রাজগঞ্জে কয়েকটি এনজিও কিস্তি আদায় করছে লকডাউনে

0
76

উত্তম চক্রবর্তী,মনিরামপুর যশোর অফিস : যশোরের মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের কয়েকটি এনজিওর কর্মীরা লকডাউনের মধ্যে কিস্তি আদায় করতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে গ্রামে গ্রামে। এসব এনজিও কর্মীদের অত্যাচারে নাজেহাল হয়ে পড়েছে নিম্ন আয়ের ঋন গ্রহীতারা। ঋনের কিস্তি দিতে হিম শিম খাচ্ছে তারা। গ্রাম গঞ্জের ছোট খাট অধিকাংশ ব্যবসায়িরা ঋণ নিয়ে ব্যবসার কার্যক্রম চালান। এছাড়া অনেকে এনজিও থেকে ঋন নিয়ে ইজিবাইক, থ্রি-হুইলার, ভ্যান, আলমসাধূ সহ বিভিন্ন যানবাহন কিনে ভাড়া চালিয়ে তা থেকে আয় করে জীবিকা নির্বাহ করেন ও ঋণের কিস্তি চালান। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর থেকে ধীরে ধীরে মৃত্যু ও আক্রান্তের হার বাড়তে থাকায় সরকার দেশ জুড়ে কঠোর লকডাউন ঘোষনা করেছে। ফলে সরকারি বেসরকারি অফিস-আদালত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে আয় রোজগার বন্ধ হয়ে যায় অনেক মানুষের। এমন পরিস্থিতিতে এনজিওর ঋণের কিস্তি দিতে হিম শিম খাচ্ছেন নিম্ন আয়ের ঋণ গ্রীতারা। এনজিওরা বিবাহিত নারীদের সমিতির মাধ্যেমে ঋন দিয়ে থাকে। এমন সময়ে এ সকল ভুক্তভোগি খেটে খাওয়া ঋণ গ্রহীতা যখন তাদের সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে, তখন এনজিও কর্মীরা বাড়ি বাড়ি কিস্তি আদায়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করছেন। রাজগঞ্জে ঋণ কার্যক্রম চালানো এনজিওগুলো বর্তমানে সর্বোচ্চ মাত্রায় ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা ও নিয়মিত কিস্তি আদায় করছে। এ ছাড়া সমাজসেবা ও সমবায় অধিদফতর থেকে নিবন্ধন নিয়ে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা শতাধিক ছোট-বড় এনজিও বেআইনিভাবে করোনাকালেও লকডাউন উপেক্ষা করে চড়া সুদে ঋণের কিস্তি আদায়ের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকটি গ্রামের অধিকাংশ ভুক্তভোগিরা অভিযোগ করেছেন। তারা বলেন, এসময় আমাদের খাবার যোগাড় করা কঠিন। তারপর এনজিও কর্মীরা মামলা হামলার ভয় দেখিয়ে কিস্তি আদায় করছে। নাম প্রকাশ না করার সত্বে একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানের ঋণ আদায়কারী কর্মচারী জানান, আমরাও চাকরি করি। প্রতিষ্ঠান থেকে আমাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে টাকা আদায়ে। ঠিকমত কিস্তির টাকা আদায় করে অফিসে জমা দিতে না পারলে আমারও বেতন বন্ধ এমনি চাকরি হারানোর ভয় রয়েছে। ভুক্তভোগী মোবারকপুর গ্রামের ইসানুর রহমান জানান, রবিবার রাজগঞ্জের একটি এনজিওর আদায়কারী আমাদের গ্রাম থেকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে কিস্তি আদায় করে নিয়ে এসেছে। একপর্যায়ে টাকা নিয়ে তারপরে যায়। কথা হয় ভুক্তভোগী একই গ্রামের নজরুল ইসলামের সাথে তিনিও একই কথা বলেন। এ বিষয়ে কথা হয় রাজগঞ্জের ঝাঁপা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টুর সাথে তিনি বলেন, এনজিও কর্মীদের এখন করোনাকালীন কোন কিস্তি আদায় করা যাবে না। আমার কাছে ডিসি অফিস থেকে চিঠি এসেছে। এই নির্দেশনায় রাজগঞ্জের প্রতিটি এনজিও অফিসে চিঠি দেয়া হয়েছে।