রাজগঞ্জে তৃতীয় স্ত্রীর গাছি দায়ের কোপে চতুর্থ স্ত্রী মারাত্বক জখম

0
212

রাজগঞ্জ প্রতিনিধি :  রাজগঞ্জে এক লম্পট স্বামীর জোগসাজসে তৃতীয় স্ত্রী গাছি দা দিয়ে কুপিয়ে চতুর্থ স্ত্রীকে মারাত্বক জখম করেছে। স্থানীয়রা মরনাপন্ন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

গ্রাম বাসী সুত্রে জানা যায়, মণিরামপুর উপজেলার জোকা কোমলপুর গ্রামের মৃত মসলেম মড়লের লম্পট ছেলে কামাল হোসেন ২০ বছর পূর্বে প্রথমে একই গ্রামের সনেয়ার রহমানের মেয়ে কয়েক সন্তানের জননীকে প্রেমের ছলনায় ফেলে বিয়ে করে ১ কন্যা সন্তান জম্মের পর তাকে তালাক দেয়। পরে দ্বিতীয় বিয়ে করে মল্লিকপুর গ্রামের তহমিনাকে। সেখানে ১ ছেলে ও ১ কন্যা সন্তানের জম্ম দেওয়ার পর তাকে তালাক প্রদান করেন। কিছু দিনের মধ্যে একই গ্রামের বাবর আলীর বিবাহিতা মেয়ে কয়েক সন্তানের জননী রেহেনাকে তার স্বামীর বাড়ি থেকে সটকে এনে তৃতীয় নম্বর বিয়ের পিড়িতে পা দেন । এই স্ত্রী নিয়ে বর্তমান কামাল ঘর সংসার করছে। এখানে ১ কন্যা সন্তানের জম্ম হয়। কিন্তু গত ৫/৬ মাস পূর্বে লম্পট কামাল সাতক্ষীরা জেলার কয়েক সন্তানের জননী রাজিয়ার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। কিছু দিনের মধ্যে তাকে ৪র্থ নম্বর স্ত্রী হিসাবে গ্রহন করে বাড়িতে নিয়ে আসে।

এখন এক গৃহে তৃতীয় ও চতুর্থ নম্বর স্ত্রী। শুরু হয় দুই স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ মারামারি কাটাকাটি ও হানাহানি। চতুর্থ স্ত্রী রাজিয়া সহ্য করতে না পেরে পিতার বাড়িতে চলে যায়। সেখানে থেকে রাজিয়া তার স্বামী কামালের সাথে সব সময় মোবাইল ফোনে জোগাযোগ রাখেন। মাঝে মধ্যে অতি গোপনে চতুর্থ স্ত্রী রাজিয়া স্বামীর বাড়িতে আসেন। এরই মাঝে তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা ৪র্থ স্ত্রী রাজিয়াকে মোবাইল ফোনে বিভিন্ন প্রকার হুমকি ধামকি দেন। এক পর্যায় গত সোমবার দুপরে ৪র্থ স্ত্রী রাজিয়া তার স্বামীর কাছে ফোন করেন। ঐ ফোন তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা রিসিভ করে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে। এক পর্যায় ফোনে উভয়ের মধ্যে দীর্ঘ সময় বাকবিতন্ড হয়।

এদিকে মঙ্গলবার সন্ধার দিকে লম্পট কামাল তার ৪র্থ স্ত্রী রাজিয়াকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে আসে। কিন্তু তাকে বাড়িতে না নিয়ে এদিক ওদিক ঘোরা ফেরার পর রাত ১০ টার দিকে মাঠে তার স্যালোম্যাসিন ঘরে রেখে চলে আসে। রাত ১১ টার পর লম্পট কামালের তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা বাড়ি থেকে গাছি দা নিয়ে ঐ স্যালোম্যাসিনে যেয়ে সতীন ৪র্থ স্ত্রী রেহেনাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে ফেলে রেখে আসে। মরনাপন্ন রেহেনার গোংরানীতে পাশের বাড়ির মালিক শামছুর রহমান এগিয়ে যেয়ে চিৎকার দেয়। পাশের লোকজন এসে মরনাপন্ন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে কোমলপুর বাজারে পৌছালে ঝাঁপা পুলিশ ফাড়ির পুলিশ এসে হাজির হয়। পুলিশ ও জনগন মারাত্বক জখম দেখে দ্রুত চিকিৎসার জন্য মণিরামপুর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। হাসপাতাল কতৃপক্ষ রিপার্ট করে তাৎক্ষনিক যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।

ঐ রাতেই ফাড়ির ইনচার্জ এস আই সনজিত কুমার ভিকটিম কামালের ৩য় নম্বর স্ত্রী রেহেনাকে আটক করেন। কিন্তু ঐ রাতেই আবার তাকে ছেড়ে দেন বলে স্থানীয়রা জানান। বুধবার সকালে কামালের বাড়ি যেয়ে ৩য় স্ত্রী রেহেনার কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে প্রকাশ্যে বলে আমি কুপিয়েছি আমার যা করতে পারেন করবেন। কামালের ব্যবহিত ফোনে চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে বুধবার দুপরে সে বাড়িতে ছিল বিকালে চলে গেছে বলে তার মা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় মেম্বর ইউসুপ আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিনিধিকে জানান, ঘটনার পর পরই আমার কাছে ফোন আসে। আমি পুলিশকে সংবাদ দিয়ে ঘটনা স্থলে যাওয়ার সময় দেখি ভ্যানে করে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় কামালের স্ত্রীকে নিয়ে যাচ্ছে। এ সময় পুলিশ হাজির হলে কামাল পালিয়ে যায়। তিনি আরো জানান, গাছি দা দিয়ে কুপানোর অপরাদে কামালের তৃতীয় স্ত্রীকে বাড়ি থেকে ধরে কোমলপুর বাজারে নিয়ে আসে এবং ঐ রাতেই তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ ।

এস আই সনজিত বলেন, আমি কুপানোর অপরাদে কামালের ৩য় নম্বর স্ত্রী রেহেনাকে ধরে ছিলাম এবং সে নিজেও স্বীকার করেছিল। কিন্তু মহিলাটা দর্জাল প্রকৃতির হওয়ায় আমি তাকে রাখতে পারেনি। কারন গভীর রাতের বিষয় তাই। এদিকে ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠেছে যে, কামাল কেন তার স্ত্রীকে মাঠে ম্যাসিন ঘরে রেখে এসেছে। নিশ্চয় তৃতীয় স্ত্রীর সাথে কামালের জোগসাজস ছিল। তাই কামাল এই সুযোগ করে দিয়েছে। তাই গভীর রাতে তৃতীয় স্ত্রী সবার অজান্তে হত্যার উদ্দেশ্যে স্যালো ঘরে যেয়ে গাছি দা দিয়ে কুপিয়েছে। এদিকে মরানাপন্ন রেহেনার পরিবারে তেমন কেউ  নেই যে বিষয়টি নিয়ে দৌড়ঝাপ করবে। ফলে বিষয়টি নজর রাখতে এলাকাবাসী ও সচেতন মহল প্রশাসনের উদ্ধোতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কামালের ৪র্থ স্ত্রী রেহেনা হাসপাতাল বেডে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here