রাত পোহালেই যশোর পৌরসভার নির্বাচন

0
86

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাত পোহালেই যশোর পৌরসভার নির্বাচন । এই প্রথম বারের মতো পৌরসভার সকল কেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভেঅট গ্রহণ করা হবে। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে ভোট গ্রহণ। পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে ৫৫ কেন্দ্রে ভোট গ্রহনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলঅ নির্বাচন অফিস। গতকাল বিকেলের মধ্যে এসব কেন্দ্রে পৌঁছানো হয় ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনসহ (ইভিএম) নির্বাচনী সরঞ্জাম। তবে মেয়র পদে সরকারী দল আওয়ামীলীগের একমাত্র প্রার্থী নির্বাচনের মাঠে থাকায় ভেঅট নিয়ে সাধারণ ভেঅটারদেও মধ্যে আগ্রহের ঘাটতি দেখা গেছে। দলীয়করণ, সন্ত্রাস, নির্বাচনে ভেঅট কারচুপিসহ একাধিক অভিযোগে সম্প্রতি বিএনপি প্রার্থী সাবেক পৌর মেয়র মারুফুল ইসলাম দলের হাই কমান্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক নির্বাচনী লড়াই থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নিলে মেয়র পদে নির্বাচনে গুরুত্বহীন হয়ে পড়ে। অন্য কোন প্রার্থী ওই পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করায় আওয়ামীল মনোনীত দলের সহ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দার গণি খান পলাশ একক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়াই করছেন।
এদিকে গতকাল দুপুর ১২টার পর যশোর পৌর কমিউনিটি সেন্টার থেকে নির্বাচনী সরঞ্জামসহ ইভিএম ম্যাশিণ প্রতিটি নির্বাচনী কেন্দ্রেও প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে হস্তান্তর করেন জেলা নির্বাচন অফিসার। প্রিজাইডিং অফিসারসহ নির্বাচনী কর্মকর্তারা নির্বাচনী সরঞ্জাম ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বুঝে নিয়ে নিজ নিজ কেন্দ্রে অবস্থান গ্রহণ করেন সন্ধ্যার মধ্যেই।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার হুমায়ুন কবীর জানান, আজ বুধবার যশোর পৌরসভার ৫৫টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হবে। এই লক্ষ্যে ৪৭৯টি ইভিএম-সহ অন্যান্য নির্বাচনী সামগ্রী কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া যান্ত্রিক ত্রুটির বিষয়টি বিবেচনায় রেখে প্রতিটি কেন্দ্রের জন্য অতিরিক্ত আরো ৫০ শতাংশ ইভিএম সরবরাহ করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, এ নির্বাচনে এক হাজার ৪৫০ জন নির্বাচনী কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর এক হাজার ২০০ সদস্য কাজ করবেন।
যশোর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের তিন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। তবে বিএনপির প্রার্থী ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৭ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। পৌরসভার এক লাখ ৪৬ হাজার ৫৯২ জন ভোটার প্রথমবারের মতো ইভিএমএ ম্যাশিনে ভোট প্রদানের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করতে পারবেন।
সাধারণ ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে ১নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী লড়াইয়ে আছেন চার কাউন্সিলর প্রার্থী। এদের মধ্যে সাহিদুর রহমান রিপন পাঞ্জাবী মার্কা, জাকির হোসেন রাজিব উটপাখি মার্কা, জাহাঙ্গীর আহম্মাদ শাকিল গাজর মার্কা ও টিপু সুলতান পানির বোতল প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধে লড়ছেন।
২নং ওয়ার্ডে ভোটযুদ্ধে নেমেছেন ৬ কাউন্সিলর প্রার্থী। এদের মধ্যে শেখ রাশেদ আব্বাস রাজ পানির বোতল, শেখ সালাউদ্দিন আহম্মেদ ডালিম, জাহিদুল ইসলাম উটপাখি, তপন কুমার ঘোষ টেবিল ল্যাম্প, অনুব্রত সাহা মিঠুন ব্রীজ এবং ওসমানুজ্জামান চৌধুরী গাজর প্রতীক নিয়ে ভোট যুদ্ধ চালাচ্ছেন।
৩নং ওয়ার্ডে ছয় প্রার্থী লড়াই করছেন। এদের মধ্যে শেখ মোকছিমুল বারী গাজর প্রতীক, দেলোয়ার হোসেন টিটো ব্রীজ, উম্মে মাকসুদা মাসু টেবিল ল্যাম্প, ওমর ফারুক ডালিম, শফিকুল ইসলাম পানির বোতল ও সাব্বির মালিক উটপাখি মার্কা নিয়ে লড়াই করছেন।
৪নং ওয়ার্ডে তিনজন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। এরা হচ্ছেন জাহিদ হোসেন মিলন টেবিল ল্যাম্প, মঈন উদ্দিন মিঠু উটপাখি ও মুস্তাফিজুর রহমান পানির বোতল।
৫নং ওয়ার্ডে ৭ কাউন্সিলর প্র্রার্থী রয়েছেন। এদের মধ্যে হাবিবুর রহমান চাকলাদার টেবিল ল্যাম্প, হাফিজুর রহমান উটপাখি, রাজিবুল আলম ব্লাকবোর্ড, শাহাজাদা নেওয়াজ পাঞ্জাবী, মোকছেদুর রহমান ভুট্টো ব্রীজ, শরীফ আবদুল্লাহ আল মাসউদ ডালিম ও মিজানুর রহমান বাবলু পানির বোতল প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠে লড়াই করছেন।
৬নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৫ কাউন্সিলর প্রার্থী। এদের মধ্যে আলমগীর কবির সুমন পাঞ্জাবী প্রতীক, আজাহার হোসেন স্বপন টেবিল ল্যাম্প, আনিসুজ্জামান ব্রীজ, আশরাফুজ্জামান পানির বোতল ও আশরাফুল হাসান উটপাখি প্রতীক নিয়ে লড়াই করছেন।
৭নং ওয়ার্ডে ৮ কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে গোলাম মোস্তফা উটপাখি, শামসুদ্দিন বাবু পাঞ্জাবী, জুলফিকার আলী পানির বোতল, শাহেদ উর রহমান রনি টেবিল ল্যাম্প, শাহেদ হোসেন নয়ন ব্লাকবোর্ড, আবু শাহজালাল ডালিম, কামাল হোসেন ব্রীজ ও রবিউল ইসলাম রবি গাজর প্রতীক নিয়ে লড়াই করছেন।
৮নং ওয়ার্ডে চার কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে সন্দোষ দত্ত ব্রীজ প্রতীক, মনিরুজ্জামান মাসুম ডালিম, প্রদীপ কুমার নাথ বাবলু উটপাখি ও ওবাইদুল ইসলাম রাকিব টেবিল ল্যাম্প প্রতীক নিয়ে লড়ছেন।
৯নং ওয়ার্ডে আট কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে আজিজুল ইসলাম ব্রীজ, শেখ নাসিম উদ্দীন পলাশ ডালিম, শেখ ফেরদৌস ওয়াহিদ টেবিল ল্যাম্প, শেখ শহীদ পাঞ্জাবী, খন্দকার মারুফ হুসাইন গাজর, আসাদুজ্জামান পানির বোতল, স্বপন কুমার ধর উটপাখি ও আবু বক্কার সিদ্দিক ব্লাকবোর্ড মার্কা নিয়ে লড়ছেন।
সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে ১নং ওয়ার্ডে নয় প্রার্থী লড়াই করছেন। এর মধ্যে আয়েশা ছিদ্দিকা আংটি প্রতীক, আইরিন পারভীন চশমা, সুফিয়া বেগম কলস, রেহেনা পারভীন হারমোনিয়াম, রুমা আক্তার অটোরিকশা, সান-ই-শাকিলা আফরোজ আনারস, অর্চনা অধিকারী দ্বিতল বাস, সেলিনা খাতুন জবা ফুল ও রোকেয়া বেগম টেলিফোন প্রতীক নিয়ে লড়াই করছেন। ২নং ওয়ার্ডে নাসিমা আক্তার জলি আনারস ও নাছিমা সুলতানা চশমা, ৩নং ওয়ার্ডে শেখ রোকেয়া পারভীন ডলি আনারস ও সালমা আক্তার রানী চশমা প্রতীক ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।
জেলা রিটার্নিং কর্মকতা হুমায়ুন কবীর বলেন, সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ইভিএমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।