রাজগঞ্জে ধানে ছত্রাকজনিত ব্লাষ্ট রোগের আক্রমনে দুঃচিন্তায় কৃষকরা

0
277
Exif_JPEG_420

উত্তম চক্রবর্ত্তী : যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জে ছত্রাকজনিত ব্লাষ্ট রোগের আক্রমনে বিভিন্ন এলাকায় অপরিপক্ক ধানের শীষ শুকিয়ে যাচ্ছে। এতে কৃষকের ধার-দেনা করে লাগানো ধানের ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় কৃষকের স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার। এর ফলে চলতি বোরো মৌসুমে ধানের উৎপাদন লক্ষমাত্রা ব্যাপকভাবে হ্রাস পাওায়ারও আশংকা করেছেন সংশ্লিষ্টরা। কৃষি অফিস বলছে এসময় ঠান্ডার কারণে এমনটি হয়েছে। এদিকে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কৃষি অফিসের আগাম পরামর্শ পাননি তারা। জানা যায়, চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার ২৯ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। এতে ধান উৎপাদনের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু ছত্রাকজনিত ব্লাষ্ট রোগের আক্রমনে ধানের যে পরিমান ক্ষতি হয়েছে তাতে উৎপাদন লক্ষমাত্রা ব্যাপকভাবে হ্রাস পাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। হানুয়ার গ্রামের কৃষক শফিক,মনির ও রিজাউল বলেন, এই রোগ আমাদের মাঠ ছাড়াও অন্য অন্য মাঠে দেখা যাচ্ছে। সরেজমিনে গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলার ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার, খালিযা, কোমলপুর গ্রামের মাঠে গেলে দেখা যায় ধানের শীষ শুকিয়ে যাচ্ছে। এসময় খবর পেয়ে ছুটে আসেন উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পলাশ সরকার ও ভগিরাত চন্দ্র ঐ এলাকার একাধিক ক্ষতিগ্রস্থ কৃষককে নিয়ে সেখানে হাজির হন এবং তাদেরকে এই ব্লাষ্টার রোগের হাত থেকে কি ভাবে রক্ষা পাওয়া যায় তার সুপরামর্শ দেন এবং উপজেলা কৃষি অফিস কৃককের হাত ব্লাষ্টার রোগের করনীয় লিপলেট বিতরণ করেন ও ইমামদের কে মসজিদে মসজিদে বলার জন্য আহবান জানান । কর্মকর্তারা আরও বলেন, আমরা ব্লাষ্ট রোগের ব্যাপারে কৃষকদের বিভিন্ন মাঠ দিবসে সচেতন করছি। এ রোগের আগাম চিকিৎসা হিসেবে ছত্রাকনাশক নাটিভো,ফিলিয়া, ট্রোপার, অক্সিজেন প্রভিফেন স্প্রে করার পরামর্শ দেন। আর যে সব জমির ধানে এখনো থোড় আসেনি সেসব জমিতে বিঘা প্রতি ৫ কেজি পটাশ সার দেয়ার কথা বলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here