রাজগঞ্জে অর্ধশতাধিক যুবকের নিজস্ব অর্থায়নের প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে ঝাঁপা বাওড়ে তৈরী হচ্ছে ১৩শ ফুট দৈর্ঘ্য লোহার ভাসমান সেতু

0
589

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজগঞ্জের ঝাঁপা বাওড়ে নৌকা পারাপারের দূর্ভোগ ঘোচাতে গ্রামের অর্ধশতাধিক যুবক নিজস্ব অর্থায়নের প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে ১৩শ ফুট দৈর্ঘ্য লোহার ভাসমান সেতু তৈরী করছে। সেতুটি চালু হওয়ার পর এ অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতি ও ব্যবসা বানিজ্যের প্রসার ঘটবে বলে ধারনা করছে সচেতন মহল।
সরেজমিনে জানা যায়, যশোর জেলার মণিরামপুর উপজেলার ঝাঁপা ইউনিয়নের ব-দ্বীপ বিশিষ্ট ঝাঁপা গ্রাম। এ গ্রাম থেকে একটুকু বাইরে পা রাখতেই হতে হয় নৌকা পারাপার। আর এই পারাপারের সময় নানাবিধ সমস্যা ও দূর্ভোগের স্বীকার হন স্কুল গামী ছাত্র/ছাত্রী, চিকিৎসা নিতে যাওয়া দুস্থ রুগী ও প্রসব বেদনা মা, হাট বাজারে আসা যাওয়া সাধারন জনগনসহ সকলেই। এ ছাড়া বাওড়ে নৌকা ডুবির ঘটনায় জান-মালসহ আর্থিক ক্ষতি সাধন হয়ে আসছে। এ সকল সমস্যা ও দূর্ভোগ থেকে বের হতে ও ক্ষতি সাধন থেকে রেহাই পেতে উত্তরনের পথ খোজে ঝাঁপা গ্রাম উন্নয়ন ফাউন্ডেশন এর সদস্যরা। এর পর ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারী মাষ্টার আসাদুজ্জামান আসাদ এর আহবানে ফাউন্ডেশনের এক জরুরী সভায় প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে বাওড়ে ভাসমান সেতু তৈরী করার পরিকল্পনা গ্রহন করেন এবং বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহন করেন। সেই থেকে পানির উপরে ১৩শ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থ ভাসমান সেতুর কাজ করছে। প্লাষ্টিকের ব্যারেলের উপওে লোহার এ্যাংলেট জুড়ে ২০ ফুট লম্বা বিশিষ্ট এক একটি ছেট তৈরী করে। প্রায় অর্ধশতাধিক ২০ ফুটের তৈরীর পর ঐ ছেট গুলি একে একে পানিতে নামিয়ে জোড় দেওয়া হয়েছে। যার দৈর্ঘ্য ৯শ ফুট দাড়িয়েছে। গত ৩-১২-১৭ ইং তারিখে সরে জমিনে দেখা গেছে প্লাষ্টিক ড্রামের উপর লোহার এ্যাংলেট ও শীট দিয়ে তৈরী প্রায় ৯শ ফুট দৈর্ঘ্য ভাসমান সেতুটি রাজগঞ্জ বাজারের খেয়াঘাট থেকে ঝাঁপা অনাথ পাটনির ঘাটের পানির উপর ভাসছে। এদিকে ভাসমান সেতু তৈরীর প্রধান শ্রমিক রাজগঞ্জ বাজারের আব্দুর রশিদের লেদ মিস্ত্রি রবিউল জানাই, ঝাঁপা গ্রাম উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের পরিকল্পনা ও সেতুর নঁকসা মাফিক আমি শ্রমিকদের নিয়ে বিগত ৬/৭ মাস কাজ করছি। আসা করি আমি অতি দ্রুত সেতু তৈরীর কাজ শেষ করবো। এ বিষয়ে ফাউন্ডেশনের সভাপতি মেহেদী হাসান টুটুল বলেন, এখনও ভাসমান সেতুর প্রায় ১শ ফুট কাজ বাকী রয়েছে। ভাসমান সেতুর পুরো ১ হাজার ফুট কাজ শেষ হওয়ার পর সেতুর দু-পাশে রেলিং তৈলী করা ও পানিতে নোঙ্গর ফেলে সেতুটি টান বাঁধার কাজ করা হবে যেন এদিক ওদিক দুলতে না পারে। তিনি আরো বলেন, বাওড়ে মাছ ধরা নৌকাসহ চলাচলকৃত সকল নৌকা সেতুর এ পাশ থেকে ও পাশ যাওয়ার জন্য সেতুর মাঝ খানে প্রায় ১৫ ফুট সেতুটি উচু রাখা হয়েছে। এছাড়া সেতুটি শক্ত অবস্থানে রাখতে দু-পাশের পাড়ে আর সি সি ঢালাই পিলারের উপর ১৫০ ফুট ও ১৫০ ফিুট দৈর্ঘ্য দুটি কংক্রিট ঢালাই রাস্তা করা হবে। রাতের আঁধার ঠেঁকাতে সেতুর এ পাশ থেকে ও পাশ পর্যন্ত বৈদ্যুতিক ও জেনারেটরের আলো থাকবে। সেতুটি তৈরী জন্য ৮শ ৪৩টি প্লাষ্টিকের ব্যারেল ও এ্যাংলেট, শীট, নোঙ্গরসহ সকল কাজে অগনিত লোহা লাগছে যা এখন সঠিক হিসাব দেওয়া সম্ভব নয়। বর্তমান পর্যন্ত সেতু তৈরীতে আনুমানিক ৩৫/৪০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। সেতুটির কাজ পুরোপুরি শেষ করতে আরো ৫/৬ মাস সময় লাগবে এবং কোটি টাকার উর্দ্ধে ব্যয় হতে পারে বলে প্রতিবেদককে জানান। শুধু এই নয় ভাসমান সেতু দিয়ে সরাসরি পার হয়ে পশ্চিমাঞ্চলের লাখ লাখ জনগন স্বল্প সময়ে উপজেলার সদরে যেতে পারবে। সেতুটি উদ্বোধনের পর মাইক্রোবাস সহ ছোটখাট সকল প্রকার যানবাহন চলাচল করতে পারবে। এদিকে বাওড়ে ভাসমান সেতু তৈরীতে রাজগঞ্জ অঞ্চলের সচেতন মহল বলছে, শুধু ঝাঁপা গ্রাম বাসীর স্বস্তি নয়, ফিরে আসবে সর্বত্রই স্বস্তি। গড়ে উঠবে একটি নতুন অধ্যায়, নতুন জীবন। ওপরদিকে ঝাঁপা গ্রামের অর্ধশতাধিক যুবকের নিজস্ব অর্থায়নে বাওড়ের উপর বিশাল দৈর্ঘ্যরে একটি লোহার তৈরী ভাসমান সেতু হচ্ছে এমন সংবাদ শুনে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হাজার হাজার মানুষ সেতুটি দেখার জন্য রাজগঞ্জ বাজারের খেয়াঘাট সংলগ্ন স্থানে ও ঝাঁপার অনাথের ঘাটে জমায়েত হচ্ছে। ধারনা করা হচ্ছে কাক ডাকা ভোর থেকে ভারী রাত পর্যন্ত সেতু সংলগ্ন স্থানের দুপাড়ে যেন চলছে মিলন মেলা। এদিকে ভাসমান সেতু সম্পর্কে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের তদন্ত কর্মকর্তা আকরাম হোসেন চৌধুরী বলেন, স্বল্প সময়ে অধিক পথ চলা গেলে সকল কাজে সুবিধা হয়। সেতুটি তৈরীতে এলাকার অপরাধ কমবে বলে আমি মনে করছি। এ বিষয়ে ঝাঁপা ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টু বলেন, ইউনিয়নের ঝাঁপা গ্রামটির চারিপাশ পানি দ্বারা বেষ্টিত। যার কারনে ইউনিয়নের অন্যন্য গ্রাম থেকে এই গ্রামটি একেবরেই আলাদা অবস্থানে রয়েছে। এই গ্রামের সাথে যোগাযোগের এক মাত্র পথ নৌকা পারাপার। আর এই পারাপারের জন্য রয়েছে ৫/৬টি খেয়াঘাট। ঝাঁপা গ্রামবাসী সেই নৌকা পারাপারের দূর্ভোগ থেকে রক্ষা পেতে নিজস্ব অর্থে লোহার তৈরী ভাসমান সেতু তৈরী করছে। এই সেতরু সুবিধা শুধু ঝাঁপা গ্রামবাসীর নয় পুরো ইউনিয়ন বাসীসহ অত্র অঞ্চলের সকলের। তিনি আরো বলেন, সেতুর কারনে ইউনিয়নের একে অপরের সাথে বন্ধুত্ব সুলভ গড়ে উঠবে ও এ অঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ ব্যবসা বানিজ্যের উন্নয়ন হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here