রাজগঞ্জে পানির অভাবে চলতি আমন ক্ষেত ফেটে চৌচির

0
73

ভাদ্র মাসেও কাংখিত বৃষ্টির দেখা নেই

উত্তম চক্রবর্তী : যশোরের পশ্চিম মণিরামপুর তথা রাজগঞ্জে আকাশে সামান্য মেঘের ঘনঘটা দেখা গেলেও ভাদ্র মাসেও কাংখিত বৃষ্টির দেখা নেই। পানির অভাবে চলতি আমন চাষকৃত জমি ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। এমন দৃশ্য সোমবার রাজগঞ্জের মাঠে মাঠে সরেজমিনে লক্ষ্য করা গেছে। ভাদ্র মাসে প্রয়োজনমত বৃষ্টি না হওয়ায় এ অঞ্চলের আমন চাষিরা তাদের ফসল নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। এবছর প্রয়োজনমত বৃষ্টি না হওয়ায় রাজগঞ্জের খাল-বিল শুকিয়ে গেছে। যে কারণে চাষিরা এবার বিলের তলানী পর্যন্ত আমন ধানের চারা রোপন করতে সক্ষম হয়েছে। উপরের জমিগুলোতে সেচের পানি দিয়ে রোপনের কাজ শেষ করেছেন চাষিরা। এখন প্রতিদিনের আকাশে মেঘের ভেলা উড়লেও চাহিদামত বৃষ্টি হচ্ছে না। এজন্য আমন ফসল নিয়ে চাষিদের মাঝে সংশয় দেখা দিয়েছে। জানাগেছে, এবছর রাজগঞ্জের ঝাঁপা, চালুয়াহাটী, মশ্বিমনগর, হরিহরনগর, খেদাপাড়া ও রোহিতা ইউনিয়নে প্রায় সাড়ে ৮হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষ করা হয়েছে। সরেজমিনে দেখাগেছে, অনেক চাষি তাদের আমন ক্ষেতে সেচের মাধ্যমে পানি নিচ্ছেন। রাজগঞ্জের ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার গ্রামের সিদ্দিক হোসেন বলেন, কষ্ট করে সেচের পানিতে আমন রোপনের কাজ শেষ করেছি। রোপনের কাজ শেষ হয়েছে প্রায় দেড়/দুই মাস অতিবাহিত হলেও এখনো পর্যন্ত চাহিদামত বৃষ্টির দেখা নেই। যে কারণে চাষকৃত জমি ফেটে চৌচির হয়ে আছে। এতে ওই জমিতে ঘাস জন্মাচ্ছে বেশি। এর ফলে আমন চাষে দ্বিগুন খরচ হবে এবছর। সময়মত ধান ঘরে তুলা নিয়েও শঙ্কিত চাষি। মশ্বিমনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বলেন, মশ্বিমনগর ইউনিয়নের কাঁঠালতলার ময়নার বিলে বিগত বছর গুলোতে আমন ধানের জমিতে হাটু পানি জমে থাকতে দেখা গেছে। সেই জমি এবার পানির অভাবে ধান গাছ মারা যাচ্ছে, জমি ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। সার্বিক দিক দিয়ে অত্যান্ত সংকটময় সময় যাচ্ছে রাজগঞ্জ অঞ্চলের আমন চাষিদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here