শতবর্ষের মাহেন্দ্রক্ষনকে বরণ করে নিলো যশোরবাসী

0
402

ডি এইচ দিলসান : নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে যশোরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বর্ষের মাহেন্দ্রক্ষনকে বরণ করেছে যশোরের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল ৮টায় যশোর শহর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষকলীগ, শহর আওয়ামী লীগ। এ সময় স্বাধীনতা যুদ্ধে সকল শহীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এছাড়া সকাল আটটার দিকে শহরের বকুল তলায় বঙ্গবন্ধুর প্রকৃৃৃৃতিতে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হয়। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ডায়াবেটিক সমিতিসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এই কর্মসূচিতে অংশ নেয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন যশোরের জেলা প্রশাসক মোহম্মদ শফিউল আরিফ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জিমান পিকুল,পুলিশ সুপার মোহম্মদ আশরাফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারন সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যশোর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহম্মেদ, পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ,শহর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ,তরুনলীগ, ¤্রমীকলীগ । শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের জন্য বিশেষ দোয়া এবং করোনাভাইরাস থেকে বিশ্ববাসী যেন রক্ষা পায় সেই দোয়া করা হয়।
এদিকে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুলের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন প্রেসক্লাব যশোর, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন, রেড ক্রিসেন্ট, নন্দন যশোর, পরিবেশ অধিদপ্তর, যশোর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সকল সংগঠনসহ যশোরের সকল সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।
অপরদিকে, জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী তথা মুজিববর্ষ উপলক্ষে যশোরের আকাশে বিমানের মহড়া হয়েছে। খুলনা থেকে ছেড়ে আসা বিমানের বহরটি মঙ্গলবার দুপুর দুইটায় যশোরের আকাশ সীমানায় আসে। বিমান বহরটি যশোরের উপর দিয়ে চলে যায়। এর ১৫ মিনিট পর বিমানের বহরটি আবারও যশোরের আকাশের সীমানায় আসে। মহড়ায় ২২টি বিমান ও একটি হেলিক্টার অংশ নেয়। এরমধ্যে শতবর্ষ লেখা বিশেষ এই মহড়ায় এক -এ ছয়টি এবং শুন্যে আটটি করে বিমান ঘুরতে দেখা যায়। যশোরে সেনানিবাস এলাকায় মহড়া দিয়ে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ঘাটিতে অবতরণ করে।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সাথে সমন্বয় করে রাত ৮টায় বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ১০০টি আতশবাজি প্রদর্শনের আয়োজন করা হয়।রাত ৮ টায় যশোর জেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে আকাশে উড়ানো হয় আতসবাজি।
এদিকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যলয়ে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি শুরু হয় সকাল সাড়ে ৬টায় জাতীয় পতাকা ও বিশ^বিদ্যালয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে। সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে যবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগ তাদের নেতা-কর্মীদের নিয়ে জাতির পিতার ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপরে যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা সমিতি, কর্মচারী সমিতি, শহীদ মসিয়ূর রহমান হল, শেখ হাসিনা ছাত্রী হলসহ বিশ^বিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ, দপ্তর, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহ জাতির পিতার ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
সকাল ১০টায় বিশ^বিদ্যালয়ে স্থাপিত ক্ষণগণনার ঘড়ির সামনে জন্মদিনের গানের চিরায়ত সুরে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শত পাউন্ডের কেক কাটা হয়। কেকটি জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাহারি নকশায় বিশেষভাবে তৈরি করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ^বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে একটি কৃষ্ণচূড়া গাছ লাগানোর মাধ্যমে শত বৃক্ষ রোপণ উদ্বোধন করেন বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন। বাকি বৃক্ষগুলো যবিপ্রবি স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং বিশ^বিদ্যালয় সংলগ্ন আমবটতলা-সাজিয়ালি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে যবিপ্রবি ছাত্রলীগের তত্ত্বাবধানে বিতরণ করা হয়। বাদ জোহর বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসিজদে জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের নিহত সদস্যদের রূহের মাগফিরাত কামনায় দীর্ঘ দোয়া-মোনাজাত করা হয়। দোয়া-মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা মো. আকরামুল ইসলাম।
এছাড়া জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে যবিপ্রবির শহীদ মসিয়ূর রহমান হল ও শেখ হাসিনা ছাত্রী হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। এ ছাড়া দুই হলের উদ্যোগে যবিপ্রবি ছাত্রলীগের তত্ত্বাবধানে বিশ^বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি ইয়াতিম খানা ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদেরও উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সাথে সমন্বয় করে রাত ৮টায় বিশ^বিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠেও ১০০টি আতশবাজি প্রদর্শনের আয়োজন করা হয়।