রেল উন্নয়ন সংগ্রাম কমিটি যশোর

0
435

প্রেস বিজ্ঞপ্তি,

আগামীকাল ১৯ ডিসেম্বর সকাল ১২টায় যশোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও স্মরকলিপি পেশ করা হবে। ১১ দফা দাবী সহ মানববন্ধন ও স্মরকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে যশোরের সকল রাজনৈতিক, সামাজিক, সংস্কৃতিক সহ যশোর সকল শ্রেণীর মানুষকে উপস্থিত থাকার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।
রেল মন্ত্রণালয় গঠন হবার পর রেলওয়ে উন্নায়ন কল্পে উত্তরোত্তর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য অভিনন্দন। সম্প্রতি খুলনা-কলকাতা ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অবিভক্ত ভারতবর্ষে রেল যোগাযোগে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় যশোর রেল ষ্টেশন ব্যবহৃত হতো। পূর্বে কলকাতা রেল যাতায়াতে যশোরে স্টপেজ ছিল। বৃহত্তর যশোর, বৃহত্তর কুষ্টিয়া, ফরিদপুর জেলার জনগণের ভারত যাতায়াতে অন্যতম স্থান যশোর। দুঃখের বিষয় হল এসকল বাস্তবতা বিবেচনার মধ্যে না এনে যশোর রেল ষ্টেশনকে ষ্টপেজ করা হয়নি। সরকারের এ সিদ্ধান্তে এই জনপদের মানুষ বঞ্চিত হয়েছেন এবং বিক্ষুদ্ধো হয়েছেন। সর্ব মহল থেকে এ বিষয়ে দাবী উত্থাপিত হচ্ছে।
বেনাপোল হল দেশের অন্যতম প্রধান স্থলবন্দর। পণ্য আমদানী-রপতানীসহ প্রতিদিন হাজার হাজার পাসপোর্ট ধারী যাত্রী এ পথে যাতায়াত করেন। এছাড়া সাতক্ষীরা ও যশোর জেলার শার্শা, ঝিকরগাছা, চৌগাছা, মণিরামপুর উপজেলার হাজার হাজার মানুষ এপথে যাতায়াত করেন। তাদেরকে ঢাকা যাতায়াতে প্রচন্ড বিড়ম্বনা ও দুর্ভোগের স্বীকার হতে হয়। এ অঞ্চলের মানুষ ঢাকা যাতায়াতে ট্রেনের উপর নির্ভরশীল হয়ে উঠছেন। কিন্তু প্রয়োজনীয় ছিট না থাকায় রেল ভ্রমণে ব্যর্থ হচ্ছেন। ফলে বেনাপোল-ঢাকা ২টা ট্রেন চালু করলে গণদুর্ভোগ লাঘব হবে এবং রেল মন্ত্রণালয় অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে।
ইতিমধ্যে জনগনের দাবীর প্রেক্ষিতে খুলনা বেনাপোল কমিউর ট্রেন চালু হয়েছে তাতে করে সাধারণ মানুষ উপকৃত হচ্ছেন। এক্ষেত্রে বেনাপোল থেকে সকালে আরেকটি কমিউর ট্রেন চালু করলে বিভাগীয় শহর খুলনায় যাতায়াতে জনগণের দীর্ঘদিনের দাবী পূরণ হবে। কমিউর ট্রেনে শার্শা স্টেশনে স্টপেজ চালু করা দরকার।
রেল মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দর্শনা-খুলনা ডাবল লাইন স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও তা বাস্তবায়নে দির্ঘসূত্রিতার অবসান হওয়া জরুরী।
এছাড়া যাত্রীদের সুবিধা, পণ্য পরিবহন ও রেল-যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নায়নে আমরা নিমক্ত দাবী উত্থাপন করছি।
১১ দফা দাবি হল ঃ
১। খুলনা-কলকাতা রুটে যশোরে স্টপেজ চালু ও ভাড়া কমাতে হবে
২। বেনাপোল-ঢাকা রুটে ২টা ট্রেন চালু করতে হবে
৩। সকালে বেনাপোল-খুলনা আরেকটি কমিউর ট্রেন চালু করতে হবে
৪। জরুরি ভিত্তিতে খুলনা-দর্শনা ডাবল লাইনের কাজ শুরু এবং সারাদেশে ডাবল লাইন চালুসহ সকল জেলাকে
রেলের আওয়ায় আনতে হবে
৫। কৃষিপণ্য ও কাঁচামাল পরিবহনের জন্য সকল ট্রেনে বিশেষ বগির (ভেন্ডোর) ব্যবস্থা চালু করতে হবে
৬। রেলের ভাড়া হ্রাস এবং নি¤œ আয়ের যাত্রী সাধারণের সুবিধার্থে সাধারণ বগি যুক্ত করতে হবে
৭। রেলের সম্পদ পূনরুদ্ধার, উন্নয়ন ও দূর্নীতি বন্ধ করতে হবে এবং টিকিট কালোবাজারি বন্ধ করতে হবে
৮। রেল কর্মচারীদের ন্যায়সংঙ্গত দাবি সমূহ পূরণ, বাসাবাড়ি বসবাসের উপযোগী করা ও পোষ্যদের চাকরি প্রদান
করতে হবে
৯। যশোর রেলওয়ে হাসপাতাল চালু করতে হবে
১০। রেল স্টেশনগুলি অধুনিকীকরণ, বসার স্থান, টয়লেট ও পরিষ্কার পানির ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে
১১। সকল স্টেশন থেকে দেশের যে কোন স্থানের অগ্রীম টিকিট দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here