রাজনৈতিক দলের মধ্যস্ততার দায় নেবে না ইসি : সিইসি

0
257

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজনৈতিক দলের মধ্যে মধ্যস্ততা করা নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাজ নয় বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা।

তিনি বলেছেন, ‘আমোদের কারো কাছে যাওয়ার দরকার নেই। ইসি একটি স্বাধীন সত্তা। আমরা শপথ নিয়েছি- কারো চাপে নতি স্বীকার করবো না। কারো কাছে আত্মসমর্পণ করবো। কারো কাছে যাবো না।’

বৃহস্পতিবার ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপে অংশগ্রহণকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে নির্বাচন কমিশন ভবনে সকাল ১০টায় সিইসির সভাপতিত্বে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। সংলাপে টিভি, রেডিওর ২৬ জনের মত প্রতিনিধি অংশ নেন। এতে অনলাইন মিডিয়ার দুজন প্রতিনিধি আমন্ত্রন জানানো হলেও তারা অংশ নেননি।

সংলাপের প্রশ্নোত্তর পর্বে সেনাবাহিনীর মোতায়েনের বিষয়ে সিইসি বলেন, আর্মি থাকবে কী থাকবে না এটা ইসির সিদ্ধান্ত। যদি পরিস্থিতির বিবেচনায় মনে করি- দরকার আছে তবে থাকবে।

বর্তমান পরিস্থিতি নির্বাচনের অনুকূল রয়েছে দাবি করে নূরুল হুদা বলেন, বর্তমানে আমরা অনূকুল ও আস্থাশীল অবস্থানে রয়েছি। কেউ আমাদেরকে ডিস্টার্ব করেনি। কমিশনে কেউ তার দাবি দাওয়া নিয়ে আসেনি। আমরা এখনো পর্যন্ত আস্থাশীল আছি এবং থাকবো।

তিনি বলেন, নির্বাচনের সময় কী ধরনের সরকার থাকবে- সে ব্যাপারে কমিশনের কোন ভূমিকা নেই। ইসি একটি টেকনিক্যাল প্রতিষ্ঠান। সরকার যে নির্বাচন পদ্ধতি সেট করে দেয়-সেভাবেই নির্বাচন আমাদের করতে হয়। এক সময় ছিলো ‘ইয়েস নো’ ভোট। সেই সময়কার কমিশনই ভোটই করেছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় যে পদ্ধতি ছিল তারা সেটা করেছে। কাজেই সব কিছু নির্ভর করে সরকার কোন ধরনের পরিবেশ সেট করে দেয়। এখন যে অবস্থা আছে তা যদি পরিবর্তন তা হয় তাহলে এই সরকারের অধীনে নির্বাচন করতে হলে আমরা তাই করবো। আর যদি সরকার পরিবর্তন করে তাহলে সেই ভাবে হবে। কাজেই নির্বাচনের সময় কোন ধরনের সরকার থাকবে সে ব্যাপারে আমাদের কোন ভুমিকা থাকার কথা নয়। আমরা তা পারিও না।

তিনি আরো বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা সংকল্প ও অঙ্গীকারাবদ্ধ। কারো প্রতি আমাদের দূর্বলতা নেই বা কারো প্রতি কোন শত্রুতা নেই। আরো প্রতি কোন আর্কষণও নেই কারো প্রতি বিকর্ষণও নেই। আমাদের আকর্ষণ-বিক্রষণ যাই বলেন সেটা রয়েছে নির্বাচনী আইনের প্রতি। এজন্যই আমরা আপনাদের বিরক্ত করছি। ব্যস্ততার মধ্যেও আপনাদের আমন্ত্রণ করেছি। আমরা আপনাদের সহেযোগিতা ও সমর্থন চাই।

তিনি বলেন, নির্বাচনের মাঠে অনেক সমস্যা ও জটিলতা রয়েছে। অন্যদেশের তুলনায় এই সমস্যা আমাদের আরো বেশি। গণতানন্ত্রিক প্রক্রিয়া ও কারণ গণতান্ত্রিক লঙ্গিজিবিটি আমাদের কম আছে। কখনো হ্যা না ভোট, কখনো নির্বাচনী সরকারের অধীনে নির্বাচন, এক ব্যক্তির অধীনে নির্বাচন-এই অবস্থা চলেছি। এক একটানা তিনটি নির্বাচন একটি নিয়মে আমরা করতে পারিনি। কাজেই সমস্যা তো আমাদের রয়েছে। সেগুলো সবাই মিলে ধারণ করতে হবে। ক্ষেত্র তৈরি করতে পারব। সে বিশ্বাস আছে।

সিইসি বলেন, আমরাতো তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ওপর নির্ভরশীল একটা নির্বাচন দেখেছি। কিন্তু শেষের দিকের অবস্থা কী ছিল? তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে আবেদন, শেষের দিকে সে গ্রহণযোগ্যতা ছিল? ছিল না। কারণ রাজনৈতিক দল যখন ক্ষমতায় আসে তখন দেখেন যে কোন লোক পাঁচ বছর পর রিটায়ারমেন্টে যাবেন তিনি কেয়ারটেকার গভ প্রধান হবেন। সে রকম হিসাব নিকাশ দেশে হয়নি? বলুন আপনারা হইছে কি না? যদি হয়ে থাকে তাহলে সে ব্যবস্থাতো দাঁড়াতে পারেনি, সে ব্যবস্থা ধরে রাখতে পারেনি।

এর আগে সংলাপে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার প্রধান সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ জাতীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের ঘোর বিরোধীতা করেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের এখনো দেড় বছর বাকি রয়েছে। নির্বাচনে সেনা বাহিনী লাগবে নাকি আনসার বাহিনী লাগবে সেটা আমরা এখনো জানি না। কিন্তু এত আগে সেনা বাহিনীর কথা বলার মধ্যে কোন মতলবি আছে কী না আমাদের ভাবতে হবে। সেনাবাহিনীর গৌরবকে বিতর্ক করার চেষ্টা কী না চিন্তা করতে হবে।

সেনা মোতায়েনের বিষয়ে একাত্তার টিভির মোজাম্মেল বাবু বলেন, নির্বাচনে সেনা মোতায়েন হবে কী না সেই বিষয়ে কমিশনকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কেউ রাজনৈতিক কারণে সেনা মোতায়েনের কথা বললে তা থেকে বিরত থাকতে হবে। সেনাবাহিনীতে নিয়মিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে অন্তর্ভূক্ত করে এ বাহিনীতে জনগণের মুখোমুখি করা যাবে না। তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার বা সহায়ক সরকারের বিরোধীতা করেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের কমিশন হচ্ছে রেফারি আর রাজনৈতিক দল হচ্ছে প্লেয়ার। তারা ক্ষমতায় যেতে চায়। ইসিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা কী জনপ্রিয় হতে চান নাকি আইনী কাঠামোর মধ্যে চলতে চান। জনপ্রিয় হতে চাইলে সরকারি দলকে নির্বাচনে হারিয়ে দিন।

প্রত্যেকটি কেন্দ্র টেলিভিশন ক্যামেরার আওতায় আনার কথা বলে তিনি বলেন, বর্তমানে ৪০টি টেলিভিশন রয়েছে। সকলে সমন্বয় করে আমরা ৪০ হাজার ভোট কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করতে চাই। এই সক্ষমতাও আমাদের রয়েছে।

সেনাবাহিনী মোতায়েনের পক্ষে মত দিয়ে ভয়েস অব আমেরিকার আমির খসরু বলেন, নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কী ভূমিকা পালন করে সেই অভিজ্ঞতা আমাদের রয়েছে। এজন্য জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন জরুরি। নতুন আইন প্রনয়ণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কেবল আইন করলেই হবে না। সেগুলো বাস্তবায়নের সক্ষমতা ইসির রয়েছে কী না সেটা ভাবতে হবে।

তিনি বলেন, কেবল নিরপেক্ষতার কথা বললেই হবে না। ইসিতে তার দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে নিরপেক্ষতার প্রমাণ আগেই দেখাতে হবে। তাদের নিরপেক্ষতা দৃশ্যমান করতে হবে।

চ্যানেল আইয়ের শাইখ সিরাজ বলেন, নির্বাচনের সময় ফলাফল প্রকাশে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর মধ্যে অসুস্থ প্রতিযোগিতা দেখা যায়। এজন্য রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষণার আগে যেন কেউ প্রকাশ না করে সেই ব্যবস্থা করতে হবে।

এনটিভির খায়রুল আনোয়ার মুকুল বলেন, ‘আমরা চাই গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। আর এজন্য ইসিকে তার স্বক্ষমতা ও সাহস দেখাতে হবে। সাংবিধানিক ক্ষমতা প্রয়োগ করতে হবে। তফসিল ঘোষণার আগে দায়িত্ব নেই- এই মানসিকতা ত্যাগ করে এখন থেকে দায়িত্ব পালন করে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হবে।

দীপ্ত টিভির মাহমুদুল করিম চঞ্চল বলেন, নির্বাচনের সময় যে ৪০ হাজার প্রিজাইডিং অফিসার থাকবেন তারা নিরপেক্ষ না হলে শত চেষ্টা করলেও নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে না।

বাংলা ভিশনের মোস্তফা ফিরোজ বলেন, বর্তমান বিধান অনুসারে নির্বাচন দলীয় সরকারের অধীনে হবে। কাজেই দলীয় সরকারের অধীনে এই নির্বাচনের রাজনৈতিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সিরিজ বৈঠক করতে হবে। নির্বাচনের পরিবেশ ঠিক থাকলে সেনাবাহিনী তো দূরের কথা আনসার বাহিনীও প্রয়োজন পড়বে না।

ডিবিসির মঞ্জুরুল ইসলাম তার বক্তব্যে প্রবাসীদের ভোটার করা ও তাদের ভোটদানের সুযোগ নিশ্চিত, নির্বাচনী ব্যয় বাস্তবসন্মত করা, নির্বাচনী পর্যবেক্ষক ও পোলিং এজেন্টদের অতীত ইসিহাস যাচাই করা, পরাজিত দলের নিরাপত্তা ও মর্যাদা নিশ্চিত করা, নিবন্ধিত দলের আয়-ব্যয়ের পাশাপাশি অন্যান্য কর্মকাণ্ডের বাৎসরিক প্রতিবেদন জমা দেয়ার বিধান চালুর কথা বলেন।

ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের খালেদ মুহীউদ্দিন বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাজ লেভেল প্লেইং ফিল্ড তৈরি নয়, তাদের কাজ জনগণের আস্থা অর্জন করা। তাদের সেটা করতে হবে। নির্বাচনে সেনাবাহিনী প্রয়োজন পড়বে কী না তারা নিজেরাই সেই বিষয়টি ঠিক করবেন। নির্বাচনের দেড় বছর আগে এসে নতুন কিছু যোগ-বিয়োগ করার কোন দরকার নেই। এটা করতে গেলে আরো অনাস্থা তৈরি হবে।

আরটিভির সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, নির্বাচনের সময় ভোট কেন্দ্রের ভেতরে ও বাইরে টিভি ক্যামেরা বসানোর সুযোগ দেয়া হলে কারচুপি ৯৯ শতাংশ কমে যাবে।

যমুনা টেলিভিশনের ফাহিদ আহমেদ তার প্রস্তাবে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত ইসির ওপর ছেড়ে দেয়ার কথা বলেন। তিনি কিছু আসন পূর্ণবিন্যাস ও ‘না‘ ভোট চালুর বিধান যুক্ত করার পরামর্শ দেন।

মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের রেজোয়ানুল হক রাজা বলেন, নির্বাচনের সময় ভোট কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তাদের হাতে থাকতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here