রোহিঙ্গা সমস্যা ও মাদকাসক্তি :প্রয়োজন বিশেষ সতর্কতা

0
485

অধ্যাপক অরূপরতন চৌধুরী : মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা আসার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ইয়াবা চালান আসার ঘটনা বাড়ছে। বাংলাদেশে মাদকসেবীদের কাছে হেরোইন, ফেনসিডিলের চাইতে ইয়াবার চাহিদা বেশি। ইয়াবা পাচার রোধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণার পরও ঠেকানো যাচ্ছে না ইয়াবার চোরাচালান। জানা যায়, প্রতিমাসে গড়ে ৩০ কোটি টাকার ইয়াবার চালান আসছে। বাংলাদেশ-মিয়ানমার ২৭১ কিলোমিটার সীমান্তের মধ্যে ১৭২ কিলোমিটারই অরক্ষিত। এর মধ্যে টেকনাফ ও শাহপরীর দ্বীপের মধ্যবর্তী ১৪ কিলোমিটার নাফ নদীর চ্যানেল এলাকা ইয়াবা পাচারের প্রধান রুট হিসেবে ব্যবহার করে চোরাচালানিরা। ইয়াবা চোরাচালানে ছোট নৌকা, ট্রলার মালবাহী ছোট জাহাজ ব্যবহার করা হচ্ছে। ইয়াবার চালান রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিনা বাধায় চলে যাচ্ছে। মাঝেমধ্যে যারা গ্রেফতার হচ্ছে এরা মূলত ক্যারিয়ার। নেপথ্যের গডফাদাররা বরাবরই ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে।

মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি মিয়ানমার সীমান্তে গড়ে উঠা ৪৯টি ইয়াবা তৈরির কারখানা ধ্বংস করে ইয়াবা পাচার বন্ধের প্রস্তাব দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। মিয়ানমারে গড়ে ওঠা এইসব ইয়াবা কারখানা থেকে প্রতিদিন চোরাইপথে সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে লাখ লাখ পিস ইয়াবা যার মূল্য কোটি কোটি টাকা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে মিয়ানমারকে তাদের দেশের সীমান্ত এলাকায় গড়ে ওঠা ইয়াবা তৈরির কারখানার তালিকা দেওয়া হয়। এসব কারখানায় ১৩ ধরনের ইয়াবা তৈরি হচ্ছে, যার বাজার বাংলাদেশে। প্রশাসনসহ কে না জানে ইয়াবা ব্যবসার নেপথ্যের গডফাদার কে বা কারা। কক্সবাজারের টেকনাফ, উখিয়া অঞ্চলে এ ব্যবসায় জড়িত হয়ে রাতারাতি বিত্তের পাহাড় গড়ে তোলার তথ্য রয়েছে প্রশাসনের কাছে। কিন্তু এদেরকে ধরাছোঁয়া যায় না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী নাফ নদীতে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হলেও ইয়াবার চালান আসা বন্ধ করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বিগত দিনে কয়েক দফায় কক্সবাজার, টেকনাফ ও চট্টগ্রামে ইয়াবা চালান পাচারের ঘটনায় ৬ রোহিঙ্গাকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে অভিযানকারীর দল। অভিযোগ আছে যে টেকনাফ থেকে রোহিঙ্গা নামে যেসব শরণার্থী বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে এদের সঙ্গে ইয়াবা চালানও আসছে। বিজিবি, র্যাব, পুলিশ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযানে প্রায় ৬শ’ কোটি টাকার ইয়াবা উদ্ধার হয়েছে গত ৯ মাসে। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমপ্রতি কক্সবাজারের বিশাল জনসভায় সুস্পষ্টভাবে ইয়াবার আগ্রাসন বন্ধে এবং এই অবৈধ ব্যবসার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেছেন। এর পরও বন্ধ হচ্ছে না ইয়াবার পাচার।

জানা গেছে, বর্তমানে রাজধানীসহ সারাদেশে মোট ১১শ’ মাদক আস্তানা রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে সীমান্তবর্তী কক্সবাজার, টেকনাফ, সাতক্ষীরা, বেনাপোল, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, হালুয়াঘাট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, আখাউড়া ও কুমিল্লা সীমান্তে। মাদকদ্রব্যের মধ্যে সব চেয়ে বেশি প্রাধান্য সৃষ্টিকারী হচ্ছে ইয়াবা। তারপরে ফেনসিডিল ও গাঁজার অবস্থান। দেশে ইয়াবার আগ্রাসন ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। ইয়াবা উত্পাদনকারী দেশ মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা বিতাড়ন শুরুর পর থেকে ইয়াবার চালানে কিছুটা ভাটা পড়েছিল। কিন্তু হঠাত্ আবার তা বাড়তে শুরু করেছে। এদিকে কক্সবাজার জেলার উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গারা দিন দিন অপরাধপ্রবণ হয়ে উঠছে। মাদক পাচার ও মাদকাসক্তির কারণে একটি অংশ জড়িয়ে পড়ছে মানব পাচারের মতো অপরাধকর্মের সঙ্গেও। ক্যাম্পে তাদের নিজেদের মধ্যেও বাড়ছে ঝগড়া-বিবাদ। উখিয়ার কুতুপালং এলাকার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একে অপরের হামলায় এক রোহিঙ্গা খুন হয়।

বর্তমান রোহিঙ্গা সমস্যা ও মাদকাসক্তি থেকে উত্তরণের জন্য আমাদের সুপারিশ হচ্ছে:

১। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব রোহিঙ্গাদেরকে স্বদেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক চাপ অব্যাহত রাখা।

২। যেসব রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করছে তাদের তল্লাশির ব্যবস্থা করা, যাতে কেউ ইয়াবা বা অন্যান্য মাদকদ্রব্য অথবা অস্ত্রসহ বাংলাদেশে ঢুকতে না পারে।

৩। যেসব শরণার্থী ক্যাম্পে তাদেরকে রাখা হয়েছে সেগুলোকে নজরদারিতে রাখা, যাতে তারা যেন কোনো অবস্থায় ক্যাম্পের বাইরে গিয়ে ইয়াবা বা মাদকদ্রব্য বিক্রি বা পাচারের কাজে যুক্ত হতে না পারে।

৪। এসব রোহিঙ্গার মধ্যে অনেকেই এইচআইভি/এইডস ও হেপাটাইটিস-বি/সি প্রভৃতির মতো সংক্রামক রোগে আক্রান্ত। সুতরাং তাদের মাধ্যমে শিরায় মাদক গ্রহণের ফলে আমাদের দেশে যাতে এসব রোগ ছড়াতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে।

৬। রোহিঙ্গাদের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার সঙ্গে সঙ্গে শরণার্থী শিবিরে মাদকবিরোধী সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

৭। মাদক পাচার ও মাদকাসক্তি সমস্যাকে জাতীয় সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একটি বিশেষ ফোর্স গঠন করতে হবে।

তবে মাদকাসক্তি প্রতিরোধের সর্বাপেক্ষা কার্যকর উপায় হচ্ছে—

মাদকদ্রব্য ও মাদকাসক্তির বিরুদ্ধে সামাজিক সচেতনতা গড়ে তোলা;

মাদকদ্রব্যের অনুপ্রবেশ সম্পূর্ণ বন্ধ করা;

মাদক ব্যবসার সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতদের গ্রেফতার ও শাস্তি নিশ্চিত করা;

বেকারদের কর্মসংস্থান;

স্কুল-কলেজে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি মাদকাসক্তির কুফল সম্পর্কে শিক্ষা প্রদান

মাদকাসক্তদের চিকিত্সা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মানস (মাদকদ্রব্য ও নেশা নিরোধ সংস্থা) সদস্য, জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ড এবং জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্স

E-mail:prof.arupratanchoudhury@yahoo.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here