রাজাকারের ভ্রাতুষপুত্রকে ইউনিয়ন আ’লীগের কমিটর সদস্য করায় নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড়

0
73

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের কেশবপুর উপজেলার ১০ নং সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটিতে রাজাকারের ভ্রাতুষপুত্র নারী নির্যাতনসহ বহু অপকর্মের নায়ককে কমিটর সদস্য করায় নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতরা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কণ্যা জন নেত্রী শেখ হাসনা শুদ্ধি অভিযানের মধ্য দিয়ে যখন সংগঠনকে রাজাকার মুক্ত করার প্রচেস্টা অব্যাহত রেখেছে ঠিক সেই সময় রাজাকার পরিবারের সদস্যকে কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করা খুবই দুখ্যজনক। এটি কোনভাবে মেনে নেওয়া যায় না। বিষয়টি প্রাথমিকভাবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির কাছে অভিযোগ করা হয়েছে বলে তারা জানান। রোববার সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে পুর্বের কমিটি বিলুপ্ত করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ঠ আহবায় কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটিতে
ভালুকঘর ৮ নম্বর ওয়ার্ডে মৃত রুহুল আমিন রাজাকারের ভাইপো বহু অপকর্মের হোতা ফারুক হোসেন জাকারিয়াকে সদস্য ভুক্ত করা হয় । যা মোটেও মেনে নিতে পারছেন না স্থানীয় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতারা।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাবেক তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক আব্দুল খালেক সানা অভিযোগ করেন, ‘৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের শত শত নেতা-কর্মী সক্রিয় থাকার পরও কীভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধে বাঙালি নিধন ও কুখ্যাত রাজাকার পরিবারের সন্তান ফারুক হোসেন জাকারিয়া কে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য বানানো হয়?
মুক্তিযুদ্ধের সময় রুহুল রাজাকারের নেতৃত্বে হত্যা, ধর্ষণ ও হিন্দুদের বাড়িঘর লুটপাটসহ বহু অপকর্ম করেছেন । তিনি পিচ কমিটির সক্রিয় সদস্য ছিলেন। তাছাড়া জাকারিয়ার বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারী,স্কুল শিক্ষার্থীকে ইভটিজিং করা, ভোটের ফল পাল্টানো এবং চাকরি দেয়ার নামে বহু লোকের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। যা বিভিন্ন সময়ে জাতীয় ও আঞ্চলিক কাগজে প্রকাশিত হয়েছে। এমন বির্তকিত ব্যক্তিকে কমিটির সদস্য থেকে বাদ দেয়ার দাবি জানান তিনি। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির বিদায়ী সদস্য মুকুল দপ্তরী জানান, জাকারিয়ার মত অসৎ লোক আওয়ামীলীগের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করার সংগঠনের ভামুর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। এলাকার অনেক অপকর্মের সাথে সে জড়িত। তাকে বাদ না দিলে সে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে আরো অপকর্ম করবে। এমন ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়েছেন আরো অনেকে। তারা বলেন,হাইব্রিড এবং বিতর্কিতদের বাদ না দিলে তৃর্ণমূলে সংগঠন আরো ক্ষগ্রিস্থ হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রূহুল আমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তাৎক্ষণিক কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি থাকতে পারে। পরবর্তিতে যাচাইবাছাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।#