লোহাগড়ায় পিআইও’র শাস্তিমূলক বদলি চায় সরকারি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ

0
53

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় অফিস সহকারীকে অশালিন ভাষায় গালাগালিসহ ব্যক্তিগত কাজে বাধ্য করায় ‘সরকারি কর্মচারী আচরণ বিধিমালা’ ভংঙ্গের অভিযোগে একজন কর্মকর্তার শাস্তিমুলক বদলির দাবীতে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন উপজেলা সরকারি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ। অভিযুক্ত এই কর্মকর্তার নাম এসএমএ করিম। তিনি লোহাগড়া উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা।
জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এসএমএ করিম প্রতিনিয়ত অফিস সহকারী জিয়াউর রহমানকে দিয়ে ব্যক্তিগত কাজ করাতে বাধ্য করেন। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কথায় কথায় অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করেন। এমনকি ‘কুত্তার বাচ্চা’ বলেও গালিগালাজ করেন। তিনি নিয়মিত অফিস করেন না, ফলে জরুরী অনেক কাজ পেন্ডিং থাকে। আর যে সব কাজে অনৈতিক সুবিধা পান সেইসব কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকেন।
এ ঘটনায় গত রবিবার উপজেলা সরকারি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ এক জরুরী সভায় অধিনস্ত কর্মচারীকে অশালীন ভাষায় গালাগালির কারনে পিআইও এসএমএ করিমকে উপজেলা থেকে প্রত্যাহার করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর সুপারিশসহ কার্যবিবরনীর কপি প্রেরণ করা হয়। অবিলম্বে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা করিমকে শাস্তিমূলক বদলীর দাবি জানান। এ বিষয়ে ন্যায় বিচার না পেলে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর লাগাতার কর্মবিরতি পালন, পিআইওকে অবাঞ্চিত ঘোষনা, মানববন্ধনসহ কঠিন কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে জানান। সভায় উপজেলার ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির ৫৩ জন কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।
এ ছাড়া পিআইও করিমের অনৈতিক আচারণ, টিআর কাবিখা ও ৪০ দিনের কর্মসৃজন প্রকল্প থেকে টাকা নেওয়া, মানসিকভাবে অসুস্থ্য থাকা, সাধারণ মানুষের সাথে খারাপ আচারন করায় লোহাগড়া উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যানগণ গত ২৮ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় এমপিসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেন।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এসএমএ করিম বলেন, ‘কিছু লোক ষড়যন্ত্র করে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here