লন্ডন ব্রিজে হামলাকারী তৃতীয় ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ

0
232

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক: লন্ডন ব্রিজে হামলাকারী তৃতীয় ব্যক্তির নাম-পরিচয় আজ মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে পুলিশ। এর আগে গতকাল সোমবার তারা দুই হামলাকারীর নাম প্রকাশ করে। তাদের অন্তত একজনের উগ্রবাদী আচরণ সম্পর্কে আগে থেকেই জানত পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার তৃতীয় যে হামলাকারীর নাম-পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে, তিনি হলেন মরক্কো-ইতালি বংশোদ্ভূত ইউসুফ জাগবা। এর আগে সোমবার দুই হামলাকারীর নাম প্রকাশ করা হয়। তাঁদের মধ্যে ২৭ বছর বয়স্ক খুরাম বাট পাকিস্তানে জন্ম নেওয়া ব্রিটিশ নাগরিক। তিনি পরিবার নিয়ে পূর্ব লন্ডনের বার্কিং এলাকায় থাকতেন বহু বছর ধরে। আরেক হামলাকারীর নাম রশিদ রেদুয়ান। বয়স ৩০ বছর। তিনি মরক্কো-লিবিয়া বংশোদ্ভূত। অন্যজনের নাম অবশ্য জানানো হয়নি।

এ ছাড়া ওই হামলায় নিহত আরেক ব্যক্তির পরিচয় জানা গেছে। তিনি হলেন অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক কার্স্টি বোডেন। তাঁর পরিবার জানিয়েছে, ওই হামলার সময় তিনি লন্ডন ব্রিজে মানুষকে সাহায্য করার জন্য ছোটাছুটি করছিলেন।

এক বিবৃতিতে বোডেনের পরিবার জানিয়েছে, তিনি ছিলেন ‘বহির্মুখী, দয়ালু ও উদার প্রকৃতির মানুষ।। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘কার্স্টির সাহসে আমরা গর্বিত। হামলার সময় কার্স্টির ভূমিকা এটাই তুলে ধরে যে তিনি কতটা নিঃস্বার্থ ও যত্নশীল মানুষ ছিলেন।’

স্থানীয় সময় গত শনিবার রাত ১০টার পর ব্যস্ত লন্ডন ব্রিজ এলাকায় গাড়িচাপা দিয়ে এবং এর অদূরে একটি মার্কেটে ছুরি হামলা চালান তিনজন। এতে ৭ জন নিহত ও ৪৮ জন আহত হন। পরে তিন হামলাকারীই পুলিশের গুলিতে নিহত হন।

যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা (এনএইচএস) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আহত ৩৬ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ১৮ জনের অবস্থা গুরুতর।

অন্তত এক হামলাকারী সম্পর্কে পুলিশকে আগে সতর্ক করার কথা প্রকাশ পাওয়ার কারণে এ হামলা ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যর্থতার প্রশ্নটি বড় হয়ে উঠেছে। তবে তদন্ত সংস্থা স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড ও এমআই-৫ জানিয়েছে, খুরাম বাট সম্পর্কে আগে থেকেই জানত তারা। তবে তিনি এ ধরনের হামলা চালাতে পারেন, এমন কোনো গোয়েন্দা তথ্য ছিল না।

লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, হামলাকারীরা কোনো বৃহত্তর নেটওয়ার্কের অংশ কি না, সে প্রশ্ন মাথায় রেখে তদন্ত চলছে।

এ হামলায় অভিযুক্ত ২৭ বছর বয়সী খুরাম বাটের বিষয়ে ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফুটবল খেলতে গিয়ে স্থানীয় তরুণদের উগ্রবাদে দীক্ষা দিতেন তিনি। বিষয়টি এলাকাবাসী একাধিকবার পুলিশকে জানিয়েছিলেন। এ ছাড়া দুই বছর আগে চ্যানেল ফোরে প্রচারিত ‘দ্য জিহাদিস নেক্সট ডোর’ নামের প্রামাণ্যচিত্রে ওই হামলাকারীকে দেখানো হয়। এতে দেখা যায়, স্থানীয় রিজেন্ট পার্কে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের পতাকা তোলা নিয়ে তিনি পুলিশের সঙ্গে তর্ক করছেন। দুই সন্তানের জনক এই হামলাকারী পূর্ব লন্ডনের বার্কিং এলাকায় স্ত্রী ও মাকে নিয়ে বাস করতেন।

ওই হামলাকারীর এক বন্ধু বিবিসিকে বলেন, ‘দুই বছর ধরে সে বদলে যাচ্ছিল। আমরা তার উগ্রবাদী চিন্তার বিষয়ে পুলিশকে জানিয়েছি। কিন্তু পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করেনি।’

এর আগে অভিযোগ ওঠে, ম্যানচেস্টারে হামলাকারী সালমান আবেদির বিষয়ে পুলিশকে বারবার জানানো হয়েছিল, কিন্তু পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, উগ্রবাদী হিসেবে অভিযোগ পেলেই কাউকে সম্ভাব্য হামলাকারী হিসেবে ধরে নেওয়া যায় না। ব্রিটিশ পুলিশকে অন্তত ৫০০ সম্ভাব্য হামলাকারীর ওপর সব সময় নজর রাখতে হচ্ছে। আরও ২৩ হাজার লোক আছে তাদের নজরদারির তালিকায়।

সাধারণ নির্বাচনের মাত্র চার দিন আগে ঘটা এই ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার কারণে রোববার বন্ধ ছিল নির্বাচনী প্রচারণা। গতকাল সোমবার সকাল থেকে আবার প্রচারে নামে দলগুলো। স্বাভাবিক কারণেই শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় প্রাধান্য পাচ্ছে সন্ত্রাসবাদ বন্ধে দলগুলোর অবস্থান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here