রাজস্ব বাড়াতে ফেনসিডিল আমদানির অনুমতি চাইলেন আওয়ামী লীগ নেতা!

0
32

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটে পুলিশের ওপেন হাউজ ডে বক্তব্য দিতে গিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রীর কাছে রাজস্ব আয় বাড়াতে ফেনসিডিল আমদানি করার অনুমতি চেয়েছেন। এসময় তিনি ফেনসিডিলের কারণে প্রতিদিন হাজার হাজার কোটি টাকা ভারতে পাচার হওয়ার অভিযোগ তুলেছেন।

সোমবার বিকালে আদিতমারী থানা আয়োজিত ওপেন হাউসডে অনুষ্ঠানে এসপি আবিদা সুলতানার উপস্থিতিতে এ বক্তব্য দেন তিনি।

আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সারপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলাম প্রধান এসময় আরও বলেন, আমি নিজেও এক বোতল ফেনসিডিল খেয়েছি। ঘুম ছাড়া কিছুই হয় না। এভাবে বক্তব্যের বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়।
ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, আজিজুল ইসলাম বলেন, সত্য বলবো তাতে জেল ফাঁস যা হয় হোক। ভারতে ফেনসিডিল মাত্র ৩৫ টাকা। এই ফেনসিডিলের কারণে প্রতিদিন হাজার কোটি টাকা ভারতে পাচার হচ্ছে। আমার তিন ছেলে মাস্টার্স পাস করেছে। তাদের নিষেধ করলেও গোপন জিনিসের ওপর আরও আগ্রহী হয়ে খাচ্ছে। ভারতে গিয়ে আমি নিজেও এক বোতল খেয়েছি, ঘুম ছাড়া কিছু হয় না। ভারতে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলেছি, দেশের তুষ্কাসিরাপের মতই ফেনসিডিল। যাতে ঘুম ছাড়া কিছু নেই। অথচ এটার জন্য হাজার কোটি টাকা ভারতে পাচার হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, বিষয়টা বঙ্গবন্ধু কন্যার নজরে আনা যায় কিনা? ভারত থেকে ৩৫ টাকায় ফেনসিডিল কিনে ৭০ টাকা ট্যাক্স নিয়ে ১০০ টাকায় বিক্রি করলেও ব্যবসা হবে রাজস্ব বাড়বে সরকারের। তাই বিষয়টি নিয়ে উচ্চ মহলে আলোচনা করা দরকার।

তার এমন বক্তব্যে অনুষ্ঠানের সবাই অট্টহাসিতে প্রতিবাদ জানান। এসময় কৌশলে তার বক্তব্য থামিয়ে দেন অনুষ্ঠানের সভাপতি আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারু লইসলাম। এমন বক্তব্যে হতভম্ব হয়ে পড়েন প্রধান অতিথি পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা।

আমদানি নিষিদ্ধ এবং যুব সমাজ ধ্বংসকারী ফেনসিডিল আমদানিতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করা আওয়ামী লীগ নেতার এ বক্তব্যের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে নিন্দার ঝড় ওঠে। যে ফেনসিডিল তথা মাদক নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী বার বার প্রশাসনকে কঠোর হতে নির্দেশনা দিচ্ছেন। সেই সরকারের তৃণমূল নেতা ফেনসিডিল আমদানিতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে প্রশাসনের সামনে ফেনসিডিল খাওয়ার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন।

এ ব্যাপারে আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম বলেন এ ধরনের দাবি উদ্ভট। ফেনসিডিল আমদানি করা হলে যুব সমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে। তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সঠিক নয় বলে মনে করি। এতে আওয়ামী লীগ এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান এ ব্যাপারে জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগ নেতা যদি এই ধরনের কথা বলে থাকেন তাহলে তা তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। আওয়ামী লীগ এবং সরকার সব সময় সকল ধরনের মাদক এর বিপক্ষে।