রোহিঙ্গা নিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়ে শেষ হল আইপিইউ সম্মেলন

0
183

নিজস্ব প্রতিবেদক: জরুরী এজেন্ডায় মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার হরণের নিন্দা ও রোহিঙ্গা নিপীড়ন বন্ধের আহ্বান জানিয়ে শেষ হয়েছে চার দিনব্যাপী ১৩৭তম আইপিইউ সম্মেলন।
রাশিয়ার সেন্টপিটার্সবার্গে গত ১৪ অক্টোবর এ সম্মেলন উদ্বোধন করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিন।
এদিকে বাংলাদেশ সংসদীয় দলের সাথে অনুষ্ঠিত দ্বি-পক্ষিক বৈঠকে রাশিয়ার সংসদীয় দল রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে রাশিয়া ভূমিকা রাখবে বলে আশ্বস্ত করেছেন রাশিয়ান পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের ডেপুটি স্পিকার ইলিয়াস উমা খান।
সংসদ সচিবালয় জানায়, রাশিয়ার সেন্টপিটার্সবার্গে চলমান ১৩৭তম আইপিইউ সম্মেলনের সাইড লাইনে আজ ডেপুটি স্পিকার মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়ার নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল রাশিয়া সংসদীয় দলের সাথে এ বৈঠকে বসে। আলোচনাকালে বাংলাদেশর ডেপুটি স্পিকার মায়ানমারের জাতিগত নিধনের ভয়াবহতা রাশিয়ার প্রতিনিধিদলের কাছে সবিস্তারে তুলে ধরেন।
আইপিইউ সম্মেলনে ইমারজেন্সী আইটেম হিসেবে বাংলাদেশের প্রস্তাবিত রোহিঙ্গা ইস্যুটি পাস হয়। প্রস্তাবে অবিলম্বে মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধ এবং জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অস্থায়ী নিরাপদ অঞ্চল গঠনের আহ্বান জানানো হয়। সম্মেলনে অংশ নেওয়া বিশ্বের সংসদীয় দলের প্রতিনিধিরা মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা সংখ্যালঘুদের জাতিগত নিধনেরও নিন্দা জানান। একইসঙ্গে রোহিঙ্গা সঙ্কটকে আঞ্চলিক শান্তিও নিরাপত্তার জন্য প্রধান হুমকি হিসেবে উল্লেখ করা হয়।
সারা বিশ্বের ১৭৩ টি দেশের ৬৫০ কোটি মানুষের প্রতিনিধিত্বশীল সর্ববৃহৎ সংসদীয় ফোরামে রোহিঙ্গা ইস্যুটি গৃহীত হবার বিষয়টি মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বিশ্বজনমতের প্রতিফলন বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। এরআগে প্রস্তাবটি ১০২৭ ভোটে গৃহীত হয়। এর বিপরীতে মায়ানমার পায় মাত্র ৪৭ ভোট। রোহিঙ্গা ইস্যুটি গৃহীত হয়েছে। আজ বিকেলে আইপিইউ সম্মেলনের সাধারণ সভায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি বিপুল সংখ্যাগরিষ্ট ভোটে গৃহীত হয়। আইপিইউ সম্মেলনে ইমারজেন্সী আইটেম হিসেবে বাংলাদেশের কোন প্রস্তাবনা গৃহীত হবার ঘটনা এবারই প্রথম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here