশি হওয়ায় কিছুটা বিপাকে ত্রেতারা । বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন বাজার ও জনসমাগম এলাকায় । তবে অধিকাংশ জায়গায় সকালের থেকে বিকেল বা সন্ধ্যায় কেনাকাটা জমজমাট হতে দেখা গেছে ।
বাজারের প্রত্যেকটা দোকানে গরম কাপড়ের ছড়াছড়ি । যেটি দেখি সেটিই পছন্দ হয় । তবে গতবারের তুলনায় এবার দাম বেশি । এক কাপড় ব্যবসায়ী বলেন , শীত যত বাড়বে বেচাবিক্রি তত বাড়বে, শীতকে কেন্দ্র করে অনেকে সিজনাল ব্যবসায়ীও হয়েছে । শীতও বাড়ছে, গরম কাপড়ের কেনাবেচাও বাড়ছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here