শার্শার জামতলা বাজারে মহাসড়কের সরকারী জায়গা দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণ

0
610

আরিফুজ্জামান আরিফ।। যশোর – সাতক্ষীরা মহাসড়কের শার্শার জামতলা বাজারে হাইওয়ে সড়কের সরকারী রাস্তার জায়গা দখল করে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মহিবুর নামের এক ভূমিদস্যু।ফলে মহাসড়কের পাশের জনবহুল জামতলা বাজারের এই এলাকায় যানজট ও সড়ক দূঘর্টনা হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকার সচেতনমহল। জানা গেছে, শার্শা উপজেলার জামতলা বাজরে যশোর – সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশে কয়েক কোটি টাকার সরকারী রাস্তার জমি উপজেলার সামটা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে মহিবুর হোসেন অবৈধভাবে দখল করে বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন।
এবং বর্তমানে তা অব্যাহত রেখে আবারওসড়কের জায়গা জমি দখলে নিয়ে নতুন করে ভবন নির্মান করছেন।
অভিযোগ রয়েছে কথিত এই ভূমি দস্যু মহিবুরের ভবন নির্মাণের স্থানে জমির
যে পরিমান কাগজ পত্র আছে। তার চেয়ে অধিক পরিমান মহাসড়কের জায়গা দখল করে নিয়ে ভবন নির্মান আগেও করেছেন এবং বর্তমানেও তা অব্যাহত রেখে ভবন নির্মান করছেন। দখল কৃত সমুদয় জমির বৈধ কাগজ পত্র না থাকলেও ভূমি অফিসের অসাধু কর্মকর্তা- কর্মচারী অনৈতিক সুবিধা নিয়ে ভবন নির্মাণে সহযোগীতা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আর এই নির্মাধীন ভবনের জন্য সড়কের সরকারী জমি অবৈধভাবে জবর দখলের কারনে রাস্তাও সংকুচিত হয়ে পড়েছে।ফলে জনবহুল এই এলাকায় যানজট ও সড়ক দূঘর্টনা হওয়ার আশঙ্কায় ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে এলাকার সূধীজনেরা।

যার বহিঃপ্রকাশে যেকোন সময় ক্ষোভের বিস্ফোরণে ভূমি দস্যু মহিবুরের নির্মাধীন ভবন উচ্ছেদে মাঠে নামতে পারেন বিক্ষুব্ধরা।

কারন প্রকাশ্যে সড়কের জায়গা দখল করে মহিবুর এ অবৈধ কর্মকান্ড চালালেও ভূমি সংশ্লিষ্টের নিররতা এলাকার সচেতন মহলক রীতিমত ভাবনায় ফেলে দিয়েছে।

এ ব্যপারে অভিযুক্ত মহিবুরের কাছে জানতে চাইলে বলেন, দলিলে আমার এখানে
যে পরিমাণ জমি আছে, রেকর্ড হয়েছে অনেক কম।দলিল অনুযায়ী আমি ভবন নির্মান করছি।আর রেকর্ড সংশোধনের জন্য আদলতের আশ্রয় নিয়েছি। বর্তমানে তা বিচারাধীন।

আাদালত বিচারের রায়ের আগে কিভাবে সড়কের জমি দখলে নিয়ে কিভাবে ভবন নির্মান করছেন।বিষয়টি জানতে চাইলে কোন সদূত্তর দিতে পারেনি মহিবুর।

এ বিষয়ে বাগআঁচড়া ভূমি অফিসের(নায়েব) কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন,ঘটনাটি শুনে আমরা ঘটনাস্থালে গিয়ে সরকারি জায়গা ছেড়ে দিয়ে তার রেকর্ড কৃত জমিতে ভবন নির্মানের কাজ করতে বলে এসেছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভূমি ) মৌসুমী জেরিন কান্তা বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি।সড়কের জায়গা দখল অথবা সরকারি জমিতে কেহ যাতে
ভবন নির্মান করতে যাতে না পারে,এব্যাপারে বাগআঁচড়া ভুমি অফিসের নায়েবকে বলে দিয়েছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here