শততম টেস্টে স্মরণীয় জয়

0
298

নিরানব্বইতম টেস্টে অপ্রত্যাশিতভাবে হারিয়া যাওয়ার পর আমরা এক সম্পাদকীয়তে আশাবাদ ব্যক্ত করিয়াছিলাম যে, বাংলাদেশ তাহাদের শততম টেস্টে ঘুরিয়া দাঁড়াইবে। আমাদের ক্রিকেটারদের মুখেও ছিল একই কথা। অবশেষে আমাদের দামাল ছেলেরা সেই কথা রাখিয়াছেন। তাহারা সত্যি সত্যিই ঘুরিয়া দাঁড়াইয়াছেন এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বো টেস্টে জয়লাভ করিয়াছেন ৪ উইকেটের ব্যবধানে। এভাবে শততম ওয়ানডের পর শততম টেস্টেও অবিস্মরণীয় জয়ের দেখা পাইল বাংলাদেশ। ইহার মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তানের পর ইতিহাসের চতুর্থ দল হিসাবে শততম টেস্ট জিতিল বাংলাদেশ। দেশের বাহিরে চতুর্থ এবং সব মিলাইয়া ইহা আমাদের নবম টেস্ট জয়। এই জয়ে শ্রীলঙ্কার সহিত দুই টেস্টের সিরিজে সমতা আনিল মুশফিকুর রহিমের দল। স্মরণীয় এই জয়ে আমরা ক্রিকেটার, কোচ, ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

টেস্টের পঞ্চম দিনে জয়ের জন্য বাংলাদেশের টার্গেট ছিল ১৯১ রান। শ্রীলঙ্কা দুই উইকেট হাতে নিয়াও যেভাবে লড়াই করিয়াছে তাহা সমীহ জাগাইবার মতো। তাহাছাড়া ইহার চাইতেও কম রানে ভারত-পাকিস্তানের মতো শক্তিশালী দলকে আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধিয়া ফেলিবার রেকর্ড ছিল শ্রীলঙ্কার। এখানেই আশঙ্কা ছিল অনেকের। তবে কয়েকবার চাপে পড়িলেও ভারত ও পাকিস্তানের মতো ভাঙিয়া পড়ে নাই বাংলাদেশ। শততম এই জয়ে সাকিব আল হাসানের অলরাউন্ডিং নৈপুণ্য (সেঞ্চুরি ও ৬ উইকেট), মুস্তাফিজুর রহমান ও মিরাজের দুর্দান্ত বোলিং এবং মোসাদ্দেক, মুশফিক, সৌম্য ও তামিমের গুরুত্বপূর্ণ ফিফটি এই টেস্ট জয়ে পালন করিয়াছে অনন্য ভূমিকা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং লাইনে চালকের আসনে ছিলেন তামিম ইকবাল। দুই ইনিংসে তাহার মোট রান ১৩১। অর্থাত্ তাত্পর্যপূর্ণ এই জয়ের পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করিয়া তামিম গতকাল তাহার জন্মদিনটিও স্মরণীয় করিয়া রাখিয়াছেন।

সামপ্রতিককালে নিউজিল্যান্ড ও ভারত সফরে বাংলাদেশ প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলিতে পারে নাই। কিন্তু শক্তিশালী দলগুলির বিরুদ্ধে টেস্টেও যে তাহারা ভালো খেলিবার সামর্থ্য রাখেন, কলম্বো টেস্টে আমাদের ক্রিকেটাররা তাহারই স্বাক্ষর রাখিলেন। ইহার মাধ্যমে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাহাদের মাটিতে প্রথম টেস্ট জয়লাভ করিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশের অতীত পরিসংখ্যান বলিতেছে, চতুর্থ ইনিংসে দুইশত রানের নীচে রান তাড়া করা টেস্টগুলিতে হয় জয় আসিয়াছে কিংবা সেই ম্যাচ হইয়াছে ড্র। তবে এবার জয়ই আমাদের সঙ্গী হইয়াছে। শততম টেস্টের এই জয়ে ক্রিকেটপাগল দেশবাসী যারপরনাই আনন্দিত ও উদ্বেলিত। আমরা আশা করি, এই জয়লাভের মাধ্যমে আমাদের ক্রিকেটারদের মনোবল আরও বাড়িয়া যাইবে। তাহারা অন্তত জিতিতে জিতিতে আর হারিবেন না। মানসিক চাপ মোকাবিলায় আরও দৃঢ়তার পরিচয় দিবেন। টেস্টে তাহাদের ফিনিশিংয়েও পরিপক্বতা আসিবে। শ্রীলঙ্কার সহিত পরবর্তী ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজেও আমরা তাহাদের সাফল্য কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here