রেলক্রসিংয়ে মৃত্যুফাঁদ:দায় কাহারো কম নহে

0
282

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বক্তারপুরে উত্তরবঙ্গগামী একটি যাত্রীবাহী ট্রেনের সঙ্গে অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে বিকল হইয়া পড়া একটি ট্রাকের ভয়াবহ সংঘর্ষ ঘটিয়াছে গত বৃহস্পতিবার রাত্রে। কমপক্ষে ২৫ যাত্রী আহত হইয়াছেন, নিহত হইয়াছেন ট্রেনের সহকারী চালক। ট্রেনের ইঞ্জিনের সামনের অংশ ও বৈদ্যুতিক খুঁটিবাহী ট্রাকটি দুমড়াইয়া মুচড়াইয়া যায় এবং ট্রেনের ইঞ্জিনসহ চারটি বগি বিচ্ছিন্ন হইয়া পড়ে। ইঞ্জিনসহ বিচ্ছিন্ন হওয়া ট্রেনের সামনের অংশটি খুঁটিসহ ট্রাকটি নিয়া প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে গিয়া থামে এবং অপর অংশটি ঘটনাস্থলেই পড়িয়া থাকে। দুমড়াইয়া-মুচড়াইয়া যাওয়া ইঞ্জিন রুমে চাপা পড়িয়া ঘটনাস্থলেই নিহত হন সহকারী চালক নূর আলম।

এই দৃশ্য ভয়াবহ। পত্র-পত্রিকায় বিপজ্জনক রেলক্রসিং নিয়া নিয়মিত প্রতিবেদন ও উদ্বেগ প্রকাশিত হইলেও এইরূপ ভয়াবহতার পুনরাবৃত্তি বাড়িতেছে। কারণ এইদিকে কাহারো নজর নাই। দেশে ২ হাজার ৮৭৭ কিলোমিটার রেলপথে প্রায় আড়াই হাজার রেলক্রসিং আছে। ইহার মধ্যে ২ হাজার ১৭০টিতে, অর্থাত্ ৮৫ শতাংশে কোনো গেট নাই। নাই কোনো গেটম্যানও। নাই সংকেত বাতি। আশঙ্কার কথা হইল, এই ধরনের অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ের সংখ্যা দিন দিন বাড়িতেছে। সহস্রাধিক ক্রসিংই রেলবিভাগের আওতাধীন নহে। বলা হইতেছে, এইগুলি সড়ক কিংবা স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন। তবে প্রকৃত চিত্র অতটা সরল নহে। কারণ, মিলকারখানা কিংবা হাটবাজারের পাশে যথেচ্ছভাবে নির্মিত রেলক্রসিংয়ের সংখ্যাও কম নহে। বৈধ রেলক্রসিংয়েই যেখানে গেটম্যানের ঘাটতি রহিয়াছে, সেখানে অবৈধ ক্রসিংসমূহের অবস্থা সহজেই অনুমেয়। আর, গেটম্যান থাকিলেই-বা কী। যানবাহন বা পথচারী— কেহই ইহার তোয়াক্কা করে না। ট্রেন আসিবার আগ মুহূর্তেও যানবাহন ও পথচারীদের মধ্যে সিগন্যাল অমান্য করিয়া রেলক্রসিং পার হইবার জন্য হুড়োহুড়ি পড়িয়া যায়। সব মিলাইয়া রেলক্রসিংগুলি পরিণত হইয়াছে মৃত্যুফাঁদে। দুর্ঘটনাসংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, রেলক্রসিংয়েই সবচাইতে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটিতেছে। প্রতি বত্সর রেলক্রসিংয়ে ২ হাজার ২০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটে। কেবল কুড়িল রেলক্রসিংয়েই বছরে ২০০ জনের প্রাণহানি ঘটিতেছে, আর রাজধানীতে রেলে কাটা পড়িতেছে ৪০০ জন। রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের নিচে গাড়ি চাপা পড়িয়া ও ধাক্কা খাইয়া প্রাণহানির ঘটনাও নিত্যদিনের। বত্সরে গড়ে ২০টি ট্রেনের সঙ্গে যানবাহনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই সকল সংঘর্ষে বত্সরে প্রাণ যায় গড়ে ৩০ জনের।

রেলপথ সমগ্র বিশ্বেই অগ্রাধিকার পায়। তাই, রেলক্রসিং আস্তে আস্তে তুলিয়া দেওয়া ছাড়া কোনো উপায় নাই। সড়কপথকে রেললাইনের ওপর দিয়া বা নিচে দিয়া নিতে হইবে। যে পর্যন্ত রেলক্রসিং তোলা সম্ভব হইবে না, ততদিন গেট ও কর্মী দিয়া নিরাপত্তা নিশ্চিত করা দরকার। সড়কবিভাগ আর রেলবিভাগের মধ্যে দড়ি টানাটানি থামাইয়া জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তাকেই অগ্রাধিকার প্রদান করিতে হইবে। তবে পথচারীদেরকেও পারাপারে সচেতন হইতে হইবে। মানুষ সচেতন না হইলে যানবাহন ও রেলের গতি বাড়ান সম্ভব হইবে না। বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালান, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না-করিয়া হুড়োহুড়ি করিয়া আগে যাওয়া কিংবা রাস্তা পারাপার স্বাভাবিক বিষয়ে পরিণত হইয়াছে। এই উচ্ছৃঙ্খলতা পরিহার করিতে না পারিলে পরিস্থিতির পরিবর্তন সুদূরপরাহতই বলা চলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here