লাগে টাকা দেবে গৌরী সেন!

0
310

বাংলাদেশে সরকারি উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সমন্বয় ও পরিকল্পনার অভাব নিয়ে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সংশ্লিষ্ট অনেক প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ কিছুতেই যেন বিষয়টি আমলে নিতে চায় না। এর কারণ কি যথেষ্ট যোগ্যতা না থাকা কিংবা সংকীর্ণ ব্যক্তি বা গোষ্ঠীস্বার্থ? বুধবার সমকালে ‘মেট্রোরেল প্রকল্প জেনেও নিচে লাইন বসিয়েছিল পিজিসিবি’ শিরোনামের প্রতিবেদন এ প্রশ্ন নতুন করে সামনে নিয়ে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থেকে রোকেয়া সরণি হয়ে পল্লবী পর্যন্ত সড়কটি খুঁড়ে তছনছ করা হয়েছে। মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস, টেলিফোন প্রভৃতি সেবা সংস্থার পাইপলাইন সরানোর কাজ চলছে। এর মধ্যে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি বাংলাদেশের (পিজিসিবি) বিদ্যুৎ লাইন স্থানান্তর কাজও হচ্ছে। অথচ এই বিদ্যুতের লাইনটি বসানো হয়েছিল মাত্র চার বছর আগে, যখন এই অ্যালাইনমেন্ট দিয়ে মেট্রোরেল যাওয়া স্থির হয়ে গিয়েছিল। এটা জানা যে, ভূগর্ভে বিদ্যুতের লাইন রেখে ভূপৃষ্ঠে তার ওপর দিয়ে মেট্রোরেল স্থাপন করা সম্ভব নয়। রেলপথের পিলারের জন্য নির্দিষ্ট স্থানেই বসেছে এ লাইন। তাহলে কেন বিপুল ব্যয়ে এ লাইন বসানো হলো? আর কেনই-বা এখন বিপুল অর্থ ব্যয়ে এ বিদ্যুৎ লাইন স্থানান্তর করা হচ্ছে? এতে একদিকে সরকারের অর্থদণ্ড যাচ্ছে, অন্যদিকে মেট্রোরেল স্থাপনের কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। খোঁড়াখুঁড়ির কারণে তীব্র জনভোগান্তি তো আছেই। পিজিসিবির অদূরদর্শিতাকে এ জন্য দায়ী করা যায়। এর পেছনে কি যতবার কাজ ততবার কমিশন- এমন মনোভাব কাজ করেছে? সমকালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদ্যুতের লাইনগুলো ৫-৭ ফুট দূরে স্থাপন করা যেত। কিন্তু সেটা হয়নি। মেট্রোরেল প্রকল্পের সঙ্গে যুক্তরাও বিদ্যুৎ লাইন স্থাপনের কাজে আপত্তি দিতে পারত। কিন্তু সেখানেও তো মধুলোভী চক্র থাকতে পারে! মেট্রোরেলের টেকনিক্যাল কমিটি বিভিন্ন সেবা সংস্থার লাইন স্থানান্তরে এক হাজার ২০০ কোটি টাকার বাজেট নির্ধারণ করে। এর মধ্যে পিজিসিবির লাইন স্থানান্তরে ব্যয় ধরা হয় প্রায় ৬৩ কোটি টাকা। এ অর্থ ব্যয় করে পিজিসিবির লাইন যেখানে ছিল তা থেকে মাত্র ৫ ফুট সরিয়ে স্থাপন করা হয়েছে। বাংলা ভাষায় প্রবাদ আছে, লাগে টাকা দেবে গৌরী সেন। কিন্তু এভাবে অপচয় করা অর্থের দায়ভার যে শেষ পর্যন্ত জনগণের কাঁধে চাপে! কেউ কি তা দেখার নেই?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here