লকডাউনের প্রথম দিনে যশোরে সেনা, পুলিশ ও বিজিবি কঠোর অবস্থানে

0
41

ডি এইচ দিলসান : কঠোর লকডাউনের প্রথম দিনে যশোরে সেনা, বিজিবি ও পুলিশের কঠোর অবস্থান লক্ষ করা গেছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বৃষ্টি হলেও সেনা সদস্যদের পাশাপাশি বিজিবি, যশোর জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো ছিল। এছাড়াও শহরের ভেতরে ওষুধ ও কাঁচাবাজার ছাড়া ছাড়া সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ ছিল। তবে যারা একান্ত প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হয়েছেন তাদের আইডি কার্ড ও পরিচয়পত্র দেখে জিজ্ঞাসাবাদ সাপেক্ষে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচলের ৃঅনুমতি দিচ্ছেন। এদিকে, শহরে ইজিবাইক, অটোরিকশা চলাচল করতে দেওয়া হয়নি, পাশাপাশি মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকার দেখলেই থামিয়ে জানতে চাচ্ছেন কেন বের হয়েছেন, কোথায় যাচ্ছেন? সদুত্তর না মিললে তাদের ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে যারা এত বাধা বিপত্তি পরেও সড়কে গাড়ি বা সিএনজি, আটোরিকশা নিয়ে বের হওয়া অধিকাংশ মানুষই মেডিকেলের কারণ দেখাচ্ছেন। সত্যতা যাচাই করে সহজে ছাড়াও পাচ্ছেন তারা। কেউ কেউ মিথ্যার আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তাদের।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা: ইউসুফ আলী বলেন, লকডাউন যদি আমরা না মানি আমাদের মৃত্যুর সংখ্যা বাডবে, আক্রান্তের সংখ্যা বাডবে। হাসপাতালে চিকিৎসা দিতেও মুশকিল হবে। কারণ সারা দেশে প্রতিদিনই করোনায় মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। এতে করে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। সরকার কেন কঠোর অবস্থানে গেল সেটি আমাদেরকে আগে বুঝতে হবে কারণ সাধারণ মানুষ চলমান বিধিনিষেধ আগে থেকে মানছিলেন না। ফলে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বাড়ছে, বাড়ছে মৃত্যুও। এমন অবস্থায় সংক্রমণ কমানোর জন্য এক সপ্তাহ নই পরিপূর্ণভাবে অন্তত দুই সপ্তাহের কার্যকারী লকডাউন দিতে হবে।
অন্যদিকে, মাঠ পর্যায়ে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, জরুরি পরিষেবা ব্যতীত সবই বন্ধ আছে। আমরা কড়া লকডাউন বাস্তবায়ন করতে চাই। আমারা ছাড় দিচ্ছি শুধু জরুরি পণ্যবাহী, চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে শুধু যানবাহন চলাচল ও এর সাথে সংশ্লিষ্ট মানুষদের।
উল্লেখ্য করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকাল ৬টা থেকে সাতদিনের সরকারি ‘বিধি-নিষেধ বা কঠোর ‘লকডাউন’ শুরু হয়েছে