রাত পোহালেই যশোর জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন

0
345

নিজস্ব প্রতিবেদক : র্দীঘ ছয় বছরের জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটতে যাচ্ছে আগামীকাল সোমবার। যশোর শহরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে। জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে পুলিশের এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। রোববার বিকেলে পুলিশ লাইনে গোটা যশোরকে নিরাপত্তা বলায় গড়ে তুলতে পুলিশ সুপারসহ পুুলিশ কর্মকর্তারা ব্রিফিংয়ের ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। শনিবার রাত থেকে যশোর ঈদগাহ ময়দানের আশপাশে পুলিশী নিরাপত্তা জোর করা হয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ প্রস্তুতি গ্রহন করেছেন। এদিকে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনকে ঘিরে ব্যাপক উৎসাহী ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে সংগঠনের নেতৃত্বদানকারী ছাত্রদের মধ্যে। শিক্ষা,শান্তি ও প্রগতি ছাত্রলীগের মূল নীতি। এই নীতিকে ধারণ করে আগামীতে জেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে যারা আসবেন তাদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য লক্ষ্য করা গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে ৪শ’ ৫০জন কাউন্সিলর হিসেব ইতিমধ্যে চুড়ান্ত করা হয়েছে। চুড়ান্ত কাউন্সিলরগন সম্মেলনে ভোটাভুটির মাধ্যমে তাদের মনোনীত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের প্রার্থীকে মনোনীত করবেন। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে ১৮জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ২২জন প্রার্থী ইতিমধ্যে তাদের আশা প্রকাশ করে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে প্যানা সম্বলিত সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদটি আকড়ে ধরতে শেষ মূর্হুতে চলছে দৌড়ঝাঁপ। শহরের ঈদগাহ ময়দানে সকাল ১০ টায় আনুষ্ঠানিকভাবে এ সম্মেলন শুরু হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক ও যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সম্মেলন উপলক্ষে নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে।

তবে এবারের সম্মেলনে সিলেকশনের মাধ্যম্যে নেতা নির্বাচিত হবে বলে জিানা গেছে। নাম না বলার শর্তে এক ছাত্রলীগ নেতা বলেন, নাবিল আহমেদ ও শাহীন চাকলাদারের মণোনিত প্রার্থীদেরকে মনোনিত করা হবে। সভাপতি পদে শাহীন চাকলাদার পক্ষের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন এমএম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী, শহর ছাত্রলীগের আহবায়ক মেহেদী হাসান রনি ও সদর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাব্বির রহমান লিমন।

আর সম্পাদক পদে জেলা ছাত্রলীগের সদস্য আরিফুর রহমান সাগর, সদস্য সালসাবিল আহম্মেদ জিসান, কাজল রহমান, এমএম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান ও সিটি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল হালিমের নাম শোনা যাচ্ছে।

অন্যদিকে এমপি নাবিল গ্রুপ থেকে জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি তরিকুল ইসলাম জনি ও সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ সর্দার আলোচনায় রয়েছেন। আর সম্পাদক পদে কমার্স কলেজের কায়েস আহম্মেদ রিমু, এমএম কলেজের সহসভাপতি ইমরান হোসেন, ছাত্রনেতা কাজী রিফাতুজ্জামান ও শহরের বকচরের বাসিন্দা কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র জাকির হোসেন জুম্মান নাবিল গ্রুপের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন। এদিকে, সভাপতি ও সম্পাদক প্রার্থীদের বয়স, ছাত্রত্ব, বিবাহিতসহ যোগ্যতার শর্তে ঘায়েল করতে উঠে পড়ে লেগেছেন তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। তারা প্রতিদ্বন্দ্বিদের বায়োডাটা সংগ্রহ করে কেন্দ্রীয় নেতাদের দেখাবেন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে ২০১০ সালের ১৪ মার্চ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে বোমাবাজি হয়। নেতৃবৃন্দ সম্মেলন স্থগিত করতে বাধ্য হন। এরপর দিন সদর উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক রিপন হোসেনকে হত্যা করে দলীয় প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা। পরবর্তীতে ২০১১ সালের ১০ জুলাই কেন্দ্র ছাত্রলীগ সমঝোতার ভিত্তিতে আরিফুল ইসলাম রিয়াদকে সভাপতি ও আনোয়ার হোসেন বিপুলকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করে যশোর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়।
সম্মেলন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নিয়ামত উল্লাহ বলেন, সম্মেলন সফল করার জন্য সার্বিক প্রস্তুতি চলছে। সৎ, যোগ্য ও গ্রহণযোগ্যরা নেতৃত্বে আসবে সকলেই সেটা প্রত্যাশা করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here