লোডশেডিং এর লুকোচুরির আজব ফ্রেমের খেলা

0
272

নিজেস্ব প্রতিবেদক : আকাশে মেঘের ঘনঘটা,একটু দমকা কিংবা একটু ঝড়ো বাতাস,কিংবা যদি দেখা মেলে একটু বৃষ্টি।শুরু হয়ে যায় বিদ্যুৎ  বিভাগের লুকোচুরি লোডশেডিং এর আজব লীলাখেলা খেলা।স্হায়ী যে কত সময় বলা মুশকিল।
এ অবস্হা বেনাপোল শার্শা, বাগআঁচড়া,সহ সব এলাকা।এ যেন চিরচারিত নিয়মের ফ্রেমে এক আজব খেলা।

শার্শা বেনাপোল, বাগআঁচড়া সহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ে চরম বিপাকে পড়েছে মিল,কলকারখানা,অটো মিল, মাছ চাষি সহ বিদ্যুৎ নির্ভর হাজারো ব্যবসায়ীরা সমাজ।পাশাপাশি স্কুল।কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীরা তো আরো বেকায়দায় পড়ে যায়।বিষয় দেখভালের কেহ আছে বলে মনে হয়না।

শার্শা উপজেলা মৎস্য চাষের এক প্রাচুর্যময় এলাকা। এখানে হাওড়, বাঁওড়, পুকুর ও বিল,জলাশয়ে এলাকায় বিভিন্ন প্রজাতির মাছ  বানিজ্যক ভাবে উৎপাদন হয়। কিন্তু নেই হিমাগারের কোন ব্যবস্থা। পাশাপাশি এখন চলছে বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিং। এতে চরম বিপাকে পড়ছেন মাছ চাষি ও ব্যবসায়ীরা।
জানা গেছে, উপজেলায় ৬ হাজার ২৩৯ হেক্টর জলাশয় রয়েছে। পুকুর, বিল ও ১৫টি বাঁওড়সহ ৫ হাজার ৩শ’ ২৯ হেক্টর জলাশয়ে মাছ চাষ হয়। এ উপজেলার ৩ হাজার ১শ’ মৎস্য চাষি ও ২ হাজার ৪শ’ নিবন্ধিত মৎস্যজীবী রয়েছে। অর্ধলক্ষাধিক মানুষের মাছ চাষের ওপর জীবন জীবিকা নির্ভর করে। ২০১৬ সালে এ উপজেলার ২১ হাজার মেট্রিক টন মাছ উৎপাদন হয়েছে। চাহিদা মিটিয়ে ১৩ হাজার ৫শ’ মেট্রিক টন মাছ উপজেলার বড় মোকাম হিসেবে পরিচিত নাভারণ, বাগআঁচড়া ও বেনাপোল বাজার থেকে ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছে। যার মূল্য ২৭০ কোটি টাকা। ভারত, নেপাল ও ভুটানেও যাচ্ছে এলাকার মাছ। সীমান্তবর্তী শার্শা উপজেলায় বিপুল পরিমাণ মাছ উৎপাদন হলেও নেই কোন হিমাগার। বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিং এ চরম বিপাকে পড়েছে এলাকার মাছ চাষি ও ব্যবসায়ীরা। এ এলাকায় বিরতিহীন বিদ্যুৎ সরবররাহ ও হিমাগারের ব্যবস্থা করা হলে মাছের উৎপাদন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেতো। আর মাছ রপ্তানি করে আরও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হতো বলে মাছ চাষি ও ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।
উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল হাসান বলেন, বিশ্বে মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ চতুর্থ স্থানে রয়েছে। মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য বিল নার্সারী স্থাপন। বিল নার্সারীর মাধ্যমে বিল, বাঁওড় ও পুকুর জলাশয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি। উন্মুক্ত জলাশয়ে পোনা মাছ অবমুক্তকরণ। চাষিদের পরামর্শ প্রদানসহ সভা-সেমিনার করা হচ্ছে। উপজেলায় কোন হিমাগার নেই। হিমাগার থাকলে চাষি ও ব্যবসায়ীরা উপকৃত হতো বলে সচেতনমহল মনে করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here