রাজগঞ্জের বিখ্যাত খেঁজুর গুড় স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে, দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ

0
278

উত্তম চক্তবর্তী : মৌসুমের শুরুতেই জমে উঠেছে রাজগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী খেঁজুর গুড়ের হাট ৷
স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে গুড়ের হাট থেকে খেঁজুর গুড় চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে ৷ যশোরের খেঁজুরের রসের রয়েছে আলাদা নাম যস ৷ সেই খেঁজুরের রস জ্বালিয়ে তৈরি করা হয় গুড়৷ খেঁজুরের গুড় যশোরের বিখ্যাত ৷ রাজগঞ্জ খেঁজুর গুড়ের হাটে গুড় বিক্রি করতে আসে রাজগঞ্জ অঞ্চলের প্রায় ২০/২৫ গ্রামের খেঁজুর গাছের গাছিরা ৷ রাজগঞ্জ বাজারের খেঁজুর গুড়ের হাটে গুড় বিক্রি করতে আসা রাজগঞ্জের শাহপুর গ্রামের আমজাদ আলী (৫০) বলেল, এখনতো আগের মতো গাছ নেই ৷ তাই রস এখন কম সংগ্রহ করা হয়৷ যা সংগ্রহ করতে পারি তাতে খরচটা কোন রকম টেকে ৷ তারপর বর্তমান বাজারে গুড়ের ভাড়ের দামও তুলনা মুলক কম ৷ একই এলাকার তোফায়েল বিশ্বাস (৪৫) জানান, ব্যাপারিরা গুড়ের দাম কম বলে ৷ যে দাম বলে, তাতে বেচলে, সব লোকসান ৷
এদিকে, ব্যাপারিরা একথা মানতে নারাজ ৷ তারা বলছে, গত বারের চেয়ে এবছর গুড়ের দাম অনেক বেশি ৷ ভোলা জেলা থেকে আসা গুড়ের ব্যাপারি খোকন মিয়া জানান, এবছর গুড়ের দাম বেশি ৷ গত বছর যে গুড়ের ভাড় ছিলো ৮শ’, ৯শ’ টাকা, এবছর সেই গুড়ের ভাড় ১৫শ’ থেকে ১৮ শ’ টাকা৷ ব্যাপারি ভাড় ভর্তি গুড় কিনে প্লাস্টিকের ড্রামে ভর্তি করে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে সরবরাহ করে থাকে ৷ বিশেষ করে দেশের নটব্যাংগোল এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয় বললেন খোকন মিয়া ৷ শুধু খোকন মিয়া নয়, ভোলা জেলা থেকে ৫/৭ জনের একদল গুড়ের ব্যাপারি এসেছে রাজগঞ্জ এলাকায় ৷ তারা রাজগঞ্জ খেঁজুর গুড়ের হাট থেকে গুড় কিনে ড্রাম ভর্তি করে রেখে দেয় ৷ পরে গুড়ের মৌসুম শেষ করে রাজগঞ্জ থেকে গুড় নিয়ে চলে যায় ৷ রাজগঞ্জ গুড়ের হাট সপ্তাহে দু’দিন বসে রাজগঞ্জ হাই স্কুলের মাঠে৷ স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে, দেশের চাহিদা মিটাচ্ছে রাজগঞ্জের বিখ্যাত খেজুরের গুড় ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here