রেড অ্যালার্ট জারি থাকলেও তার কোন আলামত ছিলো না যশোরের আদালত পাড়ায়

0
21

ডি এইচ দিলসান : ঢাকার আদালত চত্ত্বর থেকে দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেওয়ার পর সারা দেশে রেড অ্যালার্ট জারি ও আদালত চত্ত্বরে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থার নির্দেশ থাকলেও তার কোন আলামত দেখা যায়নি যশোর আদালত চত্ত্বরে। সোমবার বেলা ১২ টার দিকে যশোর জেলা ও দায়ড়া জজ আদালতে গিয়ে দেখা যায় বিচারপ্রার্থীসহ সাধারণ লোকজনের অবাধ যাতায়াত ছিল। আদালতের মূল ভবনের প্রবেশদ্বার, বারান্দায় মানুষের অবাধ চলাচল থাকলেও বাড়তি কোনও নিরাপত্তারক্ষী কিংবা পুলিশ সদস্য চোখে পড়েনি। এজলাসগুলোর সামনে বিচারপ্রার্থী ও সাধারণ মানুষদের জটলা ছিল সাধারণ দিনের মতোই। অন্যদিকে যশোর চিফ জুডিশিয়াল আদালত ভবনেও বাড়তি কোনও নিরাপত্তা চোখে পড়েনি।
শুধু মাত্র আদালতের বারান্দায় কয়েকজন পুলিশ সদস্য আড্ডা গল্পে মেতে থাকা ছাড়া কোন বাড়তি নিরাপত্তার বলায় চোখে পড়েনি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে যশোর জেলা জজ আদালতের নাজির বাবর অলী বলেন বলেন, ‘ আমাদের আদালতে বাড়তি নিরাপত্তা ছিলো না, তেমনটা চোখেও পড়েনি, এ ব্যাপারে আমাকেও কেউ কিছু জানাই নি।
চিফ জুডিশিয়াল আদালতের নাজির বিপ্লব হোসেন বলেন, চিফ জুডিশিয়াল আদালত চত্ত্বরে কোন রকম বাড়তি নিরাপত্তা ব্যাবস্থা ছিলো না। তার কাছে কোন নির্দেশনা ছিলো কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার কাছে কোন রকম নির্দেশনা ছিলো না।
এ ব্যাপারে কোর্ট পরিদর্শক রোকসানা পারভিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশ উপলক্ষে যে নিরাপত্তা এর বাইরে আদালতে কোন রকম বাড়তি নিরাপত্তা ছিলো না। তবে আমরা সতর্ক অবস্থায় ছিলাম।
সঙ্গত, রবিবার ঢাকার জজ আদালত এলাকা থেকে আনসার আল ইসলামের মৃতুদন্ড প্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে পুলিশের থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাদের সহযোগীরা। এই দুই জনই ২০১৫ সালে বিজ্ঞানমনস্ক লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায় এবং জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত। সংশ্লিষ্ট আদালত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
ছিনিয়ে নেওয়া দুই জঙ্গির মধ্যে একজন মইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান (২৪)। সে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মাধবপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। অপর জন আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাব (৩৪)। সে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার ভেটশ্বর গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে