লকডাউন মুক্ত হিসাবে দেশের ১মাত্র জেলা হিসাবে ঝিনাইদহ জেলাকে ঘোষনা

0
351

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহঃদেশের একমাত্র ঝিনাইদহ জেলায় লকডাউন নেই লকডাউন মুক্ত হিসাবে দেশের একমাত্র জেলা হিসাবে ঝিনাইদহ জেলাকে ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়রে ওয়েব সাইেট এ তথ্য জানানো হয়েছে। বাংলাদেশে কেবলমাত্র ঝিনাইদহ জেলায় লকডাউন নেই। ইতিপূর্বে কখনোই জেলা বা জেলার কোন উপজেলা লকডাউন ছিল না। ঝিনাইদহ জেলায় ৬টি উপজেলা রয়েছে। এখানকার জনসংখ্যা প্রায় ১৭ লাখ। জেলায় রবিবার নতুন করে একজন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৫৫ জন। ঝিনাইদহ জেলায় এ পর্যন্ত করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ৫জন তবে তাদের সবার রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ এসেছে। ঝিনাইদহ জেলায় এ পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২শ ৫০ জনের মতো। ঝিনাইদহ জেলা সিভিল সার্জন কার্যাললয়ে করোনা সেলের মুখপাত্র ডা: প্রসেঞ্জিৎ বিশ্বাস জানান, যেহেতু ইতিপূর্বে ঝিনাইদহ লকডাউন ছিল না এবং সুস্থ্যতার হার বেশী, এসব বিবেচনায় নতুন করে একমাত্র জেলা হিসাবে ঝিনাইদহ কে লকডাউন মুক্ত রাখা হয়েছে। দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) বিস্তার ঠেকাতে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আক্রান্তের আধিক্য বিবেচনায় রেড জোন, এয়ালো জোন ও গ্রিন জোনে চিহ্নিত করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাস্তবায়ন হবে স্বাস্থ্যবিধি ও আইনি পদক্ষেপ। দেশে করোনা সংক্রমণের পর থেকেই ততপর ছিলেন ঝিনাইদহের প্রমাসন।সামাজিক দুরত্ব রোধে কঠোর ভাবে মাঠে ছিল জেলা প্রমাসনের ১০টি ভ্রাম্যমান আদালত,সামাজিক দুরত্ব রোধে প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন উপজেলায় করা হয়েছে জরিমানা। ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার ও ঝিনাইদহে বসান চেকপোস্ট। যদিও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঈদের আগে অনেক লোক ঝিনাইদহে চলে এসেছে। তাদের চিহ্নিত করে হোম কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করা,অসহায়দের বাড়িতে ত্রাণ পৌছিয়ে দেওয়া ও করোনা আক্রান্ত রোগীদের সার্বিক খোজ রেখে মানসিক ভাবে তাজা রাখতে সর্বদা মাঠে ছিলেন ঝিনাইদহে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ জানিয়েছেন, আমরা আপ্রান চেষ্টা চালিয়েছি মানুষকে ঘরে রাখতে। এই জন্য জেলায় ১০টি ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়েছে। মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করেছি সব সময়। কিন্তু তার পরেও জেলাতে ৫৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৩৮ জন সুস্থ হয়েছে এখন পর্যন্ত আমরা এখনও সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে কাজ করে যাচ্ছি। কাজ করে যাচ্ছে জেলা পুলিশ সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন।