শতফুলের যশোরের জেলা প্রশাসকের বিদায়

0
49

ডি এইচ দিলসান : জেলা প্রশাসক (ডিসি) আসবেন, যাবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু, সে জেলা প্রশাসক যদি হন মানবিক, সামাজিক, ক্রীড়া প্রেমী একাধারে সাংস্কৃতিজন তখন জেলার মানুষের মনে দাগ কেটে যায়। আর যার কারনে সম্ভাবত এত বেশি ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয়ে যশোরের সংস্কৃতিক জনদের কাছথেকে বিদায় নিলেন তিনি। বলছি যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের কথা। নতুন কর্মস্থলের জন্য তাঁর প্রস্থান মেনে নিতে পারছেন না জেলাবাসী। মেনে নিতে পারেননি জেলা প্রশাসকও। আর তাইতো চোখের জলে ভাসতে থাকেন তিনিও। তেমনই একজন যশোরে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান।
২০২০ সালের ৮ই জুলাই যশোর কালেক্টরেটের ১৩৩তম জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদান করেন তমিজুল ইসলাম খান। আগামী ২৪ জুলাই ৩ বছর ১৭ দিন পর যশোর তেকে বিদায় নিয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের উপ-সচিব হিসাবে যোগদান করবেন।
যশোরে যোগদানের পর বিভিন্ন সময়াপযোগী কার্যক্রমের ফলে পাল্টে গেছে জেলার সার্বিক চিত্র। যোগদান করে প্রথমেই তিনি গুরুত্ব দিলেন সরকারি দপ্তর সমূহের মধ্যে সমন্বয় ও গতিশীলতা বৃদ্ধির দিকে। নজর দিলেন প্রশাসনিক কাজে স্বচ্ছতা আর সহকর্মীদের জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠান। নাগরিকদের কাংখিত সেবা প্রাপ্তির পরিবেশ সৃষ্টিতে জনবান্ধব প্রসাসন গড়ে তুলতে জোড়ালো ভূমিকা রাখলেন। তার কার্যালয়ে সেবা প্রত্যাশিদের সহজ প্রবেশাধিকার জনতুষ্ঠির অন্যতম একটি দিক।পদক্ষেপ নিলেন সরকারি অর্থের অপচয় রোধ ও আর্থিক শৃংখলার প্রতি। জেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে নজর রাখা, সদর হাসপাতালে চিকিৎসকদের নিয়মিত চিকিৎসা প্রদান করার তদারকি, জেলার গরীব ও দুঃখী মানুষের জন্য গণশুনানি, স্কুল-কলেজগুলোতে আকষ্মিক পরিদর্শন, বঙ্গবন্ধু জীবনী, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রকাশনা , সরকারী বালক বালিকা স্কুলে ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু সুন্দরভাবে সম্পন্ন করা, প্রতিটি অফিসে সেবার মান বৃদ্ধি এবং ভোগান্তি কমানো, মুজিব বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে মাসব্যাপী সাংস্কৃতিক পরিবেশনা ও আলোচনা সভা, জেলায় গৃহহীন মুক্তিযোদ্ধাদের ও প্রকৃত গৃহহীনদের মধ্যে গৃহপ্রদান, সরকারি বিভিন্ন চলমান প্রকল্প অগ্রগতি পর্যালোচনা, জেলার অধিকাংশ জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, প্রকৃত কৃষকের মধ্যে উপকরণ বিতরণ, বৃক্ষরোপণ অভিযান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মিড ডে মিল চালু, প্রকৃত হতদরিদ্রদের কাছে সেবা পৌঁছে দেওয়া হাট বাজারগুলো আধুনিক করা, স্থানীয় সরকার বিভাগের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা বজায় রাখা, প্রকৃত ভূমিহীনদের মধ্যে খাস জমি বন্টন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে উজ্জিবীত করে যুবসমাজ ও সামাজিক সংগঠন সমূহকে ব্যাপকভাবে সহায়তা করা ও আপন করে নেওয়া জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসল খান জেলার সকলের কাছে হয়ে উঠেছিলেন আস্থাভাজন জেলা প্রশাসক আর জনবান্ধব মাঠ প্রশাসনের অনন্য প্রতীক। একজন ‘মানবিক জেলা প্রশাসক’ হিসাবে পরিচিতি নিয়েই বিদায় নিলেন ।
গতকাল যশোরের সকল সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বিদায় অনুষ্ঠানে চোখে ছিলো পানি, তবুও স্নিগ্ধ হাসি দিয়ে জেলা সকলের কাছ থেকে বিদায় নিলেন তিনি।

বিদায় কালে তিনি বলেন, ভালো থাকুক যশোর জেলার প্রতিটি মানুষ। আমার কর্মজীবনে সেরা সঞ্চয় পেয়েছি আপনাদের ভালোবাসা। সরকারি কর্মচারী হিসেবে বদলিজনিত কারণে কোনো জেলায় স্থায়ী হওয়ার সুযোগ নেই প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের । জেলায় কর্মরত অবস্থায় সহকর্মী, জনপ্রতিনিধি, সাংস্কৃতিক কর্মী, সাংবাদিকসহ সকলের কাছ থেকে অনেক রকমের সহয়তা আমি পেয়েছি। এত ভালোবাসা আপনারা আমাকে দিয়েছেন এটা আমি কথনো ভুলবো না। তবে নিজের অজান্তেও যদি কাউকে কষ্ট দিয়ে থাকি, কারো প্রতি অন্যায় করে থাকি তাহলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। বিদায়বেলায় উপস্থিত বেশির ভাগ মানুষের চোখেই ছিলো জল। আবেগ থামাতে না পেরে কেঁদে ফেলেন অনেকেই। তৈরি হয় এক আবেগঘন পরিবেশ।
অনুষ্ঠানে দিপংকার দাস রতনের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যশোর ইনস্টিটিউটের সাধারন সম্পাদক ডাক্তার আবুল কালাম আজাদ লিটু,প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক মাহামুদ হাসান বুলু, সহ সভাপতি ফারাজি আহমেদ সাইদ বুলবুল, যশোর সাংস্কৃতিক জোটের সাধারন সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলুসহ জেলার সকল সংগঠনের নেতৃবিন্দরা। অনুষ্ঠান শেষে সকল সংগঠন জেলা প্রশাসককে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন।

উল্লেখ্য পিরোজপুরের সন্তান তমিজুল ইসলাম খান এর আগে সহকারী কমিশনার ও ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। এরপর তিনি উচ্চতর প্রশিক্ষণে জাপানে যান। প্রশিক্ষণ শেষ করে বরিশালের হিজলা উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে যোগদান করেন। পরে পদোন্নতি পেয়ে কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কিশোরগঞ্জ থেকে ফরিদপুরে তিনি যোগ দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে। ফরিদপুর থেকে ফিরে যান অর্থ মন্ত্রণালয়ে। সেখান থেকে আইন মন্ত্রণালয় হয়ে সর্বশেষ যুক্ত ছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ, পদোন্নতি ও প্রেষণ অনুবিভাগে।