রাজগঞ্জে সেই খুনি মহিলার গলাবাজি কমেনি, প্রশাসনের কি কোন দায়িত্ব নেই

0
284

স্টাফ রিপোটার :  রাজগঞ্জের সেই কামালের ৪র্থ স্ত্রী রেহেনা অসহায় তাই তার পাশে কেউ এসে দাড়াইনি। এমনকি তার পিতা মাতাসহ তার পরিবারের কেহই হাসপাতালে আসেনি।  যার কারনে কামালের তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা গাছি দা দিয়ে চতুর্থ স্ত্রী রাজিয়াকে কুপিয়ে মারাত্বক জখম করেও গলা গলাবাজি করে যাচ্ছে। আমি কুপিয়েছি আমার যা হয় তাই হবে। এদিকে একজন খুনি হয়েও সে বহাল তবিয়াতে বাড়িতে বসে এমন গলাবাজি করায় গ্রামের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

কারন আজ তার সতীনকে কুপিয়েছে, কাল অন্য কাউকে এমন ভাবে কোপাতে পারে। ঘটনাটি প্রায় দুই দিন অতিবাহিত হলেও এ বিষয়ে প্রশাসন কেন কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না তা নিয়ে জনমনে নানান প্রশ্ন দেখা দিযেছে।

গ্রাম বাসী সুত্রে জানা যায়, মণিরামপুর উপজেলার জোকা কোমলপুর গ্রামের মৃত মসলেম মড়লের লম্পট ছেলে কামাল হোসেন ৫/৬ মাস পূর্বে সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলা  দলুয়া গ্রামের ইমান আলী কন্যা রাজিয়াকে বিয়ে করে বাড়িতে আনলে পথের কাটা হয়ে দাড়াই তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা। এক পর্যায় তৃতীয় স্ত্রীর তোপের মুখে চতুর্থ স্ত্রী চলে যায়। মাঝে মধ্যে সে তার স্বামীর কাছে আসে।

গত মঙ্গলবার স্বামী কামালের কাছে আসলে কামাল ৪র্থ স্ত্রীকে রেহেনাকে তার মাঠের স্যালো ঘরে রাখে। রাত ১১ টার দিকে তার তৃতীয় স্ত্রী রেহেনা হত্যার উদ্দেশ্যে গাছি দা দিয়ে স্যালো ঘরে যেয়ে সতীন ৪র্থ স্ত্রী রেহেনাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে। বর্তমান পর্যন্ত সে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে।

এ বিষয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধায় কামালের সাথে কথা হলে তিনি প্রতিনিধিকে জানান, ঘটনার জন্য আমি দু:খিত। আমার বাড়ির স্ত্রীর কথা আর কি বলবো।

তাকে দেখে সবাই ভয় পায়। তাই আপনারা পত্রিকায় লিখে আমার ক্ষতি করবেন না। তিনি আরো বলেন, আমি ৪ র্থ স্ত্রীর পিতার বাড়িতে সংবাদ দিয়েছি। তারা কেউ হাসপাতালে আসবে না।

বিষয়টি নিয়ে গ্রামের অনেকেরই সাথে কথা হলে তারা বলেন, কামালের ৪র্থ স্ত্রীর পিতা মাতা রাগের বসিভুত হয়তো হাসপাতালে কেউ আসেনি। যার কারনে রেহেনা আজ সে অসহায় হয়ে পড়েছে। তাই এই অসহায় মহিলার পাশে কি কেউ দাড়ানোর মত নেই। থানার ওসিকে বিষয়টি দেখার জন্য জোর অনুরোধ করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here