শতবর্ষী জব্বারের বলীখেলা

0
280

গত মঙ্গলবার বন্দরনগরী চট্টগ্রামে সাড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হইয়া গেল জব্বারের বলীখেলার ১০৮তম আসর। শতবর্ষ আগে, ১৯০৯ সালে, ব্রিটিশশাসিত পরাধীন ভারতে একটি বিশেষ উদ্দেশ্যকে সামনে রাখিয়া স্থানীয় বকশিরহাটের ব্যবসায়ী আবদুল জব্বার সওদাগর এই বলীখেলার সূচনা করিয়াছিলেন। সেই উদ্দেশ্যটি ছিল তরুণদের ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ করা এবং শারীরিক ও মানসিকভাবে তাহাদের উজ্জীবিত করিয়া তোলা। তাহার সেই অভিপ্রায় শুধু যে সফল হইয়াছে তাহাই নহে, বরং কালের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হইয়া ডালপালা বিস্তার করিয়া তাহা আজ পরিণত হইয়াছে বিশাল এক মহীরুহে। তাহার তাত্ক্ষণিক উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, শতবর্ষের ব্যবধানে অনুষ্ঠিত এইবারের বলীখেলায়ও দেশের বিভিন্ন স্থান হইতে এই খেলায় অংশগ্রহণের জন্য স্বেচ্ছায় ছুটিয়া আসিয়াছেন ৮০ জন ‘বলী’ বা কুস্তিগীর। যথারীতি মানুষের ঢল নামিয়াছে। হাজার হাজার মানুষ এই খেলা উপভোগ করিয়াছেন। প্রযুক্তি ও যন্ত্রশাসিত এই যুগে যখন মানুষের দম ফেলিবারও অবকাশ নাই, এমন একটি প্রেক্ষাপটে শতবর্ষী জব্বারের বলীখেলার প্রতি সর্বস্তরের মানুষের বিপুল আগ্রহ নিঃসন্দেহে খুবই তাত্পর্যবহ।

কী সেই তাত্পর্য? এককথায় তাত্পর্য বহুমাত্রিক আর তাহার মর্ম অনুধাবন করিতে হইলে শুধু বলীখেলা নহে, এই বলীখেলাকে কেন্দ্র করিয়া বৈশাখ মাসে নগরীর কেন্দ্রস্থল লালদীঘির মাঠে তিনদিনব্যাপী যে বর্ণাঢ্য লোকজ মেলা আয়োজিত হইয়া আসিতেছে সেইদিকেও দৃকপাত করিতে হইবে বৈকি। বৃহত্তর চট্টগ্রাম শুধু নহে, সারা দেশের কৃষিজাত ও লোকজ পণ্যের অভূতপূর্ব সমাবেশ ঘটে এই মেলায়। লালদীঘির মাঠ ছাপাইয়া তাহা ছড়াইয়া পড়ে কোতোয়ালি হইতে আন্দরকিল্লা অবধি। কর্মব্যস্ত বন্দরনগরীর সকল পথই যেন আসিয়া মিশিয়া যায় এই মহামিলন মেলায়। বলীখেলা ও মেলাকে ঘিরিয়া শহরকেন্দ্রিক আধুনিক মানুষের এই উচ্ছ্বাস আমাদের নূতন করিয়া স্মরণ করাইয়া দেয় যে জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে মানুষ নগরবাসী হইয়াছে সত্য, কিন্তু তাহার বংশানুক্রমিক শিকড় ছড়াইয়া আছে গ্রাম হইতে গ্রামান্তরে। বস্তুত ইহা হইল সেই শিকড়ের টান। ইহার শক্তি যথার্থই অপ্রতিরোধ্য। আজ কিশোর-তরুণদের মধ্যে দৃশ্য-অদৃশ্য নানা অপশক্তি ও অপসংস্কৃতির যে বিরূপ প্রভাব আমাদের মহাউদ্বেগের কারণ হইয়া দাঁড়াইয়াছে তাহার মূলে রহিয়াছে এক ধরনের বিচ্ছিন্নতা বোধ। ইহাকে কার্যকরভাবে প্রতিরোধ করিতে হইলে শিকড়ের সহিত সংযোগ পুনঃপ্রতিষ্ঠাই যথেষ্ট নহে, তাহাকে পূর্ণমাত্রায় সচলও করিয়া তুলিতে হইবে।

আমাদের সৌভাগ্য যে দেশাত্মবোধে উজ্জীবিত একজন ব্যবসায়ী শতবর্ষ আগে তাহার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করিয়া গিয়াছেন— তাহা আজও আমাদের পথ দেখাইতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here