“শার্শার বাগআচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কর্তৃক শাড়ি-লুঙ্গী, সেমাই-চিনি পেয়ে ৪শ পরিবারে এবার ঈদ আনন্দ উৎসব হয়েছে”

0
296

আরিফুজ্জামান আরিফ: শার্শার বাগআচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত উদ্যোগে দেওয়া শাড়ি-লুঙ্গী, সেমাই-চিনি পেয়ে ইউনিয়নের ৪শ পরিবারে এবার ঈদ আনন্দের উৎসব হয়েছে।

টেংরা গ্রামের তাসলিমা খাতুন বলেন, এবারের ঈদটা আমরা অন্য রকম ভাবে পালন করেছি। অভাবের সংসারে ছেলেমেয়েদের মুখে খাবার তুলে দিতে যেখানে হিমশিম খেতে হয়, সেখানে সেমাই খাওয়ার কথা ভাবি কি করে? তবে চেয়ারম্যান এবার সেমাই চিনি দেওয়ায় ঈদের দিন ছেলেপিলে নিয়ে আনন্দই কাটিয়েছি।

একই কথা বলেন, টেংরা গ্রামের জমিলা, রিজিয়া, ফুলবানু, জুলেখা, বামুনিয়া গ্রামের গোলে বিবি, ছবিরন, আন্না, আমেনা ও জুলেখা।

বাগআচড়া মাঠপাড়ার সালেহা বেগম বলেন, সরকারি গম পাইছি। চিয়ারম্যান একটা শাড়ি দিয়েছে। ঈদের দিন নতুন শাড়ি কবে পরিছি বলতি পারবো না তবে এবার পরিছি। খুব ভাল লেগেছে।

একই অনুভুতি ব্যক্ত করেছেন বাগআচড়া মাঠপাড়ার করিমন, তানজিলা, খেদেজা, সামটা গ্রামের জবেদা, কহিনুর, ওকিলা, বসতপুরের আহরন বিবি ও জোহরা খাতুন। তারা সকলেই দারুন খুশি।

নারীদের পাশাপাশি পুরুষরা পেয়েছে লুঙ্গি। তাদেরও আনন্দের শেষ নেই। মহিশাকুড়া গ্রামের আতাল হক বলেন, দিন মজুরি করে সংসার চালাই। দিন আনা দিন খাওয়া। এই অবস্থায় ঈদেও কেনাকাটা করতি পারিনে তবে সরকারের দেওয়া গমের সাথে চিয়ারম্যানের দেওয়া শাড়ি লুঙ্গি শেমাই চিনি আমাদের এবারের ঈদটা ভাল ভাবে পার করিছি।

বাগআচড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুল বলেন, ইউনিয়নের ২ হাজার ২ পরিবারে সরকারিভাবে ১০ কেজি গম দেওয়া হয়েছে। তবে সম্পুর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে আমি ৪শ পরিবারের মাঝে শাড়ি-লুঙ্গী, সেমাই-চিনি দিয়েছি। ঈদের আগের দিন তাদের সাথে আমি নিজে ইফতারও করেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here