রেইনট্রি এমডির সঙ্গে ওসি ফরমানকেও মানবাধিকার কমিশনে তলব

0
252

ঢাকা প্রতিবেদক : বনানীর ধর্ষণের ঘটনায় রেইনট্রি হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এইচ এম আদনান ও মহাব্যবস্থাপক ফ্রাঙ্ক ফরগেটের সঙ্গে বনানী থানার ওসি ফরমান আলীসহ দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে তলব করেছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন গঠিত তদন্ত কমিটি।

আগামী ২৫ মে বিকাল ৪টায় মানবাধিকার কমিশন কার্যালয়ে শুনানির জন্য তাদের তলব করা হয়েছে জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের এই সদস্য বলেন, পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মোস্তাক আহমেদকেও ওই দিন তদন্ত কমিটির সামনে হাজির হতে বলা হয়েছে।

“আমরা তদন্তের অংশ হিসাবে ইতোমধ্যে রেইনট্রি হোটেল পরিদর্শন করেছি। ভিক্টিমের পরিবারের সঙ্গেও কথা হয়েছে। আমরা তথ্য পর্যালোচনা করছি।”

মঙ্গলবার কমিটির সভায় ওই চারজনকে ডাকার সিদ্ধান্ত সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা সব পক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলতে চাই। তার ভিত্তিতে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করা হবে।”
বনানীর চার তারকা রেইনট্রি হোটেলে গত ২৮ মার্চ জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গত ৬ মে থানায় একটি মামলা হয়।

আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ ও তার দুই বন্ধুসহ পাঁচজনকে তাতে আসামি করা হয়।

বনানী থানা পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে গড়িমসি করে বলে অভিযোগ করেন ধর্ষিতাদের একজন। এরপর আসামি ধরতেও পুলিশের অনীহার অভিযোগের মুখে মামলার তদন্তভার পুলিশের উইমেন ভিকটিম সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেনশনকে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ডিএমপি গঠিত কমিটির তদন্তেও পুলিশের বিরুদ্ধে গাফিলতির প্রমাণ মিলেছে বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন

তরুণীদের অভিযোগ অনুযায়ী, এই রেইনট্রি হোটেলেই ঘটে ধর্ষণের ঘটনা তরুণীদের অভিযোগ অনুযায়ী, এই রেইনট্রি হোটেলেই ঘটে ধর্ষণের ঘটনা এদিকে বনানীতে আবাসিক এলাকায় কে ব্লকের ২৭ নম্বর সড়কের ৪৯ নম্বর বাড়িতে রেইনট্রি হোটেলের মালিকানায় আছে আওয়ামী লীগের সাংসদ বিএইচ হারুনের পরিবার। হোটেলের পরিচালনা পর্ষদে থাকা চার তার ছেলের মধ্যে এইচ এম আদনান হারুন আছেন ওই হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্বে। তবে দেখাশোনা করেন তার ভাই মাহির হারুন।
মাহিরের বন্ধু পরিচয় দিয়েই সাফাত ধর্ষণের ঘটনার দিন ওই হোটেলে উঠেছিলেন বলে হোটেলকর্মীরা পুলিশকে জানিয়েছেন।

ধর্ষণের ঘটনায় মামলার দুই দিন পর গত ৮ মে ব্যাপক আলোচনার মধ্যে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন।

কমিশনের সদস্য সাবেক সচিব নজরুল ইসলামকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটিতে রয়েছেন কমিশনের সদস্য নুরুন নাহার ওসমানী, সদস্য এনামুল হক চৌধুরী, কমিশনের পরিচালক মো. শরীফ উদ্দিন ও উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here