রূপদিয়ায় সহিংসতার ঘটনার বিএনপির ৫৪ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা, আটক ২৮

0
81

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের রূপদিয়ায় সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপির ৫৪ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। শনিবার রাতে মামলাটি করেছেন নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য যশোর সদর উপজেলার বলরামপুর গ্রামের এসএম আকরাম হোসেনের ছেলে ফারুক হোসেন। মামলার পর শনিবার গভীর রাতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিএনপির ২৮ নেতাকর্মীকে আটক করেছে। তাদের মধ্যে এজাহারভুক্ত আসামি রয়েছেন সাতজন ও বাকি ২১জন তদন্তেপ্রাপ্ত আসামি।
মামলার আসামিরা হলেন, জেলা বিএনপির সদস্য গোলাম রেজা দুলু, চাউলিয়ার সোহেল রানা তোতা, বিএনপি নেতা রকিবুল ইসলাম চৌধুরী মুল্লুক চান, জেল যুবদলের সভাপতি এম তমাল আহম্মেদ , যুগ্ম সম্পাদক নাজমুল হোসেন বাবলু, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা আমীর ফয়সাল, হামিদপুরের শফিকুল ইসলাম, শেখহাটির রাজ্জাক, মুড়লির বিহারী রাজু, চাউলিয়াল আব্দুস সালাম বিশ্বাস, রামপুরের শিমুল হোসেন, গোপালপুরের হাসানুর রহমান শাকিল, রেজাউল ইসলাম রেজা, শ্রীপদ্দী গ্রামের আবু সাইদ, বারী নগরের বুলবুল, দক্ষিন ললিতাদাহের হাফিজুর রহমান, লাউখালীর বাবলু, হাটবিলা জামতলার আফজাল হোসেন, রূপদিয়ার লাইস খান, মানিকদিহির শরীফ, ঘোপের রেজাউল ইসলাম মোল্যা, কুয়াদার সিরাজ মোল্লা, মফিজুর রহমান টিটু, রাজারহাটের লিটন হোসেন, মুড়লির মারুফ হোসেন, রাজারহাটের রাজীব হাসান, রামনগরের জহির হাসান, মোজাহার, জাহাঙ্গির, মনোহরপুরের দাউদ ইব্রাহিম, রামনগরের পারভেজ, ইমামুল, শেখহাটির বেনজির বিশ^াস, মধুরাপুরের পারভেজ, কচুয়ার আসলাম, গাইদগাছীল অহেদ মোড়ল, মনোহরপুরের আকরাম হোসেন, গাইদগাছির মশিয়ার রহমান, নরেন্দ্রপুরের ফারুকুজ্জামান রাসেল, হাটবিলার কামাল শেখ, ঘুরুলিয়ার আনোয়ার হোসেন, গাইদগাছির কাজীরাহি তনা, বলরামপুরের আব্দুল হালিম, গাইদগাছির অ্যাডভোকেট নুরুজ্জামান খান, ঘোপ জেলরোডের সৈয়দ আলী আশফাক, রূপদিয়ার মকবুল হোসেন, নরেন্দ্রপুরের জিলহাজ, গোপালপুরের ইমামুল ইসলাম তুহিন, নরেন্দ্রপুর বেলতলার সামাদ, ধোপাপাড়ার আলম, বানিয়াগাতির শফিয়ার রহমান সফি, গোপালপুরের কামরুল, বলরামপুরের জাহাঙ্গীর আলমসহ অজ্ঞাত আরো অনেককে আসামি করা হয়েছে।
এজাহারভুক্ত আসামিদের মধ্যে জেলরোডের সৈয়দ আলী আশফাক, মনোহরপুরের দাউদ ইব্রাহিম, আকরাম হোসেন, গাইদগাছীর অহেদ মোড়ল, মশিয়ার রহমান, কাজী রাহি তনি, হাটবিলা জামতলার আফজাল হোসেনকে আটক করা হয়েছে।

এছাড়া মামলার তদন্তেপ্রাপ্ত আসামি লেবুতলার আব্দুল্লাহ আলামিন বাবু, শাহাবুদ্দিন খা, কোদালিয়ার টুকু, বিল্লাল হোসেন, লেবুতলার মামুন হোসেন, ঘুরুলিয়া মধ্যপাড়ার তরিকুল ইসলাম, কিসমত নওয়াপাড়ার রাজু আহম্মেদ, চাঁচড়া ভাতুড়িয়ার আসাদুজ্জামান, হাবিবুর রহমান, আবু সাইদ বিশ্বাস, চানপাড়ার ওয়াদুদ, ওসমানপুরের শিমুল হোসেন, বানিয়াগাতির আনোয়ার হোসেন, রিয়াদ হোসেন, মুনসেফপুরের আব্দুর রহমান, নরেন্দ্রপুরের মশিয়ার রহমান, ছাতিয়ানতলার মাসুদ, চুড়ামনকাটির দেলোয়ার হোসেন ওরফে শাহ আলম, নিজাম উদ্দিন, কোদালিয়ার রবিউল ইসলাম ও ওয়াসিম মেম্বরকে আটক করা হয়েছে।
মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, আগষ্ট মাসজুড়ে তারা বিভিন্ন এলাকায় শোকসভা, দোয়া মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করে আসছিলেন। এসব বিষয়ে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের সেমিনার কক্ষে শনিবার সকাল ১১ টায় চেয়ারম্যান রাজু আহম্মেদকে নিয়ে আলোচনা করছিলেন। একই সময় পাশের ইউনিয়ন কচুয়াতে বিএনপির সমাবেশ চলছিলো। ওই সমাবেশ শেষে বিএনপির নেতাকর্মীরা বিভিন্ন বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ে রূপদিয়া বাজারের দিকে ধেয়ে আসে। পরে আসামিরা ইউনিয়ন পরিষদের সামনে কয়েকটি ককটেল মেরে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে। ইউনিয়ন পরিষদ ভাংচুর করে। যাতে ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়। পরিষদেও গেটের সামনে চেয়ারম্যান রাজুর পাজেরো গাড়ি ও একটি প্রাইভেট এবং একটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। এতে সাড়ে সাত লাখ টাকার ক্ষতি হয়। এছাড়া রাজুর গাড়িতে থাকা একলাখ ৩৫ হাজার টাকা লুট করে। এসময় চেয়ারম্যান রাজুসহ অন্যরা এগিয়ে আসলে আসামিরা রামদা, লোহার রড়ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাজুর সাথে থাকা ১০জনকে মারপিট করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।
এদিকে, মামলার পর তদন্ত কর্মকর্তা নাজমুল হাসান গভীর রাতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৮জনকে আটক করে রোববার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করেন।