রাশিয়াকে নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞার হুমকি কমলা হ্যারিসের

0
89

অনলাইন ডেস্ক : বর্তমানে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে বিশ্বের অন্যতম পরাশক্তি রাশিয়া ও প্রতিবেশি ইউক্রেনের মধ্যে। যেকোনও সময় যুদ্ধ বেঁধে যেতে পারে দুই দেশের মধ্যে। রাশিয়া দাবি, ইউক্রেন যেন কখনওই ন্যাটো সামরিক জোটের সদস্য না হয়। অন্যদিকে, ইউক্রেনের বক্তব্য- অস্তিত্ব রক্ষায় ন্যাটোতে যোগ দেওয়া ছাড়া কোনও উপায় নেই সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতা অর্জনকারী দেশটির। এমন পরিস্থিতিতে চরম উত্তেজনায় রয়েছে এই দুই দেশ। যেকোনও সময় যুদ্ধ বেঁধে যেতে পারে।

এই পরিস্থিতিতে এবার রাশিয়াকে নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিলেন কমলা মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। তিনি বলেছেন, ইউক্রেনে হামলা চালালে রাশিয়ার ওপর নজিরবিহীন অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে। জার্মানির মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি মস্কোকে সতর্ক করে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। এক প্রতিবেদনে এখবর জানিয়েছে আল-জাজিরা।

এদিকে, নতুন উপগ্রহচিত্রে দেখা গেল, ইউক্রেন সীমান্ত বরাবর বিমান ঘাঁটিগুলোতে জড়ো করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক রুশ যুদ্ধবিমান। এই ঘটনাকে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রুশ সেনা বাহিনীর ‘যুদ্ধের প্রস্তুতি’ বলেই মনে করা হচ্ছে। পশ্চিম রাশিয়ায় অবস্থিত রুশ বিমানঘাঁটিগুলোর পাশাপাশি ইউক্রেনের থেকে দখল করে নেওয়া ক্রিমিয়া এমনকি, সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রের অংশ বেলারুশেও রুশ বিমানবহরের উপস্থিতি নজরে এসেছে ওই ম্যাক্সারের উপগ্রহচিত্রে।
গত কয়েক দিন ধরে ইউক্রেন সীমান্ত লাগোয়া পাঁচটি বিমানঘাঁটি থেকে তোলা উপগ্রহচিত্রে রুশ বিমান বাহিনীর ওই তৎপরতার চিহ্ন মিলেছে। দেখা গিয়েছে, সুখোই-৩০, মিগ-৩৫ যুদ্ধবিমান এবং সামরিক হেলিকপ্টারের পাশাপাশি নানা সামরিক সরঞ্জামও মজুত করা হচ্ছে সেখানে। মস্কোর পক্ষ থেকে মঙ্গলবার ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধের সম্ভাবনা খারিজ করা হয়েছিল। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আইগর কোনাশেনকভ জানিয়েছিলেন, দক্ষিণ ও পশ্চিম প্রদেশের সেনা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট মহড়া শেষ হওয়ায় তারা ঘাঁটিতে ফিরে যাচ্ছে। কিন্তু বৃহস্পতিবার উপগ্রহচিত্র তুলে ধরে আমেরিকা দাবি করে, ইউক্রেন সীমান্ত থেকে সেনা সরানো তো দূরের কথা, এখনও ক্রমাগত সেনা পাঠিয়ে যাচ্ছে মস্কো। ইউক্রেন সীমান্তের ৫০ কিলোমিটারের মধ্যে অন্তত ১৪টি ঘাঁটি বানিয়েছে রুশ সেনারা। দ্রুত সীমান্তে সেনা পাঠাতে রাতারাতি তৈরি করে ফেলা হয়েছে অস্থায়ী সেতু।

এই পরিস্থিতিতে ক্রিমিয়ার বন্দরে দিন কয়েক আগেই পৌঁছেছে তিনটি রুশ যুদ্ধজাহাজ। ২০১৪ থেকে রাশিয়া ইউক্রেনের এই অংশটি নিজেদের দখলে রেখে দিয়েছে। সেখানে সক্রিয় রুশ-পন্থী বিদ্রোহীদের সঙ্গে ইতিমধ্যেই ইউক্রেন সেনার কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে বলে আমেরিকা-সহ পশ্চিমী সংবাদমাধ্যমগুলোর দাবি। আমেরিকার গোয়েন্দাবাহিনীর একটি রিপোর্টে দাবি, এই মুহূর্তে ইউক্রেন সীমান্তে কম করে ১ লাখ ৫০ হাজার সেনা মজুত করেছে ভ্লাদিমির পুতিন সরকার।