রাজগঞ্জে স্কুল ছাত্রী ঘর্ষণের ঘটনা তদন্তে পিবিআই

0
249

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জে ৯ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণের ঘটনায় আদালতে পর্নোগ্রাফি আইনে দায়ের করা মামলার তদন্তে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর যশোর জেলা ইনচার্জ আব্দুল মতিন। মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে ঘটনা তদন্তে তিনি রাজগঞ্জে আসেন। এসময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পুলিশের পরিদর্শক একেএম ফারুক হোসেন ও মানবাধিকার সংগঠনের জেলা সাধারন সম্পাদক মামুনূর রশীদ লাল্টু উপস্থিত ছিলেন। মামুনূর রশীদ লাল্টু জানান, গত ২৯ জানুয়ারি বিকেলে ওই ছাত্রীকে মোটরসাইকেলযোগে তুলে নিয়ে উপজেলার মশ্মিমনগর ইউনিয়নের নলতা হাকিমপুর গ্রামের কথিত কবিরাজ সাখাওয়াতের বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে পুলিশপুত্র রুমান নামে এক যুবক। যার ভিডিওচিত্র মোবাইলে ধারণ করে রুমানের দুই সহযোগী রয়েল ও রুবেল। এরা সবাই রাজগঞ্জ এলাকার। সেই ঘটনায় গত ১০ ফেব্রুয়ারী পর্নোগ্রাফি আইনে আদালতে মামলা করে মেয়েটি। যার মামলা নং-৮৩/১৭। আদালত মামলাটির তদন্ত ভার পিবিআইকে দেন। সেই অনুযায়ী পিবিআই এর যশোর জেলা ইনচার্জ আব্দুল মতিন ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পুলিশের পরিদর্শক একেএম ফারুক হোসেন ঘটনা তদন্তে রাজগঞ্জে আসেন। লালটু জানান যেখান থেকে মেয়েটিকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল এবং যেখানে ফেলে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে তার সব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পিবিআই। এসময় মেয়েটি ও তার মা উপস্থিত ছিলেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা একেএম ফারুক হোসেন বলেন,তদন্তের সাথে সংশ্লিষ্ট সব জায়গায় গিয়ে মেয়ে,মেয়ের মা,কবিরাজ সাখাওয়াত ও ঘটনাটি জানেন এমন অনেকের সাথে এবিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তারা সকলে ঘটনা সত্য বলে জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত,রাজগঞ্জের এই ছাত্রী ধর্ষণের মূল হোতা রুমান হাতেনাতে ধরা পড়লেও পুলিশের পুত্র হওয়ায় রাজগঞ্জ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই আইনুদ্দিন তাকে কৌঁশলে পালিয়ে যেতে সাহায্য করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here