লোহাগড়ায় সাংবাদিকের নামে মিথ্যা মামলা উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে

0
737

নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের লোহাগড়া রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক সকালের খবরের লোহাগড়া প্রতিনিধি এসএম আলমগীর কবিরের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। লোহাগড়ার গোপিনাথপুরের নাসরিন সুলতানা দিপা বাদী হয়ে গত ২ মে এ মামলা দায়ের করেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, সাংবাদিক এসএম আলমগীর কবির গত ৩০ মে লোহাগড়ার মদিনাপাড়ার একটি বাড়িতে মামলার বাদী দিবাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করেছেন এবং টাকা দাবি করেন। এক পর্যায়ে একটি অনলাইন পত্রিকায় দিপা ও তার পরিবারকে জড়িয়ে খবর প্রকাশ করেন।
এদিকে, প্রকৃত ঘটনা আড়াল করে নাসরিন সুলতানা দিপা উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন লোহাগড়া রিপোর্টার্স ইউনিটি’র সাংবাদিকবৃন্দ। সাংবাদিকরা জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দিপা (২৪)কে তার স্বামী তাকে মধ্যযুগীয় ভাবে আয়রণ দিয়ে স্যাকা এবং লোহার রড় দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করে। এ সময় এলাকাবাসী দিপাকে উদ্ধার করে স্থানীয় বৈদ্যনাথ ক্লিনিকে ভর্তি করে। বিষয়টি জেনে সাংবাদিক আলমগীর কবির পেশাগত কাজে এগিয়ে যান। পরবর্তীতে প্রকৃত ঘটনা পাশ কাটিয়ে কিছু লোকের প্ররোচণায় দিপা সাংবাদিকের নামে চাঁদাবাজি ও শ্লীলতহানির দোষারোপ করে।
এলাকাবাসী জানান, রোববার (৩০ এপ্রিল) সকালে লোহাগড়া পৌরসভার গোপিনাথপুর গ্রামের মৃত বিল্লাল সরদারের ছেলে খালিদ সরদার ছোটন (৩০) তার স্ত্রী ১ সন্ত্রানের জননী নাসরিন সুলতানা দিপাকে নিয়ে পাশ^বর্তী মদিনা পাড়ায় বোন ইতি বেগমের বাসায় বেড়াতে যায়। বিকালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই বোনের বাসায় খালিদ তার স্ত্রীর ওপর চড়াও হয়ে ঘরের দরজা বন্ধ করে আয়রণ দিয়ে স্যাকা দেয় ও লোহার রড় দিয়ে বেধড়র মারপিট করতে থাকে। এ সময় দিপার আত্মচিৎকারে এলাকাবাসী ছুটে এসে ঘরের দরজা ভাঙ্গার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে দিপা ঘরের মধ্যে অজ্ঞান হয়ে পড়লে খালিদ তার স্ত্রী দিপাকে আয়রণের তার গলায় জড়িয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে মেরে ফেলার চেষ্ঠা চালায়। পরে এলাকাবাসী কৌশলে আহত গৃহবধুকে উদ্ধার করে স্থানীয় বৈদ্যনাথ ক্লিনিকে ভর্তি করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here