“শার্শার পল্লীতে কষ্টার্জিত টাকা ফেরত পাবার আশায়দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছে দু হতভাগা বোন”

0
223

আরিফুজ্জামান আরিফ: শার্শার পল্লীতে ভগ্নিপতির কাছে বিদেশের কষ্টার্জিত পাঠনো টাকা ফেরত পাবার আশায় দীর্ঘদিন বিভিন্ন দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছে দু হতভাগা শান্তি ও হালিমা নামে অসহায় দুইবোন।ফলে কঠিন মানবেতর জীবন যাপন করছে।

সু বিচারের আশায় শার্শার কায়বা ইউনিয়ন পরিষদ বরাবর এক লিখিত অভিযোগ জানা যায়, কলারোয়ার কেরালকাতা গ্রামের ইভাস তুল্ল সরদারের দুই মেয়ে শান্তি ও হালিমা সুখের আশায় বিদেশ যায়। সেখান থেকে ২০০৪ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত তাদের উপার্জিত কষ্টের ৫ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকায় ৫ বিঘা জমি বন্ধক রাখার জন্য আপন ভগ্নিপতি শার্শার রাড়ীপুকুর গ্রামের মৃত জয়নাল গাইনের ছেলে ইনতাজ আলী গাইনের নিকট ধাপে ধাপে টাকা পাঠায়।এবং প্রতি বিঘা ১২হাজার চুক্তিতে লিজে দেয়।
২০১০ সালে বিদেশ থেকে দেশে এসে ভগ্নিপতি ইনতাজের কাছে ৫বিঘা জমি বন্ধকের টাকা ও লিজের টাকা সহ সর্বমোট ৭ লক্ষ১১হাজার টাকা ফেরত চাই।কিন্তু সুচতুর ও ধুর্ত ইনতাজ আলী টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার করে এবং খুব খারাপ ভাষায় গালি-গালাজ ও মারধর করে।
সুচতুর ইনতাজ আলী গাইন দীর্ঘ ১৩ বছর যাবত এই জমির টাকাসহ জমি চাষ করে ভোগ করছে আর সর্বস্ব হারিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে শান্তি ও হালিমা।
বিষয়টি সুষ্ঠু সমাধানে লক্ষে রাড়ীপুকুর গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিরা দু দফা শালিস বসালে শালিসে হাজির হয়নি ইনতাজ আলী গং।বিষয়টি এলাকাবাসীর অনেকে অবগত রয়েছেন।
বর্তমানে মারাত্মক কঠিন রোগে আক্রান্ত দু বোন এবং মানবেতর জীবন যাপন করছে বলে জানা যায়।এমতাবস্থায়ও টাকা ফেরত চাইতে গেলে গালমন্দ করে বাড়ী থেকে তাড়িয়ে দেয় ভগ্নিপতি ইনতাজ আলী গাইন।
এমতাবস্থায় দ্বারে দ্বারে অসহয়ার মত ঘুরে বেড়াচ্ছে বিচারের দাবী নিয়ে।
অবশেষে গত ২৩ জুলাই ন্যায়বিচারের আশায় কায়বা ইউনিয়ন পরিষদে শান্তি ও হালিমা একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। যা সূত্রঃ ১০/২০১৭-২০১৮ইং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here