রাজগঞ্জের স্বেচ্ছাশ্রমে বন্যা প্রতিরোধক দেয়াল নির্মান: ২০ গ্রামের জনগনের মাঝে স্বস্তি

0
286

উত্তম চক্রবর্ত্তী : অবশেষে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পুরণ হতে চলেছে। রাজগঞ্জ-পুলেরহাট সড়কের মানিকগঞ্জ নামক স্থানে একটি ব্রীজের নীচে বন্যা প্রতিরোধক দেয়াল না থাকায় বর্ষা মৌসুমে এলাকার ২০ গ্রামের মানুষ চরম ক্ষতির শিকার হয়ে আসছিল। এ নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সংবাদ মাধ্যমে শিরোনামও হয়। সম্প্রতি এলাকাবসীর উদ্যোগে সে অংশে দেয়াল নির্মান করতে কাজ শুরু করেছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানাযায়, গত বর্ষা মৌসুমে মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকায় একটি ব্রীজের কারণে উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের হানুয়ার, চন্ডিপুুর, দোদাড়িয়া, গালদা, খেদাপাড়া, খালিয়া, কৃঞ্চবাটিসহ প্রায় ২০ গ্রামের কৃষকরা তাদের হাজার হাজার একর জমির ফসল ঘরে তুলতে পারেননি। কিন্তু এবার তারা একজোট হয়ে সরকারী সাহায্যের আশায় বসে না থেকে স্বেচ্ছাশ্রম ও নিজেদের অর্থে ওই ব্রীজের নীচে বন্যা প্রতিরোধক দেয়াল নির্মান করার উদ্যোগ নিয়েছেন। এতে একদিকে ভারত থেকে আসা উজানের পানি কপোতাক্ষ সংলগ্ন ঝাঁপা বাওড়ের খাল দিয়ে ঢুকে সৃষ্ট বন্যার হাত থেকে এলাকার জমির ফসল যেমন রক্ষা পাবে। অন্যদিকে আগামীতে তারা তাদের জমির ফসল ঘরে তুলে চরম দূর্দশার হাত থেকে রক্ষা পাবেন বলে তারা ধারনা করছেন। এদিকে ব্রীজের নীচে দেয়াল নির্মানের ফলে ওই এলাকার মানুষের মাঝে এক ধরনের স্বস্তি ফিরে এসেছে।  বন্যা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও হানুয়ার গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আলহাজ্ব আনছার আলী মোড়ল বলেন, গত বছর এ এলাকার প্রায় ২০ গ্রামের লক্ষ লক্ষ মানুষ বন্যায় তাদের বসত-ভিটাসহ ক্ষেতের ফসল হারিয়ে পথে বসেছে। আর এর মূল কারণ হলো রাজগঞ্জ-পুলেরহাট সড়কের ঝাঁপা বাওড় সংলগ্ন হানুয়ার গ্রামের মানিকগঞ্জে অবস্থিত ব্রীজটির নীচে দেয়াল না থাকা। তিনি বলেন, বিগত কয়েক বছর আগে থেকে এ এলাকার ফসল ভারত থেকে আসা উজানের উপচেপড়া পানি ঝাঁপা বাওড়ে ঢুকে পড়ে। সে উপচে পড়া পানি খালের মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকায় গিয়ে বন্যা কবলীত হয়ে মানুষের ঘর-বাড়ী, পশু-পাখি, ফসলের ক্ষেত নষ্ট হতো। সে সময় আমরা এলাকার লোকজন মিলে ব্রীজটির নীচে দেয়াল নির্মান করি। সে থেকে বন্যার হাত থেকে আমাদের ফসল রক্ষা পেয়ে আসছে। তিনি আরো বলেন, গত বছর স্থানীয় প্রকৌশল বিভাগ সেখানে নতুন করে ব্রীজ নির্মান করে। কিন্তু এলাকা বাসীর দাবী সত্ত্বেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার সিডিউল বহির্ভুত হওয়ার দোহাই দিয়ে এর নীচে দেয়াল নির্মান করেনি। ফলে গত মৌসুমে আবারো বন্যায় হাজার হাজার একর জমির ফসল হারিয়ে মানুষ বিরাট ক্ষতির মুখে পড়ে। বন্যা প্রতিরোধ কমিটির আরেক সদস্য পল্লী চিকিৎসক সিরাজুল ইসলাম বলেন, এলাকার মানুষ গত বছর বাওড়ের উজান পানির কারনে সৃষ্ট বন্যায় সর্বশান্ত হয়েছে। যে কারণে আমরা এবার ব্রীজের নীচে দেয়াল নির্মানের উদ্যোগ নিলে তারা স্বতঃস্ফুর্তভাবে সাহায্যে এগিয়ে এসেছে। উপজেলা প্রকৌশলী জানান, ওই এলাকার সমস্যার কারনে গত বর্ষা মৌসুমের আগে উপজেলা পরিষদ থেকে ব্রীজের নীচে দেয়াল নির্মানের জন্যে জরুরী ভিত্তিতে কিছু অর্থ থোক বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু স্বার্থান্বেসী একটি মহলের কারণে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। স্থানীয় সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, গত বছর উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের বিরাট একটি অংশ বন্যা কবলিত হয়ে সেখানকার মানুষ বিশেষ করে কৃষকরা ক্ষতির মুখে পড়ে। এবার তারা সরকারের আশায় বসে না থেকে নিজেরা স্বেচ্ছাশ্রমে এবং নিজেদের অর্থে সেখানে বন্যা প্রতিরোধক দেয়াল নির্মান করছে সে জন্যে আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। তিনি আরো বলেন, প্রয়োজন হলে সেখানে অতিরিক্ত অর্থ সাহায্য দেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here