রাজনৈতিক মাঠ সবার জন্য উন্মুক্ত, যশোরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান

0
139

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি বলেছেন, রাজনৈতিক মাঠ সব দলের জন্য উন্মুক্ত। রাজনৈতিক মাঠ সবার জন্য উন্মুক্ত বলেই সব দল সভা সমাবেশ করতে পারছে। আওয়ামী লীগ ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে কিংবা পেশিশক্তি বন্দুকের নলের মাধ্যমে ক্ষমতায় যাওয়াতে বিশ্বাস করে না। আওয়ামী লীগ সবসময়ই জনগণের শক্তির ওপর বিশ্বাস করে। জনগণও উন্মুখ হয়ে আছে আবারও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় বসাতে। কারণ জনগণ অন্ধকারে আর ফিরে যেতে চায় না। তারা চায় আলোর পথে থাকতে। তারা চায় স্মার্ট বাংলাদেশ দেখতে। আজ শনিবার (৪ মার্চ) দুপুরে যশোর পুলিশ সুপারের নবনির্মিত কার্যালয়ের ভবন উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

শহরের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার এলাকায় ৪ তলাবিশিষ্ট আধুনিক পুলিশ সুপারের কার্যালয় ভবন নির্মাণ করা হয়েছে ৮ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু রাজারবাগ পুলিশ লাইনে গিয়ে পুলিশকে জনগণের পুলিশ হতে বলেছিলেন। বলেছিলেন উপনেশিক মানসিকতা ত্যাগ করে স্বাধীন দেশে জনগণের কাছে থেকে তাদের জন্য কাজ করার। তারই কন্যা জননেত্রীর হাত ধরে দেশ আজ উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা সুন্দরবনের জলদস্যু, সন্ত্রাসী, চোরাচালানী, জঙ্গি ও চরমপন্থী দমন করেছি। প্রধানমন্ত্রী জিরো টলারেন্সের কথা বলেছিলেন। বলেছিলেন সাসটেইএবল পিসের কথা। এজন্য এসডিজিরি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য পুলিশকে স্মার্ট পুলিশে পরিণত করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকার যেভাবে সন্ত্রাসী কার্যক্রমকে দমন বা নিয়ন্ত্রণ করছে তা আজ বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও কমিউনিটি পুলিশের সদস্যদের সমন্বয়ে আমরা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সফলভাবে দমন করেছি। পুলিশকে জনগণের বাহিনীতে পরিণত করেছে সরকার। দেশের থানাগুলোকে পর্যায়ক্রমে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। পুলিশের দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রযুক্তিগত বিভিন্ন সুবিধা সংযুক্ত করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেনজীর আহমেদ এমপি, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আমিনুল ইসলাম খান, খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি মঈনুল হক। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য নাসির উদ্দিন, কাজী নাবিল আহমেদ ও শাহীন চাকলাদার, জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরি, ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. নূরুল আনোয়ার, জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন।