লকডাউনের প্রথম দিনে যেমন ছিলো যশোর

0
139

ডি এইচ দিলসান : লকডাউনের প্রথম দিনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য সড়কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ছিলো কঠোর অবস্থানে । অনেককেই মাস্ক ছাড়া চলাচল করায় জরিমানা করার চিত্র দেখা গেছে। শহরে চলাচল করতে দেয়নি কোন গন পরিবহন। যতসামান্য রিক্সা চললেও ১ জনের বেশি যাত্রী দেখলেই পুলিশ হেপাজতে নিয়েছে রিক্সা। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, লকডাউন অমান্য করে চলাচল করায় কয়েকশো রিকশা, ইজিবাইক ও মোটরসাইকেল আটক করা হয়েছে। কোনো মোটরসাইকেলের চালক হেলমেট না পরলে বা কারো মুখে কোনো মাস্ক না থাকলে তার বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হচ্ছে। বন্ধ ছিলো ট্রেন, বিমান ও বাস। রাস্থার মোড়ে মোড়ে ছিলো পুলিশের টহল। একই সাথে ভ্রাম্যমান আদালতের টহলও ছিলো চোখে পড়ার মত। নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দোকানের বাইরে বন্ধ ছিলো অধিকাংশ দোকানপাট।
খবর নিয়ে জানা গেছে যশোর কেন্দ্রী বাসটারমিনাল থেকে ছেড়ে যায়নি কোন যাত্রীবাহী বাস। তবে চলাচল করছে ট্রাকসহ মালামাল পরিবহনকারী যানবাহনগুলো। এছাড়া শহর ও শহরতলীতে বিক্ষিপ্তভাবে কিছু রিকশা, ভ্যান, ইজিবাইক চলতে দেখা গেছে। তবে শহরের মার্কেট ও দোকানপাট ছিলো বন্ধ
এ দিকে লকডাউনের মধ্যে সকাল ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চলেছে ব্যাংক লেনদেন।। অগ্রনী ব্যাংক বাজার শাখার ম্যানেজার সজ্ঞয় কুমার বলেন, আমরা স্বাস্যবিধি সেনে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালিয়েছি। তবে অন্যদিনের চেয়ে চাপ অনেক কম ছিলো বলে তিনি জানান।
বেলা ১১টার দিকে রিকশা চালক মো. সোলাইমান হোসেন জানান, আজ অন্যদিনের মতো যাত্রী পাচ্ছেন না। অন্যদিন এ সময় তার ৩০০/৩৫০ টাকা আয় হয়। আজ হয়েছে মাত্র ১৩০ টাকা। যাত্রী না পাওয়ার কথা জানালেন তার পাশে থাকা ইজিবাইকের চালক লোকমান হোসেনও। তিনি জানান, অন্যদিনের তুলনায় আজ তারও অর্ধেক আয় হয়েছে।
এদিকে সোমবার যশোরে নতুন করে আরও ৪১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৩৬ জন। এছাড়া, চৌগাছায় এক জন, শার্শায় এক জন, মণিরামপুরে দুই জন ও ঝিকরগাছায় এক জন রয়েছে।
সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারের একশ’ ৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তিনি বলেন নতুন আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউনসহ অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনার জন্যে তালিকা স্থানীয় প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলেন মহামারি নিয়ন্ত্রণের শেষ অস্ত্র লকডাউনের সুফল পেতে রোগী শনাক্ত, আইসোলেশন-কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতসহ রোগ-প্রতিরোধের বিজ্ঞানভিত্তিক সব ব্যবস্থাকে কাজে লাগাতে হবে। আর লকডাউনের কবল থেকে মুক্তি পেয়ে আবারও স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে সরকারের পাশাপাশি সামাজিক শক্তি আর ব্যক্তিগত সচেতনতার বিকল্প নেই। তিনি যশোরের জনসাধারনকে স্বাস্থ্যবিধী মেনে চলার অনুরোধ জানান।