রাজশাহীতে দ্বিতীয় দিনের মতো অপারেশন ‘সান ডেভিল’ শুরু

0
295

গোদাগাড়ী (রাজশাহী) প্রতিনিধি : গোদাগাড়ীর বেনীপুরে জঙ্গি আস্তানায় ‘অপারেশন সান ডেভিল’ শুক্রবার সকাল ছয়টায় ফের শুরু হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পৌনে আটটার দিকে অভিযান স্থগিত করা হয়।

অতিরিক্ত ডিআইজি মাসুদুর রহমান ভুঁইয়া জানান, আজ সকাল ছয়টার দিকে এ অভিযান ফের শুরু হয়েছে। ঢাকা থেকে আসা বোমা নিস্ক্রিয়কারী দল এসে ঘটনাস্থলের বোমাগুলো উদ্ধারের চেষ্টা করছে।

এর আগে বুধবার রাত থেকে গোদাগাড়ীর বেনিপুরের জঙ্গি আস্তানাটি ঘিরে রাখে পুলিশ। এরপর সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে হঠাৎ করে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের ওপর হামলা করে জঙ্গিরা। এসময় ফায়ার সার্ভিস কর্মী আব্দুল মতিনকে বোমা মেরে ও কুপিয়ে হত্যা করে তারা। পুলিশের পাল্টাগুলিতে ও নিজেদের বোমায় নিহত হন পাঁচ জঙ্গি।

নিহত ওই জঙ্গিরা হলেন, উপেজলার মাছমারা গ্রামের মৃত আব্দুল মতিনের ছেলে ও ওই বাড়ির মালিক সাজ্জাদ আলি ওরফে মিস্টু (৫০), তার স্ত্রী বেলি খাতুন (৪৮) ছেলে আল আমিন (২৬) ও সোয়াইব (২৪), কারিমা খাতুন (১৭)।

এছাড়াও জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে দুই শিশু সন্তান জোবায়ের হোসেন (৭) ও দেড় মাসের শিশু কন্যা সুরাইয়া আক্তার আফিয়া এবং তাদের মা সুমইয়া খাতুনকে (২৮)। সুমাইয়া জঙ্গি সাজ্জাদের বড় মেয়ে। সুমাইয়ার স্বামী জোহুরুল ইসলাম (৩০) গত প্রায় ছয় মাস আগে জেএমবি সংশি­ষ্টতা অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। বর্তমানে তিনি কাশিমপুর কারাগারে আছেন।

স্থানীয়রা জানায়, জঙ্গি সাজ্জাদ আলীর বাড়ি উপজেলার মাছমারা গ্রামে। তিনি আগে জামায়াত ইসলামির সক্রিয় কর্মী ছিলেন। ঘটনাস্থল থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দক্ষিণে। সেখান থেকে গত কয়েকদিন আগে বিনপুরে বিলের মধ্যে ধান ক্ষেতের মধ্যে গিয়ে বাড়ি করেন। স্ত্রীসহ দুই ছেলে, দুই মেয়ে এবং বড় মেয়ে সুমাইয়ার দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে জঙ্গি আস্তানা গড়ে তুলেন সাজ্জাদ। বাড়ির পেছনের অংশটি মাটির। উপরে ও তিন পাশে টিন দিয়ে ঘেরা ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here