লকডাউন সিথিল হওয়ায় হারিয়েছে স্বাস্থ্যবিধি, পরিনত হয়েছে জ্যামের নগরী

0
37

ডি এইচ দিলসান : মহামারি করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর বিধিনিষেধে পরিবহন, দোকান-শপিংমল অফিস আদালতসহ ইমাজেন্সি সার্ভিস ছাড়া সব বন্ধ ছিলো। কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ায় সাথে সাথে রাতারাতিই স্বাস্থ বিধী ভুলে যায় যশোরের মানুষ। যদিও বুধবার মধ্যরাত থেকে সারা দেশে চলছে গণপরিবহন। ঈদ ঘিরে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই যশোরের বিভিন্ন বাসস্টান্ড, রেল স্টেশনে বাড়ি ফেরা মানুষের ভিড় দেখা গেছে। এদিকে জ্যামের নগরীতে পরিনত হয়েছিলো গোটা যশোর শহর। সকাল ৯ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত গোটা শহরে মানুষ আর রিক্সা-ইজিবাইকের চাপে তিল পরিনাম ফাকা জায়গা ছিলো না। অন্যদিকে অধিকাংশ মানুষের মুখে ছিলো না মাক্স। আর সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধিও ছিল অনেকটাই উপেক্ষিত।
সকাল থেকে শহরের রেল রোড, এমকে রোড, দড়াটানা, চৌরাস্থা, নিউমার্কেট, মুজিব সড়কসহ বড় বাজার এলাকা ঘুরে প্রায় একই রকম চিত্র পাওয়া গেছে।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহনগুলো চালাচলের কথা বলা হলেও তা উপেক্ষিতই রয়ে গেছে।
এ বিষয়ে চৌরাস্থা এলাকায় কর্মরত একজন ট্রাফিক সার্জেন্ট বলেন, এতো মানুষের চাপ সামলানো আমাদের জন্য খুব কষ্টকর হয়ে পড়েছে। সড়কে ঘরমুখো মানুষের প্রচন্ড ভীড়। সামাজিক দুরত্বও অনেকে মেনে চললেও কেউ কেউ মানছে না।
এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলেন, প্রশাসন আর কি করবে, প্রশাসন সর্বচ্চটা করছে, তিনি বলেন সবার আগে দরকার জনগনের সচেতনতা। তিনি বলেন সচেতনতার কেন বিকল্প নেই।
এর আগে এদিকে ঈদকে সামনে রেখে করোনার উচ্চ সংক্রমণের মধ্যেও চলমান কঠোর বিধিনিষেধ ২৩ জুলাই পর্যন্ত শিথিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। তবে ঈদের পর আবারও ১৪ দিনের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।
এতে বলা হয়েছে- ১৪ জুলাই মধ্য রাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত চলমান বিধিনিষেধ শিথিল করা হলো। একইসঙ্গে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত ফের কঠোর বিধিনষেধ আরোপ করা হয়েছে।
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, পবিত্র ঈদুল আযহা উদ্যাপন, জনসাধারণের যাতায়াত, ঈদ পূর্ববর্তী ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে আরোপিত সকল বিধি-নিষেধ শিথিল করা হলো। তবে এ সময়ে সর্বাবস্থায় জনসাধারণকে সতর্কাবস্থায় থাকা এবং মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে।