রাজগঞ্জে আম গাছে মুকুলের সমারহ

0
371

উত্তম চক্রবর্ত্তী : যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জে আম বাগানের আম গাছগুলো মুকুলে মুকুলে ভরে গেছে। মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠেছে আম বাগানগুলো। তাই বাগানগুলোতে মধু সংগ্রহে মৌ মাছিদেরও ছোঁটাছুটি শুরু হয়েছে। সেই সাথে মনিরামপুর উপজেলার আম চাষিরদের ব্যস্ততা বেড়েছে। বাগানের মালিকরা আমগাছে ঔষুধ স্প্রেসহ শুরু করে দিয়েছে বিভিন্ন ধরনের তদারিক চলছে। কৃষি অফিস সুত্রে জানাগেছে, ফালগুন মাসেই প্রতিটি গাছেই পুরোপুরি ভাবে মুকুল ফুটে যাবে। বড় ধরনের কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে এ বছর আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন তারা। মণিরামপুেরর আম চাষিরা এলাকার চাহিদা পুরন করে দেশের অন্য অন্য জেলাতেই তারা রপতানি করে যার কারনে দিন দিন আম চাষে বৃদ্ধি পাচ্ছে। চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে আমের বাগান ও বৃদ্ধি পাচ্ছে এখন যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলায় বাণিজ্যিক ভিওিতে সব জাতের আমেরই চাষ হচ্ছে। লাভজনক হওয়ায় প্রতিবছর কৃষিজমিতে তৈরি করা হচ্ছে আমের বাগান। মণিরামপুর উপজেলার হানুয়ার গ্রামের আমচাষি রুহুর আমীন জানান, কয়েক সপ্তাহ থেকে আমগাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার গাছগুলোতে মুকুলের সমারোহ ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলার হয়াতপুর গ্রামের আম চাষি কামরুজ্জামান জানান, বাগানের নিয়মিত যন্ত নিলে ভাল ফলন পাবো বলে আমরা আসা করছি। মণিরামপুরের হাজরাকাঠী গ্রামের আম ক্রেতা মিলন জানান, মুকুল আসার আগেই তিনি আম বাগান অগ্রিম কিনে নেন। এবার দু-একটি বাগান ছাড়া প্রতিটি বাগানেই মুকুল আসতে শুরু করেছে । মণিরামপুর ্উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পলাশ সরকার জানান, মূলত তিনটি পর্যায়ে আমের মুকুল আসে। যার প্রথম পর্যায় শুরু হয়েছে। পুরনো জাতের গাছগুলোতে মুকুল ধরেছে। আবহাওয়া অনূকুলে থাকলে চলতি মাসের শেষের দিক পর্যন্ত সব গাছে মুকুল দেখা যাবে। মণিরামপুর উপজেলার ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে এসব বাগানে হিমসাগর, লেংড়া, বোম্বাই, তিলি বোম্বাই,ল্যাংড়া,গোপালভোগ,ক্ষিরশাপাতি,রাজশাহী ফজলি, ইত্যাদি জাতের আম বাগান বেশি রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here