লকডাউনে পরিবহন শ্রমিকদের পাশে নেই কেউ, পেশা পরিবর্তনের হিড়িক

0
27

ডি এইচ দিলসান : করোনা মহামারিকালে গত ২ বছরে সরকারি যৎসামান্য সাহায্য ছাড়া আর কিছুই জোটেনি যশোর জেলার ১০ হাজার পরিবহন শ্রমিকের কপালে। দীর্ঘদিন ধরে বেকার থাকলেও ১০ হাজার পরিবারের প্রায় প্রায় ৫০ হাজার সদস্যের পাশে দাড়াইনি কোন পরিবহন মালিক, সাহায্যের হাত বাড়াইনি পরিবহন শ্রমিক সমিতিও। এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে ৪ হাজার সদস্য পেয়েছে ১০ কেজি করে চাল আর ২৫শত টাকা করে ২ কিস্তিতে ৫ হাজার করে টাকা। যা পরিবহন শ্রমিকদের জন্য যৎসামান্য। আর যার কারনে অনেকে পরিবর্তন করছে তাদের পেশা। হকারি, মৌসুমি ফলের দোকানসহ নানান ধরনের পেশায় নিয়োজিত হচ্ছেন পরিবহন শ্রমিকেরা। জানতে চাইলে যশোর পরিবহন শ্রমিক সমিতি ২২৭ এর সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু বলেন আমাদের যে অবস্থা তাতে শ্রমিকদের ১০০ টাকা করে দেওয়ার অবস্থা নেই।
যশোর মনিহার ফল পট্টির সামনে একাকী বসে থাকতে দেখা যায় বয়জেষ্ঠ পরিবহন শ্রমিক সামছের ফকিরকে। কেমন আছেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘চলমান লকডাউনে বাসের কাজ নেই। খোরাকিডাও পাই না। সরকার, মালিক বা পয়সাওয়ালা কোনো মানুষও এখন খাদ্য সহায়তা দেয় না। বলতে পারেন জীবনটা চলছে ভিক্ষুকের মতো। তিনি বলেন আগের লকডাউনে বাস পাহারা দিলে মালিকরা দিনে ২০০ টাকা খোরাকি দিতেন। কিন্তু এবার বাস পাহারা দেওয়ার জন্য মালিকরা কাউকে রাখেননি।
কাজ হারিয়ে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক পরিবহন শ্রমিক এরই মধ্যে পেশা বদল করতে বাধ্য হয়েছেন। কেউ রিকশার প্যাডেল ঘোরাচ্ছেন, কেউবা গ্রামে গিয়ে কৃষি শ্রমিকের কাজ শুরু করেছেন। অনেকে হয়েছেন দিনমজুর। রাফিউদ্দিন, পেশায় ছিলেন বাসের কন্ট্রাকটার। লকডাউনে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখন আবার রাতের বেলায় রিকশা চালাচ্ছেন।
নাম প্রকাশে অনচ্ছিুক একজন পরিবহন মালিক বলেন, ‘করোনার প্রায় দুই বছরে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে গণপরিবহন খাত। আমাদেও যেসব বাস চলে সেগুলোর মালিকরা সবাই বিত্তবান নন। একটি বা দুটি বাসের আয় দিয়েই তাঁদের সংসার চলে। এমন মালিকের সংখ্যাই বেশি। এখন তাঁরা নিজেরাই দুরবস্থায় আছেন। এ অবস্থায় তাঁরা শ্রমিকদের দিকে কিভাবে তাকাবেন!