শংকরপুর চাঞ্চল্যকর আফজাল হত্যা মামলায় প্রধান আসামি টেরা সুজন ও শুভর জবানবন্দি

0
39

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর শহরের শংকরপুর চাতালের মোড়ে আফজাল শেখ হত্যা মামলার প্রধান আসামি টেরা সুজন আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন। সুজন নীলগঞ্জ তাঁতীপাড়ার জিন্নাত আলীর ছেলে। এছাড়া এ মামলায় সন্ধিগ্ধ আরও এক আসামিকে আটক করেছে সিআইডি পুলিশ। আটক জুম্মাতুল ইসলাম শুভ বারান্দিপাড়া ২ নং কলোনীর নুর ইসলামের ছেলে। শুক্রবার সকালে নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার রিমান্ড ফেরত সুজন ওরফে টেরা সুজন ও আটক শুভকে আদালতে সোপর্দ করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের এসআই রফিকুল ইসলাম। দুই আসামি আদালতে স্বিকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সালমান আহমেদ শুভ আসামিদের জবানবন্দি গ্রহন শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
আদালত সূত্র জানায়, আসামিরা জবানবন্দিতে জানিয়েছে নিহত আফজালের সাথে আসামি টেরা সুজনের বন্ধুত্বর্পূর্ন সম্পর্ক ছিলো। একসাথেই তারা নানা ধরণের অপরাধমুলক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকতেন। এরমাঝে ২০২০ সালে আফজাল টেরা সুজনকে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছুরিকাঘাত করে জখম করে । দির্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন সুজন। একপর্যায় সুস্থ হয়ে উঠে কিন্তু আফজাল তাকে ফের সুজনকে হত্যার পরিকল্পনা করে। পালিয়ে বেরায় সুজন। পরে সুজনও আফজালকে হত্যার পরিকল্পনা করে। ২৯ মে আফজাল শংকরপুরের জিরোপয়েন্ট থেকে দুধ কিনে বাড়ি ফিরছিলেন। এমন সময় টেরা
সুজনের নেতৃত্বে অন্য আসামিরা আফজালকে কুপিয়ে জখম করে।
এদিকে, এ ঘটনায় নিহতের পিতা সলেমান শেখ বাদী হয়ে টেরা সুজনসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে কোতয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এ মামালায় বিভিন্ন সময়ে আটক ও আত্মসমর্পন কারী টেরা সুজন, জাহিদ, মিলন ও বিপ্লব গাজীর পাঁচদিন করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। মঙ্গলবার আসামিদের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে বিচারক টেরা সুজনের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর ও বাকিদের রিমান্ড নামঞ্জুরের আদেশ দিয়েছেন। পরে সিআইডি পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে ট্যারা সুজন স্বিকার করে এ হত্যার সাথে শুভও ছাড়া আরও অনেকেই জড়িত রয়েছে। সেই সুত্র ধরে শুভকে আটক করে দুই আসামিকে আদালতে সোপর্দ করে। আদালত তাদের জবানবন্দি গ্রহন শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।