“শার্শার কৃষক বোরো ধান কাটায় ব্যাস্ত!  চোখে মুখে ফুটছে সোনালী দিনের স্বপ্ন”

0
437

আরিফুজ্জামান আরিফ : শার্শার কৃষকরা বোরো ধান কাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। ফলন প্রত্যাশার চেয়ে ভালো হওয়ায় কৃষক পরিবারে খুশির বন্যা বইছে। চোখে মুখে ফুটে উঠছে হাসির ঝিলিক। আগামী সোনালী দিনের স্বপ্নের জাল বুনছে কৃষক পরিবার পরিজন।শেেষ মুহুর্তে কোনো রকমের প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা করা হচ্ছে।

মাঠে মাঠে সোনালি রঙের ঢেউ। বাতাসে দুলছে পাকা ধানের শিষ। উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গেলেই দেখা যাচ্ছে অতি পরিচিত  চিরচায়িত এই মনোরম নয়নাভিরাম দৃশ্য। রোগ ও পোকা মাকড়ের আক্রমণ ছিল না বলেই  বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে কৃষকের বিস্তীর্ণ ফসলের ক্ষেত থেকে ভেসে আসছে এখন পাকা ধানের ঘ্রাণ।কৃষক পরিবারে দোল খাচ্ছে আনন্দের নানা ঢেউ।

বিগত বছরের তুলনায় এ বছর বোরো ধানের ফলন ভালো হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। ইতিমধ্যেই ধান কাটা শুরু হয়েছে। এ ধান বিক্রি করে লাভবান হতে পারবেন- এমন আশা তাদের চোখে-মুখে।

কৃষি অফিস বলছে, আনুষ্ঠানিকভাবে ধান কাটার শুভ সূচনা করা হয়েছে তবে সপ্তাহ খানেক বাদে পুরোপুরি ভাবে ধান কাটা শুরু হবে।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার সরকার বলেন,শার্শা উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ২১ হাজার ৫ শত ৫০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির ধান চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে সুগন্ধি বাশমতি ধানের আবাদ রয়েছে।  তিনি আরো বলেন, এ বছর সার বীজ-কীটনাশকসহ কৃষি উপকরণ সহজলভ্য ছিল। পোকার আক্রমণ ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হওয়ায় ধানের ফলন ভালো হয়েছে। আগাম জাতের ধান কৃষক কাটতে শুরু করেছেন। এক সপ্তাহের মধ্যে পুরোদমে ধান কাটা শুরু করবেন কৃষক সমাজ।
বেনাপোলের বারোপোতা গ্রামের বোরো চাষি আব্দুল মোমিন বলেন,চার বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করছেন। রেকর্ড ফলন পেয়েছেন। এখন শুধু দাম আর ফসল ঘরে তোলা নিয়ে তার চিন্তা।

স্বরুপদাহ গ্রামের আব্দুল মান্নান বলেন, কৃষি অফিসের পরামর্শ নিয়ে দশ বিঘা বোরো আবাদ করেছি। ফলন দেখে মনে হচ্ছে ভাগ্য খুলেছে। মাটি ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বাড়তি সুবিধা পেয়েছি।

সামটা গ্রামের ধানচাষি আব্দুস সালাম বলেন, এবছর ধান কাটা জোনের (শ্রমিক) দাম অনেক বেশি। প্রতিবিঘা ধান কাটা বাধা এবংমাড়াইয়ে খরচ হচ্ছে চার হাজার টাকা। গত বছর ছিল আড়াই হাজার টাকা।

শার্শার হরিণাপুতা গ্রামের কবীর হোসেন ও পান্তাপাড়া গ্রামের আব্দুল খালেক বলেন, বেশি লাভের আশা করে বাশমতি ধান চাষের আবাদ করেছিলাম কিন্তু ব্লাস্ট ছত্রাকের কারনে আমরা এই ধান চাষ করে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। খরচ পুষিয়ে ওঠা প্রায় কঠিন হয়ে গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here