লংগদুতে বাড়িঘরে আগুন, জননিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

0
219

রাঙামাটির লংগদুর পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। সেখানে চারটি গ্রামে পাহাড়িদের বাড়ি-দোকানপাটে লুটপাট, ভাংচুর ও অগি্নংযোগ করা হয়েছে। পুড়ে গেছে দুই থেকে আড়াইশ’ বাড়িঘর ও দোকানপাট। এলাকাবাসী চরম আতঙ্কে। সমকালসহ সংবাদপত্রের খবরে প্রকাশ, স্থানীয় এক যুবলীগ কর্মীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে এটি ঘটেছে। নিহত ব্যক্তি ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালাতেন। গত ২ জুন সকালে তিনি মোটরসাইকেলে যাত্রী নিয়ে খাগড়াছড়ি রওনা দেন। পরে খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়কের চার মাইল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পর কিছু বাঙালি বাট্টাপাড়ায় জড়ো হয়ে মিছিল করে এবং পাহাড়িদের বাড়িঘরের ওপর চড়াও হয়। স্থানীয় পাহাড়ি নেতারা বলেছেন, বিষয়টি পুলিশ ও সেনা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার পরও কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এর কী জবাব আছে? এলাকাটি স্পর্শকাতর। যে কারণে প্রশাসনের কাছ থেকে দায়িত্বশীল ভূমিকা প্রত্যাশিত। কিন্তু তাদের ভূমিকা হয়ে দাঁড়িয়েছে- ‘রোগী মরিবার পর ডাক্তার আসিল’-র মতো। সেখানে এখন ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। হয়তো ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তাও দেওয়া হবে। কিন্তু ক্ষতিগ্রস্ত নর-নারীর হৃদয়ে যে ক্ষত তৈরি হলো তা নিরসন হবে কীভাবে? এসব ঘটনার মধ্য দিয়ে পাহাড়ি-বাঙালিদের মধ্যে দূরত্ব বাড়ছে, পারস্পরিক অনাস্থা ও অবিশ্বাস জোরালো হচ্ছে- যা সামাজিক শান্তি ও জননিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি। আমাদের ভুললে চলবে না যে, শান্তি চুক্তির মধ্য দিয়ে যে সম্প্রীতি ও সমৃদ্ধির সোপান তৈরি হয়েছে তা এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রশাসন ও পুলিশের ভূমিকা গুরত্বপূর্ণ। তাই আমরা পুলিশ প্রশাসনের আর নির্বিকার ভূমিকা দেখতে চাই না, তাদের নামে পক্ষপাতের অভিযোগও শুনতে চাই না। আমরা চাই এমন পুলিশ ও প্রশাসন- যারা দায়িত্বশীল আচরণ করবে; জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে জননিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। আমরা হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাই। লংগদুসহ সংশ্লিষ্ট এলাকার শান্তি ও জনরিাপত্তা বিধানে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here