লক্ষ লক্ষ বেকারের কর্মসংস্থানের কী হইবে?

0
206

দেশে বর্তমানে পূর্ণকালীন কর্মবঞ্চিত নারী-পুরুষের সংখ্যা ৭১ লক্ষের অধিক। ইহার মধ্যে ১৭ লক্ষ ৫৯ হাজার টিউশনি কিংবা এই ধরনের খণ্ডকালীন কাজ করিয়া থাকে। তবে কাজের সুযোগ না থাকায় বা ব্যক্তিগত সমস্যার কারণে অবশিষ্ট বিশাল জনসমষ্টিই বর্তমানে কোনো কাজের সহিত জড়িত নহে। সম্প্রতি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)-এর সর্বশেষ প্রকাশিত ত্রৈমাসিক শ্রমশক্তি জরিপ ২০১৫-১৬-এর প্রতিবেদন হইতে এই তথ্য জানা যায়। অন্যদিকে বিবিএসের গত বত্সরের প্রতিবেদনে দেশে মোট জনসংখ্যার চার দশমিক তিন শতাংশ বেকার থাকিবার কথা বলা হয়। এই বত্সর তাহা চার দশমিক দুই ভাগে নামিয়া আসিয়াছে। ইহাতে আমাদের সন্তুষ্ট হইবার কথা। তবে বাস্তব পরিস্থিতি বলে ভিন্ন কথা। সামান্য কয়েকটা পদের জন্য এখনো দেশে হাজার হাজার—এমনকি লক্ষাধিক আবেদনপত্রও জমা পড়ে। কেননা, প্রতি বত্সর দেশে সরকারি-বেসরকারি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় হইতে বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী পাস করিয়া বাহির হয়, কিন্তু তাহাদের অধিকাংশেরই কাঙ্ক্ষিত কর্মসংস্থানের সুযোগ হয় না। উপরন্তু কর্মবাজারে চাকরিপ্রার্থীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় সরকারি-বেসরকারি উভয় চাকরিতেই আজ দুর্নীতি ও অনিয়ম বৃদ্ধি পাইয়াছে আশঙ্কাজনকভাবে।

জানা যায়, বাংলাদেশের শ্রমবাজারে প্রতি বত্সর প্রায় ২৭ লক্ষ মানুষ ঢুকিয়া থাকে। তাহাদের মধ্যে সরকারি বা বেসরকারি খাতে এক লক্ষ ৮৬ হাজার মানুষকে কাজ দেওয়া সম্ভব হয়। বাকিরা বলা যায় বেকারত্বের খাতাতেই নাম লিখায়। বিষয়টি নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। কারণ বাংলাদেশকে বলা হয় অমিত সম্ভাবনার দেশ। ইতোমধ্যে আমরা নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হইয়াছি। উপরন্তু শ্রমের দাম কম হইবার কারণে এবং ১৬ কোটি মানুষের বিশাল একটি বাজার থাকায় বিদেশি বিনিয়োগকারীদেরও এই দেশ সম্পর্কে আগ্রহের অভাব নাই। তবে গ্যাস-বিদ্যুত্সহ অবকাঠামোগত নানা সমস্যার কারণে তাহারা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে প্রায়শই সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগিয়া থাকে। প্রযুক্তিগত পশ্চাত্পদতা ও নানান প্রতিবন্ধকতার কারণে দেশি বিনিয়োগকারীরাও শিল্পে প্রয়োজনীয় গতি সঞ্চার করিতে ব্যর্থ হইতেছেন। সব মিলাইয়া ক্রমশই দেশে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্র সংকুচিত হইতেছে বলা যায়।

অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন বলি, আর দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে যাওয়ার কথাই বলি—ইহা এই বিশাল কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীকে কর্মহীন রাখিয়া বাস্তবায়ন করা আদৌ সম্ভব নহে। তাহা ছাড়া দেশকে মধ্যম আয়ের দেশের সারিতে উন্নীত করিতে কেবল আশাবাদ ও উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা থাকিলেই চলিবে না, ইহাকে বাস্তবসম্মত ও কর্মসৃজনযোগ্যও করিতে হইবে। ইহার জন্য বিদ্যমান শিক্ষা ব্যবস্থাকে কর্মমুখী করাও জরুরি। কেননা, মোটা দাগে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা যুবশক্তির অন্তর্নিহিত মেধা বা শক্তির বিকাশ ঘটাইয়া তাহাদেরকে বর্তমান বাজার অনুযায়ী দক্ষ করিয়া তুলিতে সক্ষম নহে। উপরন্তু সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে মোট অনুমোদিত পদের বিপরীতে যেই কয়েক লক্ষ পদ শূন্য আছে, তাহা সর্বাগ্রে পূরণ করিবার দাবিও অন্যায্য নহে। দেশ উন্নতি লাভ করিতেছে বিধায় প্রয়োজনে সেইসব পদের সংখ্যা বাড়ানোও অযৌক্তিক হইবে না। অন্যদিকে বেসরকারি খাতে কর্মসংস্থান বাড়াইতে জ্বালানি ও অবকাঠামোগত প্রতিবন্ধকতা দূর করার পাশাপাশি শিল্পোন্নয়নসহ সার্বিকভাবে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশের উন্নতি সাধনও প্রয়োজন। সর্বোপরি, বহির্বিশ্বে শ্রমশক্তি রপ্তানির ব্যাপারে আরো পরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহণ করা আবশ্যক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here